লোকসভা ভোটের ফল বেরতে না বেরতেই ফের শুরু হয়ে গেল গোরক্ষকদের তাণ্ডব। গোপাচারের অভিযোগে এক মহিলা-সহ তিন মুসলিমকে গাছে বেঁধে পেটানো হল। মধ্যপ্রদেশের সিওনিতে। পুলিশ এক জনকে পরে গ্রেফতার করেছে। নিগ্রহকারীদের বিরুদ্ধে দায়ের করা হয়েছে মামলাও।

নিগৃহীতরা জানিয়েছেন, তাঁদের শুধু গাছে বেঁধেই পেটানো হয়নি, বাধ্য করানো হয়েছে ‘জয় শ্রী রাম’ ধ্বনি দিতেও। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, একটি গরু নিয়ে অটো রিকশায় চেপে সিওনি দিয়ে যাচ্ছিলেন এক মহিলা-সহ তিন মুসলিম।

কোনও ভাবে সেই খবর পৌঁছে যায় গোরক্ষকদের কানে। সঙ্গে সঙ্গে লাঠি, বাঁশ নিয়ে অটো রিকশাটিকে তাড়া করেন গোরক্ষকরা। ধরেও ফেলেন অটো রিকশার ওই তিন আরোহীকে। তার পর তাঁদের গাড়ি থেকে নামিয়ে একটি গাছের সঙ্গে বেঁধে ফেলা হয়। তার পর এক এক করে ধৃতদের বেধড়ক পেটাতে শুরু করেন গোরক্ষকরা। পরে তাঁদের মাটিতে ফেলেও প্রচণ্ড মারধর করা হয়। ধৃতদের দিয়েই বেধড়ক পেটানো হয় মহিলাকে। রাস্তায় দাঁড়িয়ে তা দেখতে থাকেন পথচারীরা।

আরও পড়ুন- আজই ইস্তফা দিতে পারেন রাহুল, ঠেকাতে নবীন নেতারা দিল্লিতে​

আরও পড়ুন- গোরক্ষার নামে ফের যুবক খুন অলওয়ারে​

তার পরেই ‘জয় শ্রী রাম’ ধ্বনি দিতে শুরু করেন গোরক্ষকরা। ধৃত মুসলিমদেরও বাধ্য করানো হয় ‘জয় শ্রী রাম’ ধ্বনি দিতে।

গোটা ঘটনাটির ভিডিও পরে ভাইরাল হয়ে যায় সোশ্যাল মিডিয়ায়। ওই ঘটনার তীব্র নিন্দা করে এআইএমআইএম দলের প্রধান আসাদুদ্দিন ওয়াইসি তাঁর টুইটে লেখেন, ‘‘মোদীর ভোটাররা এই ভাবে মুসলিমদের উপর অত্যাচার আবার শুরু করে দিল। এটাই নতুন ভারতের ছবি।’’