ব্যস্ততার চাপে বাজারহাটের সময়েও কোপ পড়েছে। দোকানে গিয়ে উল্টেপাল্টে দেখেছুঁয়ে বেচাকেনার জায়গা দখল করে নিচ্ছে অনলাইন অর্ডার। স্রেফ ক’টা মাউস ক্লিক আর তাতেই ঘরে হাজির প্রয়োজনীয় সবকিছুই। আজকাল গোটা পুজোর বাজারটাই অনলাইনে সারার বিজ্ঞাপন দিচ্ছে নানা সাইট। চাহিদার বাড়বাড়ন্ত এর অন্যতম কারণ তো বটেই।

অনলাইনে জিনিসপত্র কেনা সময় বাঁচায় ঠিকই, প্রায় সারা বছর জুড়েই বিভিন্ন সাইটে চলে অফার। তাই সে সুযোগ নিতেও অনলাইনে পাড়ি জমানো অন্যায় কিছু নয়। তা ছাড়া অনলাইনে কেনাকাটার জন্য সাইটগুলো ক্রেতাদের জন্য দাম চোকানোর অনেক সুবিধাজনক  উপায় রাখেন। রয়েছে বদলানোর সহজ উপায়ও। কাজেই অনলাইনের হাতছানি দিনে দিনে অপ্রতিরোধ্য হয়ে উঠছে।

অন্যান্য জিনিস তো বটেই এমনকি জামা-কাপড় কেনার সময়ও আজকাল অনেকেই মাপ, হাতে ধরে পরখ করা এ সব লোভ সরিয়ে অনলাইনে আস্থা রাখছেন। কিন্তু তার মানে এই নয় যে অনলাইনে আসা জিনিস নিয়ে কখনও কোনও অভিযোগ থাকে না। বরং অনলাইনে জামাকাপড় কিনে ফের বদলানোর ঝঞ্ঝাটেও পড়তে হয় অনেক সময়। তবে কিছু নিয়ম ও সাবধানতা মেনে অনলাইনে পোশাক কিনলে বদল করার ঝঞ্ঝাট বা ঠকে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে না।

আরও পড়ুন: আদা-জল খেয়ে লেগে পড়ার প্রবাদ তো শুনেছেন? আদৌ এই পানীয়র কোনও গুণাগুণ আছে কি?

মতামত: যে জিনিসটি কিনছেন, রিভিউ বিভাগে গিয়ে তার সম্পর্কে মতামত দেখুন। কেবল নকশা বা চটকদার রঙে নয়, বরং রিভিউয়ে মজুন আগে। ভাল ও খারাপ বলে দেগে দেওয়ার জন্য বেশ কিছু স্টার মার্কিং থাকে। কোনও পোশাক কতগুলো স্টার মার্ক পেল ও তার ব্যাখ্যায় কী কী লেখা তা পড়ুন। এক ঝলক দেখলেই বুঝবেন বেশির ভাগ মানুষ পোশাকটি সম্পর্কে কী বলছেন। ভরসাযোগ্য মতামতের সংখ্যা বেশি হলে তবেই এগোন।

অনলাইনে ‘সেল’ চললে সেই সুযোগ নিন।

এক ভুল দু’বার নয়: ছবি দেখে জিনিস বুঝতে হয় বলে মাপ ও রং চোখে দেখে পরখের উপায় এখানে থাকে না। আর এখানেই হয় ভুল। ছবিতে যে মাপ বা রং দেখলেন, জিনিস এসে পৌঁছলে তা মিলল না। এমন হতেই পারে। তাই আগে ঠকেছেন এমন সাইট থেকে সতর্ক হোন, দরকারে মাপ, রং এগুলো বার বার যাচাই করুন। এর পরেও ভুল হলে বদলানো ছাড়া উপায় নেই।

দরদাম: সরাসরি দরদাম করতে পারবেন না ঠিকই, তবে অন্যান্য ওয়েবসাইটে ওই রকম পোশাকের বা নির্দিষ্ট ওই পোশাকটির কেমন দাম বলছে, তা এক বার দেখে নিন। অফার চললেও এই যাচাইটুকু প্রয়োজন।

আরও পড়ুন: বর্ষায় হানা দেয় পেটের নানা সমস্যা, কী কী করলে এই সমস্যা থেকে দূরে থাকবে সন্তান?

শিপিং চার্জ: অনেক সময় দেখা যায় পোশাকের দাম কম রাখলেও ডেলিভারি চার্জ বা শিপিং চার্জে বেশি টাকা কাটছে সাইটটি। এগুলোকে বলে ‘হিড‌্ন চার্জ’। শেষে দেখা যায়, দাম কম হলেও ডেলিভারি ও শিপিং চার্জ মিলিয়ে হয়তো অনেকটা বেড়ে গেল পোশাকের দাম। কাজেই সে বিষয়ে সাবধান থাকুন।

বদল: যে সাইট থেকে জিনিস কিনছেন তাদের বদলের নিয়ম ও সময়সীমা সম্পর্কে আগেই খোঁজখবর নিন।

অফার: যে সাইট থেকে পোশাক কিনছেন, তারা বিশেষ কোনও অফার দিচ্ছে কি না সে সম্পর্কে খোঁজ নিন। এতে পকেটের স্বাস্থ্য ভাল থাকবে।