নিজে রিপাবলিকান হয়েও বর্তমান মার্কিন প্রেসিডেন্টের কট্টর সমালোচক ছিলেন তিনি। চাঁচাছোলা ভাষায় বহু বার আক্রমণ করেছেন প্রেসিডেন্টের নানা কার্যকলাপকে। জীবদ্দশায় কখনওই চাইতেন না তাঁর শেষকৃত্য অনুষ্ঠানে হাজির থাকুন প্রেসিডেন্ট। তাঁর ইচ্ছেকে মর্যাদা দিয়েই শেষকৃত্য অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণপত্র পাঠানো হয়নি প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে। কিন্তু সেই অনুষ্ঠানে উপস্থিত না থেকেও ঘুরে-ফিরে ‘এলেন’ তিনি। বাবাকে বিদায় জানানোর অনুষ্ঠানে নিজের আবেগঘন বক্তৃতায় নাম না করে একাধিক বার মার্কিন প্রেসিডেন্টকে একহাত নিলেন মেগান ম্যাকেন। সদ্যপ্রয়াত সেনেটর জন ম্যাকেনের কন্যা।

গত শনিবার অ্যারিজ়োনায় মারা যান সেখানকারই ছ’বারের সেনেটর ম্যাকেন। মস্তিষ্কের জটিল ক্যানসারে ভুগছিলেন দু’বারের প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী। শেষের দিকে চিকিৎসা করানো বন্ধ করে দিয়েছিলেন। খাচ্ছিলেন না ওষুধ। গত কাল ওয়াশিংটনের ন্যাশনাল ক্যাথিড্রালে ছিল তাঁর শেষকৃত্য অনুষ্ঠান। পরিবার-বন্ধুরা তো বটেই, প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট থেকে শুরু করে দেশ-বিদেশের তাবড় রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব উপস্থিত ছিলেন ওই অনুষ্ঠানে। সেখানেই বাবাকে নিয়ে একটি দীর্ঘ বক্তৃতা দিয়েছেন মেগান। নাম না করেই বেশ কয়েক বার প্রেসিডেন্টকে বিঁধেছেন তিনি। বলেছেন, ‘‘এক
জন মহান মার্কিনের প্রয়াণে শোকপালন করতে আমরা এখানে জড়ো হয়েছি। এক জন প্রকৃত মানুষ। এমন কেউ নন, যিনি সস্তা আর চটুল কথা বলেন আর কখনও আত্মত্যাগে বিশ্বাস রাখেন না।’’

প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের নির্বাচনী প্রচারের আসল স্লোগান ‘মেক আমেরিকা গ্রেট এগেন’-কেও কাল বক্তৃতার হাতিয়ার বানিয়েছেন মেগান। এক জায়গায় বলেছেন, ‘‘জন ম্যাকেনের আমেরিকাকে আবার মহান (গ্রেট) হওয়ার দরকার নেই। কারণ আমেরিকা সব সময়ই মহান ছিল।’’ সঙ্গে সঙ্গে গোটা ক্যাথিড্রাল হাততালিতে ফেটে পড়ে। ভিয়েতনামে যুদ্ধবন্দি ম্যাকেনের উপর হওয়া অত্যাচারের দিনগুলিও মনে করিয়ে দিয়েছেন কন্যা মেগান। জানিয়েছেন, দেশের জন্য সব সময় নিজেকে বিলিয়ে দিয়েছিলেন জন। মেগান বলেছেন, ‘‘ওই অত্যাচারের ক্ষতগুলো কিন্তু কখনও মিলিয়ে যায়নি। বাবার সারা শরীর জুড়ে ছিল।’’ ম্যাকেন কন্যার সংযোজন, ‘‘জেল, নৌবাহিনী বা সেনেট দিয়ে জন ম্যাকেনকে ব্যাখ্যা করা যায় না। তাঁর ব্যাখ্যা মেলে শুধু ভালবাসায়।’’

স্মরণ: মার্কিন সেনেটর জন ম্যাকেনের শেষকৃত্য অনুষ্ঠানে বক্তৃতা প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার। ছবি: রয়টার্স।

অনুষ্ঠানে প্রয়াত সেনেটরকে শ্রদ্ধা জানান প্রাক্তন দুই প্রেসিডেন্ট জর্জ বুশ এবং বারাক ওবামা। আজ সকালে নৌবাহিনীর প্রাক্তন সদস্য ম্যাকেনকে নৌ অ্যাকাডেমিতেই সমাহিত করা হয়।

মেগানের সমালোচনা নিয়ে অবশ্য তেমন প্রতিক্রিয়া জানাননি প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। অন্য সপ্তাহান্তের মতোই গল্‌ফ খেলতে হোয়াইট হাউস ছেড়ে ভার্জিনিয়া গিয়েছেন তিনি। টুইট করেছেন কানাডা আর মেক্সিকোর সঙ্গে হওয়া ‘নাফটা’ বাণিজ্যিক সমঝোতা নিয়ে।