জেট এয়ারওয়েজের ধাক্কা গিয়ে লাগল এ বার বোয়িং-এর মতো মার্কিন বিমান প্রস্তুতকারক সংস্থার গায়েও।  তুলনায় হাল্কা হলেও, সেই ধাক্কাটা লাগল বোয়িং-এর ইউরোপীয় প্রতিদ্বন্দ্বী বিমান প্রস্তুতকারক সংস্থা এয়ারবাস-এর গায়েও। দুই নামজাদা সংস্থাকেই সইতে হল আর্থিক ক্ষয়ক্ষতির ধকল।

জেটকে যে ২১০টি উড়ান বেচার কথা ছিল বোয়িং-এর, তার সবগুলিই বাতিল হল। তার মধ্যে চলতি অর্থবর্ষের প্রথম ত্রৈমাসিকে জেটকে ১১৯টি বিমান দেওয়ার কথা ছিল বোয়িং-এর। এয়ারবাসের কথা ছিল ৫৮টি বিমান বেচার। তার ফলে, বোয়িং-এর কিছুটা আর্থিক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে জানিয়েছেন সংস্থার ফিনান্স ডিরেক্টর গ্রেগ স্মিথ।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, যে সব কারণে জেট এয়ারওয়েজকে বসিয়ে দিতে হয়েছে তার সবক’টি উড়ান, সেই একই কারণে লোকসানের ধাক্কা সইতে হচ্ছে বোয়িং, এয়ারবাসের মতো বিমান প্রস্তুতকারক সংস্থাগুলিকেও। 

আরও পড়ুন- ফের আকাশ ছোঁবে তাঁদের বিমান, আশায় জেট-কর্মীরা​

আরও পড়ুন- চাই ১০০০ ঘণ্টা ওড়ার অভিজ্ঞতা, তবেই ওড়ানো যাবে ৭৩৭ ম্যাক্স, নির্দেশিকা ডিজিসিএ-র​

বোয়িং, এয়ারবাসের মতো আন্তর্জাতিক বিমান প্রস্তুতকারক সংস্থাগুলি এখন জেট এয়ারওয়েজের মতো বিভিন্ন দেশের বেসরকারি উড়ান সংস্থাগুলিকে বিমান বেচার উপরেই বেশি গুরুত্ব দেয়। জেট এয়ারওয়েজ তার পরিষেবা বন্ধ করে দেওয়ার ফলে কিছুটা হলেও আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়তে হল বোয়িং ও এয়ারবাসের মতো সংস্থাকেও।