• সংবাদ সংস্থা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

কথা হলে পাক অধিকৃত কাশ্মীর নিয়ে হোক, পাকিস্তানকে বার্তা রাজনাথের

Rajnath Singh
রাজনাথ সিং। ফাইল চিত্র।

Advertisement

সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ প্রত্যাহার নিয়ে ভারত ও পাকিস্তানের কূটনীতির আঁচ এখনও গনগনে। সেই তপ্ত পরিস্থিতির মধ্যেই পাক অধিকৃত কাশ্মীর নিয়ে তাৎপর্যপূর্ণ মন্তব্য করলেন প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিংহ। হরিয়ানায় একটি রাজনৈতিক কর্মসূচিতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘‘যদি দু’দেশের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক আলোচনা হয় তবে তা হোক পাক অধিকৃত কাশ্মীর নিয়ে।’’

অক্টোবরেই ভোট হরিয়ানায়। তাকে সামনে রেখেই, রবিবার হরিয়ানার পাঁচকুলায় ছিল জন আশীর্বাদ যাত্রা। সেখানে রাজনাথ বলেন, ‘‘কেউ কেউ মনে করেন পাকিস্তানের সঙ্গে আলোচনা হওয়া উচিত। কিন্তু, পাকিস্তান যত দিন সন্ত্রাসবাদীদের মদত দিয়ে যাবে তত দিন তাদের সঙ্গে কোনও আলোচনা নয়। যদি আলোচনা হয়, তবে তা পাক অধিকৃত কাশ্মীর নিয়ে হোক।’’ প্রসঙ্গত, সংসদে ৩৭০ অনুচ্ছেদ প্রত্যাহার নিয়ে বিবৃতি দিতে গিয়ে পাক অধিকৃত কাশ্মীর ও আকসাই চিনকে ভারতের অংশ বলে দাবি করেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ।

দেশের পরমাণু নীতিতে বদলের ইঙ্গিত দিয়ে দিন কয়েক আগেই প্রথম দফায় বোমা ফাটিয়েছিলেন প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিংহ। যুদ্ধ পরিস্থিতি তৈরি হলে, শত্রুপক্ষের বিরুদ্ধে প্রথম পরমাণু অস্ত্র কখনও ব্যবহার করবে না ভারত। এখনও পর্যন্ত এটাই নয়াদিল্লির পরমাণু অস্ত্রের নীতি বলে গোটা দুনিয়া জানে। কিন্তু, আগামী দিনে এই নীতি বদলাতে পারে বলে জানিয়েছেন রাজনাথ। তিনি বলেন, ‘‘সব কিছুই পরিস্থিতির উপর নির্ভর করছে।’’ রবিবার ফের বিস্ফোরণ ঘটালেন তিনি।

আরও পড়ুন: জাগুয়ারের ধাক্কায় ২০ ফুট দূরে ছিটকে যায় মার্সিডিজ, আরসালানকে নিয়ে ঘটনার পুনর্নির্মাণ করবে পুলিশ​

সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ প্রত্যাহার নিয়ে এ দিন রাজনাথ বলেন, ‘‘এমন পদক্ষেপের ফলে পাকিস্তান হতবুদ্ধি হয়ে গিয়েছে। তারা আন্তর্জাতিক মহলের দরজায় কড়া নাড়ছে।’’ জম্মু-কাশ্মীর নিয়ে আন্তর্জাতিক মহলের বৃহৎ শক্তিগুলির কাছ থেকে তেমন ভাবে সাড়া পায়নি ইসলামাবাদ। এর পরে জম্মু কাশ্মীর নিয়ে হস্তক্ষেপ করার জন্য রাষ্ট্রপুঞ্জ নিরাপত্তা পরিষদের কাছে চিঠি দেয় তারা। কিন্তু সেখানেও আমল পায়নি পাকিস্তানের দাবি। ভেটো দেওয়ার অধিকার থাকা চিনের অনুরোধে, ৩৭০ ধারা রদের প্রেক্ষিতে জম্মু-কাশ্মীর নিয়ে বৈঠকে বসে নিরাপত্তা পরিষদের ১৫টি দেশ। রাষ্ট্রপুঞ্জের সূত্রের একটি রিপোর্ট, সেই বৈঠকেও বেশির ভাগ দেশই জানিয়ে দেয়, কাশ্মীর একেবারেই ভারত ও পাকিস্তানের নিজেদের মধ্যেকার ইস্যু। এটা ওই দুই দেশই আলাপ, আলোচনায় মিটিয়ে নিতে পারে।

রাজনাথ এ দিন বলেন, “কয়েকদিন আগেই পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলেছেন ভারত বালাকোটের চেয়েও বড়সড় কিছু ঘটাতে চলেছে। তার অর্থ, বালাকোটে ভারত কী করেছে তা মেনে নিয়েছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী।”

আরও পড়ুন: ‘কাশ্মীর থেকে নজর ঘোরাতে পরমাণু যুদ্ধে নামতে পারে ভারত’, এ বার বললেন ইমরান​

সবাই যা পড়ছেন

Advertisement

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন