জম্মু ও কাশ্মীরের মানুষের নিরাপত্তা নিয়ে যদি আর কোনও উদ্বেগই না থাকে, তা হলে কেন এত দিন ধরে আটক রাখা হয়েছে সেখানকার প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ফারুক আবদুল্লাকে? ‘কোনও কারণ ছাড়াই’ ৮১ বছর বয়সী নেতা ফারুককে আটক রাখার জন্য প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী সরকারের বিরুদ্ধে তোপ দেগে মঙ্গলবার এই প্রশ্ন তুললেন প্রবীণ কংগ্রেস নেতা কপিল সিব্বল। তাঁর আরও প্রশ্ন, ফারুককে আটক রাখার পিছনে কি অন্য কোনও কারণ রয়েছে? ফারুককে আদালতে তলব করার যে আর্জি সুপ্রিম কোর্টে জানিয়েছেন এমডিএমকে নেতা ভাইকো, সিব্বলের প্রশ্ন, তার প্রেক্ষিতেই কি আটক করা হয়েছে ন্যাশনাল কনফারেন্স নেতাকে?

গত ৫ অগস্ট, সংবিধানের ৩৭০ ধারা বাতিল করে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ জম্মু ও কাশ্মীর রাজ্যকে আলাদা দু’টি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল ঘোষণা করার পরপরই জন নিরাপত্তা আইনে জম্মু ও কাশ্মীরের রাজনীতিকদের আটক করা শুরু হয়। ওই আইনে আদালতে কোনও শুনানি ছাড়াই কোনও ব্যক্তিকে দু’বছর পর্যন্ত আটক রাখা যায়।

এ দিন তাঁর টুইটে সিব্বল লিখেছেন, ‘‘কিছু দিন আগে বিজেপি জানিয়েছিল, জম্মু-কাশ্মীরের ৯২ শতাংশ মানুষই সংবিধানের ৩৭০ ধারা রদের সরকারি সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন। সেখানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক। তার পর অমিত শাহ সংসদে জানান, ফারুক আবদুল্লাকে আটকও করা হয়নি। করা হয়নি গ্রেফতারও। মানুষের নিরাপত্তা নিয়ে যখন আর কোনও উদ্বেগ নেই, তখন কেন ফারুককে আটক করা হল? সেটা কি সুপ্রিম কোর্টে ভাইকোর আর্জির প্রেক্ষিতেই?’’

আরও পড়ুন- ৭০ বছর বিচ্ছিন্নতাবাদের সঙ্গে লড়াইয়ের পর কাশ্মীরে নবযুগের সূচনা হয়েছে, জন্মদিনে বললেন মোদী​

আরও পড়ুন- রাজস্থানে বিএসপির ৬ বিধায়কই যোগ দিলেন কংগ্রেসে, মায়াবতী বললেন, প্রতারণা​

ভাইকোর আর্জির প্রেক্ষিতে সোমবার কেন্দ্রীয় সরকার ও জম্মু-কাশ্মীর প্রশাসনকে তাদের বক্তব্য জানাতে বলেছে শীর্ষ আদালত।

প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ, বিচারপতি এস এ বোবদে ও বিচারপতি এস এ নাজিরকে নিয়ে গড়া সুপ্রিম কোর্টের বেঞ্চে ভাইকোর আর্জি নিয়ে পরবর্তী শুনানি হবে আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর।