রাশিয়ার কাছ থেকে এস-৪০০ ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরোধী ব্যবস্থা কিনলে ভারতের বড় ক্ষতি হবে। তা যেমন সাময়িক হতে পারে, তেমনই তা হতে পারে দীর্ঘমেয়াদি। বিদেশসচিব মাইক পম্পেয়োর আসন্ন দিল্লি সফর ও ওসাকায় 'জি-২০' জোটের দেশগুলির শীর্ষ সম্মেলনের ফাঁকে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো অ্যাবের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর নির্ধারিত বৈঠকের আগে ভারতকে এই হুঁশিয়ারি দিল আমেরিকা। এই মাসের শেষেই ভারতে আসছেন মার্কিন বিদেশসচিব পম্পেয়ো।

মার্কিন বিদেশ দফতরের অ্যাসিস্ট্যান্ট সেক্রেটারি অ্যালিস ওয়েলস বৃহস্পতিবার কংগ্রেসের হাউস ফরেন অ্যাফেয়ার্স সাবকমিটিকে বলেন, "আমাদের ঘনিষ্ঠ দেশগুলিকে যথেষ্ট ভেবেচিন্তে সিদ্ধান্ত নিতে হবে, কোন সমরাস্ত্র ব্যবস্থা ও প্ল্যাটফর্ম তারা কিনবে। আমরা দিল্লিকে জানিয়ে দিয়েছি, প্রতিরক্ষায় ভারতকে আমরা যতটা সম্ভব সাহায্য করতে রাজি আছি। প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রে আরও অনেক চুক্তি করতে রাজি আছি ভারতের সঙ্গে। আরও সমরাস্ত্র বেচতে রাজি আছি ভারতকে। কিন্তু দিল্লিকেও বুঝতে হবে, মার্কিন কংগ্রেস তাদের 'প্রধান প্রতিরক্ষা সহযোগী'র মর্যাদা দিয়ে কী আশা করছে তাদের কাছ থেকে। দিল্লি যদি রুশ এস-৪০০ ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরোধী ব্যবস্থা কেনা থেকে পিছু না হঠে, তা হলে আমাদেরও অন্য কথা ভাবতে হবে।"

রুশ এস-৪০০ কেনার প্রস্তুতি বন্ধ করলে ভারত আমেরিকার কাছ থেকে কী কী সর্বাধুনিক সমরাস্ত্র, সরঞ্জাম পেতে পারে, গত কয়েক সপ্তাহে মার্কিন প্রতিরক্ষা কর্তারা তা জানিয়েছেন, বেশ কয়েক বার। বলা হয়েছে, সে ক্ষেত্রে ভারত পেতে পারে মার্কিন টার্মিনাল হাই অলটিটিউড এরিয়া ডিফেন্স (থাড) ও পেট্রিয়ট-৩ ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরোধ ব্যবস্থা।

আরও পড়ুন- ইমরানের সামনেই বক্তৃতায় সন্ত্রাসবাদ নিয়ে সরব মোদী​

আরও পড়ুন- সাংহাই সম্মেলনেও সন্ত্রাস নিয়ে ফের পাকিস্তানকে তোপ মোদীর