Advertisement
০৯ ডিসেম্বর ২০২২
Jammu and Kashmir

Jammu and Kashmir: কাশ্মীরে এ বার বিহারি শ্রমিককে খুন করল জঙ্গিরা, সুরক্ষার দাবিতে সংখ্যালঘুরা আন্দোলনে

কাশ্মীরে গত তিন সপ্তাহে পাঁচ জন হিন্দুকে খুন করল জঙ্গিরা। বৃহস্পতিবার দুপুরে কুলগামে ব্যাঙ্কে ঢুকে ম্যানেজার বিজয় কুমারকে খুন করা হয়।

নিরাপত্তা নজরদারির মধ্যেই সন্ত্রাস বাড়ছে কাশ্মীরে।

নিরাপত্তা নজরদারির মধ্যেই সন্ত্রাস বাড়ছে কাশ্মীরে। ছবি: পিটিআই।

সংবাদ সংস্থা
শ্রীনগর শেষ আপডেট: ০৩ জুন ২০২২ ০৮:১০
Share: Save:

কাশ্মীরে ফের ভিন্ রাজ্যের শ্রমিককে গুলি করল জঙ্গিরা। বৃহস্পতিবার রাতে বদগামে জঙ্গি হামলার শিকার হয় দুই শ্রমিক। তাঁদের মধ্যে এক জন নিহত হয়েছেন। আহত এক জন। তাঁরা বিহারের বাসিন্দা।

পুলিশ সূত্রের খবর, ওই দুই শ্রমিক চাদুরা এলাকায় মগ্রেপোরায় একটি ইটভাটায় কাজ করতেন। বৃহস্পতিবার রাতে সেখানে চড়াও হয় জঙ্গিরা। দুই শ্রমিককে চিহ্নিত করে গুলি করা হয়। স্থানীয় স্বাস্থ্যকেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হয়ে চিকিৎসকেরা গুরুতর জখম দিলখুশ কুমারকে (১৭) শ্রীনগরের এসএমএইচএস হাসপাতালে স্থানান্তরের পরমর্শ দেন। সেখানে নিয়ে যাওয়ার কিছুক্ষণ পরেই তাঁর মৃত্যু হয়। গুরি নামে আর এক জখম শ্রমিকের অবস্থা স্থিতিশীল বলে পুলিশ সূত্রে জানানো হয়েছে। গত অক্টোবরেও জঙ্গিদের গুলির শিকার হয়েছিলেন বিহারের তিন শ্রমিক।

Advertisement

কাশ্মীর উপত্যকায় গত তিন দিনে এই নিয়ে জঙ্গি হামলায় মৃত্যু হল তিন জনের। তাঁর মধ্যে দু’জন ভিনরাজ্যের। বৃহস্পতিবার দুপুরে কুলগাম জেলার এল্লাকুয়াই দেহাতি ব্যাঙ্কের ভিতরে ঢুকে বিজয় কুমার নামে ওই ব্যাঙ্কের ম্যানেজারকে গুলি করে খুন করে এক আততায়ী। বিজয় ছিলেন রাজস্থান বাসিন্দা। মঙ্গলবার কুলগাম জেলার গোপালপোরা এলাকার একটি স্কুল চত্বরে ঢুকে শিক্ষিকা রজনী বালাকে খুন করা হয়। তার আগে ১৩ মে বদগামে জেলার সরকারি কর্মী রাহুল ভট্ট নিজের দফতরে জঙ্গি হামলার শিকার হয়েছিলেন। তাঁরা দু’জনেই ছিলেন কাশ্মীরি পণ্ডিত।

গত কয়েক মাস ধরেই উপত্যাকায় জঙ্গিরা বেছে বেছে সংখ্যালঘু হিন্দু এবং শিখ সম্প্রদায়ের মানুষদের খুন করছে। ইতিমধ্যেই নিরাপত্তার দাবিতে সরব হয়েছেন কাশ্মীরি পণ্ডিতেরা। কাশ্মীরি পণ্ডিত রাহুল খুনের পরেই উপত্যকায় সংখ্যালঘু পণ্ডিত সম্প্রদায়ের ক্ষোভ দানা বাঁধছিল। মঙ্গলবার স্কুলশিক্ষিকা রজনীর হত্যার পর উপত্যকার শতাধিক সরকারি কর্মী আজ অবিলম্বে নিজ নিজ জেলায় বদলির দাবিতে আন্দোলনে নেমেছেন। প্রেস ক্লাব থেকে অম্বেডকর চক পর্যন্ত মিছিল করেন তাঁরা।

সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তেফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ

Advertisement
Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.