ভারতের ইতিহাসে কোনও দিন কোনও রাজ্যে যা হয়নি, তাই হল ওড়িশায়। উলটপুরাণ পড়শি রাজ্যে। পেট্রোলকে টপকে উপরে উঠে গেল ডিজেলের দাম। সোমবার ভুবনেশ্বর-সহ ওড়িশার সর্বত্রই পেট্রোলের চেয়ে ডিজেল বিক্রি হয়েছে লিটার প্রতি ১২ পয়সা বেশি দামে। পেট্রোলের দাম যেখানে ৮০.৫৭ টাকা, সেখানে ডিজেলের বিক্রয় মূল্য ৮০.৬৯ টাকা। এই পরিস্থিতির জেরে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বাড়ার আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা। কেন্দ্রের ‘ভ্রান্ত নীতি’কে দূষছেন ওড়িশার অর্থমন্ত্রী। রাজ্য সরকারকে ভ্যাট কমানোর আর্জি জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় পেট্রোলিয়াম মন্ত্রী ধর্মেন্দ্র প্রধান।

পেট্রোল-ডিজেলের দাম নির্ধারিত হয় কেন্দ্র ও রাজ্যের কর যুক্ত করে। কেন্দ্র নির্দিষ্ট হারে কর নেয়। তার উপর রাজ্যগুলি নিজেদের হারে ভ্যাট চাপায়। ফলে একেক রাজ্যে তেলের দামও একেক রকম হয়। ডিজেল যে হেতু গণ পরিবহণ-সহ সাধারণ মানুষের কাজে বেশি লাগে, তাই পেট্রোলের চেয়ে ডিজেলে কম ভ্যাট নেওয়াই দস্তুর সব রাজ্যে। কিন্তু দুই জ্বালানিতেই একই হারে (২৬ শতাংশ) কর নেয় ওড়িশা সরকার। বিশেষজ্ঞদের মতে, সেই কারণেই দেশের অন্য রাজ্যগুলির তুলনায় এই বৈপরীত্য ওড়িশায়।

উৎকল পেট্রোলিয়াম ডিলার্স অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক সঞ্জয় লাঠ বলেন, ‘‘শুধু ওড়িশা নয়, ভারতের ইতিহাসেই এটা নজিরবিহীন ঘটনা। এর আগে কখনও কোথাও ডিজেলের দাম পেট্রোলের চেয়ে বেশি হয়নি। এই পরিস্থিতির জেরে প্রায় গোটা রাজ্যেই ডিজেলের বিক্রি কমেছে।’’

গ্রাফিক: শৌভিক দেবনাথ

আরও পড়ুন: ২০১৯ লোকসভা নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী নন রাহুল, জানালেন চিদম্বরম

যদিও এ নিয়ে রাজনৈতিক চাপানউতরও শুরু হয়েছে। ওড়িশার শাসক দল বিজু জনতা দলের অভিযোগ, কেন্দ্রের ভ্রান্ত নীতির কারণেই পেট্রোলের চেয়ে ডিজেল মহার্ঘ হয়ে গিয়েছে। বিজেডির সুরেই সুর মিলিয়েছে কংগ্রেস। ওড়িশার অর্থমন্ত্রী এস বি বেহরা বলেন, ‘‘বিজেপি তথা এনডিএ-র ভুল নীতির কারণেই ডিজেল-পেট্রোলের দামের ভারসাম্য হারিয়েছে।’’ তাঁর আশঙ্কা, এর জেরে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দামও বেড়ে যেতে পারে। কংগ্রেস নেতা আর্য জ্ঞানেন্দ্রর বক্তব্য, ‘‘কেন্দ্রে অপদার্থ সরকার। তারই পরিণাম এই পরিস্থিতি।’’

আরও পড়ুন: হায়দরাবাদে শ্রীদেবী কাণ্ডের ছায়া! মত্ত অবস্থায় বাথটাবে পড়ে মৃত্যু মহিলার

অন্য দিকে বিজেপির ওড়িশার সাধারণ সম্পাদক পৃথ্বীরাজ হরিচন্দন বলেন, ‘‘এই রকম একটা গুরুত্বপূর্ণ ইস্যুতে অর্থমন্ত্রীর দায়িত্বজ্ঞানহীন মন্তব্য করা উচিত নয়। সবাই জানে, ১৩টি রাজ্য ভ্যাট কমিয়েছে। কিন্তু ওড়িশা সরকার অনড়।’’