বিশ্বের প্রথম তিনশোর মধ্যে কোনও ভারতীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ঠাঁই হল না । বুধবারই প্রকাশ্যে এসেছে ব্রিটেনের সংস্থা টাইমস হায়ার এডুকেশন ২০২০ (টিএইচই)-র সমীক্ষা। তাতেই প্রকাশ্যে এসেছে এই চাঞ্চল্যকর তথ্য।

টাইমস হায়ার এডুকেশনের তরফে জানানো হয়েছে, ২০১২ সালের পর ভারতীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলির র‌্যাঙ্কিং এমন ভাবে নেমে যাওয়া এই প্রথম। সে সময় এক মাত্র আইআইটি বম্বেই ওই তালিকায় স্থান পেয়েছিল। ব্রিটিশ ওই সংস্থাটির শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সংক্রান্ত সমীক্ষা কেন গুরুত্বপূর্ণ? সত্তরের দশক থেকেই বিশ্ব জুড়ে এই ধরনের সমীক্ষা চালিয়ে আসছে ওই সংস্থাটি। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পঠনপাঠনের মান-সহ নানা  বিষয়ের উপরেই সমীক্ষা চালায় ওই সংস্থা। আর সেই সমীক্ষার উপর ভরসা করেই পড়াশোনার জন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বেছে নেন পড়ুয়ারা। এমনকী সেই সমীক্ষার উপর নির্ভর করে শিল্পমহল ও বিভিন্ন দেশের সরকারও। তাই টাইমসের হায়ার এডুকেশনের এই সমীক্ষাকে গুরুত্ব দেন অনেকেই।

ভারতীয় প্রতিষ্ঠানগুলির মান এমন ভাবে নেমে যাওয়া তাৎপর্যপূর্ণ বলেই মনে করছে ওই সংস্থাটি। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলিতে গবেষণা ও শিক্ষাদানের পরিবেশের উন্নতি ও পেটেন্ট থেকে আয়-সহ বিভিন্ন বিষয়ের উপর ভিত্তি করেই সমীক্ষা চালানো হয়েছিল।

আরও পড়ুন: লাদাখে ফের মুখোমুখি দুই দেশ, ভারতীয় সেনার রাস্তা আটকাল চিন, আলোচনায় কমল উত্তেজনা​

গত বার টিএইচই-র তালিকায় ভারতীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলির মধ্যে শীর্ষে অর্থাৎ সারা বিশ্বের মধ্যে ২৫১ থেকে ৩০০ মধ্যে ছিল বেঙ্গালুরুর ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অব সায়েন্স (আইআইএসসি)। কিন্তু, এ বার সেই আইআইএসসি-ও ৩০১ থেকে ৩৫০ স্তরে নেমে গিয়েছে। আর ৩৫১ থেকে ৪০০ ম্বরের মধ্যে রয়েছে আইআইটি রোপার।

ওই সমীক্ষায় বিশ্বের মধ্যে ৪০১ থেকে ৫০০ নম্বরের মধ্যে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের তালিকায় স্থান পেয়েছে মুম্বই, দিল্লি ও খড়গপুর, এই তিন জায়গার আইআইটি। এ বার ভারতের মোট ৫৬ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ওই ব্রিটিশ সংস্থার নজরে ছিল।

এ বার ওই সমীক্ষায় চতুর্থ বারের জন্য প্রথম স্থান ধরে রেখেছে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়। পঞ্চম স্থান থেকে দ্বিতীয় স্থানে উঠে এসেছে ক্যালিফোর্নিয়া ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি। অন্যদিকে, যথাক্রমে এক ধাপ করে নেমে তৃতীয়, চতুর্থ ও পঞ্চম স্থানে রয়েছে কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়, স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় ও ম্যাসাচুসেটস বিশ্ববিদ্যালয়।

আরও পড়ুন: পুজোর মুখে চোখ রাঙাচ্ছে বর্ষা, ঘূর্ণাবর্ত ও মৌসুমী অক্ষরেখার প্রভাবে বৃষ্টি চলবে​