• সংবাদ সংস্থা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

দিল্লিতে আত্মঘাতী জঙ্গি হানার ছক! আইএস-যোগ সন্দেহে গ্রেফতার দম্পতি

ISIS Arrest
ধৃত দম্পতি। টুইটার থেকে নেওয়া ছবি

খাস রাজধানীতে আত্মঘাতী জঙ্গি হানার ছক! আইএস-এর সঙ্গে যোগসাজশের অভিযোগে কাশ্মীরের এক দম্পতিকে গ্রেফতারের পর এমনই বিস্ফোরক তথ্য পেলেন গোয়েন্দারা। শুধু তাই নয়, ওই দম্পতির বিরুদ্ধে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন (সিএএ)-বিরোধী বিক্ষোভ-অশান্তিতে মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষজনকে উস্কানি দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে বলেও দাবি পুলিশের। জাহানজেব সামি এবং তাঁর স্ত্রী হিনা বশির বেগকে দিল্লির জামিয়ানগরের বাড়ি থেকে রবিবার সকালে গ্রেফতার করে দিল্লি পুলিশ। তাঁদের কাছ থেকে আপত্তিকর বেশ কিছু সামগ্রী উদ্ধার হলেও পুলিশ সে বিষয়ে এখনই কিছু বলতে চায়নি।

পুলিশ সূত্রে খবর, আইএস-এর আফগানিস্তানের খোরাসান প্রদেশ শাখার শীর্ষ নেতৃত্বের সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে যোগাযোগ ছিল আদপে কাশ্মীরের বাসিন্দা এই দম্পতির। আইএস জঙ্গিরা দিল্লিতে একটি আত্মঘাতী জঙ্গি হানার ছক কষেছিল। সেই কাজেই বেশ কিছু দিন ধরে দিল্লিতে থাকছিলেন ওই দম্পতি। জামিয়ানগরের অদূরেই জামিয়া মিলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়। ফলে জামিয়ার গন্ডগোলে এই দম্পতির হাত থাকতে পারে বলেও প্রাথমিক তদন্তে অনুমান গোয়েন্দাদের।

জাহানজেব একটি বেসরকারি সংস্থায় চাকরি করেন। তার সঙ্গে ‘ইন্ডিয়ান মুসলিম ইউনাইট’ নামে একটি সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম চালান তাঁরা। তদন্তকারীরা জানতে পেরেছেন, এই প্ল্যাটফর্মে সিএএ ও জাতীয় নাগরিকপঞ্জি (এনআরসি)-র বিরুদ্ধে জনমত গঠনের কাজ করা হয়।

আরও পডু়ন: বিদেশে পালানোর ছক! মুম্বই বিমানবন্দরে আটক ইয়েস ব্যাঙ্ক কর্তার মেয়ে

রবিবার গ্রেফতার  ও জিজ্ঞাসাবাদের পর তদন্তকারীদের প্রাথমিক অনুমান, দিল্লির সাম্প্রতিক সংঘর্ষে আইএস জঙ্গিদের মদত থাকতে পারে। অভিযানের সঙ্গে থাকা এক পুলিশ আধিকারিক বলেন, ওই দম্পতি আফগানিস্তানে আইএস নেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছিলেন। সিএএ-এনআরসির আবহে দিল্লিতে আত্মঘাতী জঙ্গি হানার ছক কষছিলেন তাঁরা। তবে কবে-কোথায় হামলা চালানোর পরিকল্পনা ছিল, তা এখনও স্পষ্ট জানতে পারেননি গোয়েন্দারা।

আরও পড়ুন: হুঁশিয়ারি সার, মাস্ক নিয়ে দেদার কালোবাজারি ঠেকাতে পারছে না পুলিশি নজরদারি

দিল্লির সংঘর্ষ মেটার পর তদন্তে গোয়েন্দাদের একটি অংশের অনুমান, সাম্প্রতিক হিংসায় প্রত্যক্ষ মদত ছিল আইএস জঙ্গিদের। কিন্তু খাস রাজধানীর বুকে আইএস জঙ্গিদের কার্যকলাপ বা উপস্থিতি মাথাব্যথার কারণ হয়ে উঠেছে দিল্লি পুলিশের। অন্য দিকে বিজেপি নেতারা বলে আসছিলেন, দিল্লির এই সংঘর্ষে মদত ছিল পাকিস্তানের। কেউ কেউ জঙ্গি-যোগের কথাও বলছিলেন। এই দম্পতি গ্রেফতার হওয়ার পর বিজেপি সেই অভিযোগ আরও জোরালো করবে বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন