• নিজস্ব প্রতিবেদন
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

চশমা পরে বাইরে বেরচ্ছেন? এ সব না মানলেই সংক্রমণের আশঙ্কা

eye care
চশমা স্যানিটাইজ না করলেই বিপদ। ফাইল ছবি।

বর্তমান পরিস্থিতি শুধু যে অর্থনীতিতে আঘাত হেনেছে এমনটা নয়। কোভিড-১৯ সংক্রমণের প্রভাব পড়েছে নিত্যনৈমিত্তিক প্রতিটি কাজেও। স্বাস্থ্য এবং পরিচ্ছন্নতা নিয়ে মানুষ আরও বেশি করে সচেতন হচ্ছেন। এ নিয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নিদান প্রথম থেকেই ছিল যে, চোখে হাত দেওয়া কমাতে হবে। প্রতিটি জিনিস, যা আমরা রোজ ব্যবহার করছি, সেগুলি স্যানিটাইজ করতেই হবে। লকডাউনের পর আনলক পর্ব শুরু হয়েছে। অনেকেই কাজে বেরচ্ছেন। মাস্ক পরে তো বেরতেই হবে। এদিকে চশমাও রয়েছে। খানিকটা অসুবিধা হচ্ছে। মানিয়ে নিতে হচ্ছে। বাড়ি ফিরে মাস্ক তো স্যানিটাইজ করছেন নিশ্চয়। কিন্তু চশমা?ঠিক মতো স্যানিটাইজ করছেন সেটি? মেনে চলছেন চশমা স্যানিটাইজ করার সঠিক নিয়ম?

দি আমেরিকান অ্যাকাডেমি অব অপথ্যালমোলজি কোভিড-১৯ পরিস্থিতি নিয়ে চোখ সংক্রান্ত যত্নের বিশেষ নির্দেশিকা দিয়েছে। চোখের যত্ন তার অন্যতম এবং চশমা পরলে সে সংক্রান্ত কিছু নির্দেশিকাও দেওয়া হয়েছে।

যে কোনও পরিস্থিতিতে সংক্রমণ আটকাতেই হবে। চশমা যাঁদের রয়েছে, তাঁদের ক্ষেত্রে কোনও সারফেসে সেটি রাখলেই বিশেষভাবে স্যানিটাইজের প্রয়োজন, এমনই জানাচ্ছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। তবে চশমার ক্ষেত্রে একটা সুবিধা রয়েছে।

চোখে চশমা থাকলে চোখে হাত দেওয়ার একটা প্রবণতা কমে। তবে করোনা আবহে এমনিতেও চোখে হাত দেওয়ার প্রবণতা কমছে, এটিকে ইতিবাচক হিসেবেই উল্লেখ করেন চক্ষু রোগ চিকিৎসক অর্ণব পাল।

আরও পড়ুন: করোনা আতঙ্ক বাড়ছেই, রোগ ঠেকাতে দূরে রাখুন নুন​

চশমা থাকলে বায়ুবাহিত ভাইরাস পার্টিকলের মাধ্যমে সরাসরি চোখে সংক্রমণের সম্ভাবনা কম। কিন্তু অনেকেই কাজের মাঝে চশমা খুলে অফিসের টেবিলে রাখছেন। কেউ বা শৌচাগারের বেসিনের পাশে চশমা রেখে চোখে-মুখে জল দিচ্ছেন। হাত স্যানিটাইজ করলেও চশমাটি স্যানিটাইজ না করেই পরে নিচ্ছেন চোখে। সে ক্ষেত্রে ভাইরাস সংক্রমণের সম্ভাবনা অজান্তেই আরও বেশ খানিকটা বেড়ে যাচ্ছে।

আরও পড়ুন: করোনা আবহে ভাইরাল জ্বর-ডেঙ্গি, সেরে গেলেও এ সব না খেলে বিপদ​

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এবং দি আমেরিকান অ্যাকাডেমি অব অপথ্যালমোলজি চশমা স্যানিটাইজ করে তা চোখে পরার বিষয়টি নিয়ে বেশ কিছু নির্দেশিকা দিয়েছে। যেমন-

১. চশমার ফ্রেম কোনও সারফেসে ঠেকলে সেটি অবশ্যই স্যানিটাইজ করতে হবে নিয়মিত। কারণ চশমা ত্বকের সংস্পর্শে আসছে। চশমাটিকে সাবান ও গরম জলে ধুয়ে শুকনো টিসু পেপার দিয়ে মুছে নিতে হবে।

২.  চশমার ফ্রেম ও হ্যান্ডল স্যানিটাইজার দিয়ে পরিষ্কার করতে হবে। একই সঙ্গে বজায় রাখতে হবে ব্যক্তিগত পরিচ্ছন্নতাও।

৩. চশমা কোনও বাক্সে রাখলে, সেই বাক্সটি নিয়মিত স্যানিটাইজ করতে হবে।

৪. চশমা পরিষ্কার করার টিসু যেন স্যানিটাইজড হয়।

৫. বাইরে বেরলে অবশ্যই বাড়ি ফিরে চশমা স্যানিটাইজ করতে হবে। রোদ চশমার ক্ষেত্রেও একই নিয়ম প্রযোজ্য।

৬. টেবিলের উপর চশমা খুলে রাখলে বা চোখে জল দেওয়ার সময় চশমা বেসিনের পাশে রাখলে চশমা স্যানিটাইজ করে তার পর পরতে হবে।

৭. চশমা বাক্সে রাখার সময় লেন্সের দিকটি যেন উপরে থাকে, নজর রাখতে হবে সে দিকেও।

৮. মাথার উপরে চশমা রাখার অভ্যাস থাকলে তা অবশ্যই ত্যাগ করতে হবে।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন