সেনা মোতায়েন নিয়ে উদ্বেগ বাড়ছিল কাশ্মীরে। বায়ুসেনাকে কেন্দ্রের পাঠানো চূড়ান্ত সতর্কবার্তা সেই উদ্বেগকে এক ধাক্কায় আরও বাড়াল। বৃহস্পতিবারেই কাশ্মীরে বায়ুসেনা এবং স্থলসেনাকে চূড়ান্ত সতর্কবার্তা পাঠায় কেন্দ্র। সেই বার্তা পেয়েই ওই দিন সন্ধ্যা থেকেই উপত্যকায় টহলদারি শুরু করেছে বায়ুসেনার যুদ্ধবিমান।   

সপ্তাহখানেক আগেই কাশ্মীরে ১০ হাজার সেনা পাঠিয়েছিল কেন্দ্র। তার পর থেকেই জল্পনা চলতে থাকে তা হলে কি রাজ্যে ৩৫এ এবং ৩৭০ ধারা নিয়ে কোনও বড় পদক্ষেপ করতে চলেছে কেন্দ্র? যদিও গত কাল সেই সম্ভাবনার কথা উড়িয়ে দিয়েছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক।  তারা জানিয়েছে, অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তার কথা মাথায় রেখেই সেনা বাড়ানো হচ্ছে উপত্যকায়। পাশাপাশি তারা এ কথাও জানিয়েছে, এটা সেনার একটা রুটিনমাফিক রোটেশন। তবে কোন প্রেক্ষিতে সেনা মোতায়েন করা হচ্ছে বা সেনা সরানো হচ্ছে তা পাবলিক ডোমেনে আলোচনা করার নিয়ম নেই বলেও জানিয়েছে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক।

এ দিকে, সেনা মোতায়েন এবং সেনাকে সতর্কবার্তা পাঠানো নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন ন্যাশনাল কনফারেন্স নেতা ওমর আবদুল্লা। টুইট করে তিনি বলেন, “কাশ্মীরে এটা কী হচ্ছে? কী এমন প্রয়োজন পড়ল যে রাজ্যে সেনা তত্পরতা বাড়ানো হচ্ছে! ” এ ধরনের তত্পরতা নিশ্চয়ই ৩৫এ সম্পর্কিত নয়। এই সতর্কবার্তার অন্য কোনও কারণ আছে বলেই মন্তব্য ওমরের।

আরও পড়ুন: ঠান্ডা যুদ্ধের দিন ফিরছে? ভেঙে গেল ৩২ বছরের পুরনো রুশ-মার্কিন চুক্তি

আরও পড়ুন: ‘চাইলে মধ্যস্থতা করতে পারি’, ফের বিতর্ক উস্কে দিলেন ট্রাম্প

আবার অন্য একটি সূত্র বলছে, সামনেই স্বাধীনতা দিবস। ওই দিন জঙ্গিরা হামলা চালাতে পারে বলেও আশঙ্কা করা হচ্ছে। সে ধরনের কোনও ঘটনা যাতে না ঘটে তা নিশ্চিত করতেই এমন ব্যবস্থা করা হচ্ছে।