লোকসভা ও বিধানসভা ভোট একসঙ্গে করার পক্ষে নরেন্দ্র মোদী সওয়াল করলেও অধিকাংশ দলই সমর্থন দেয়নি। এ বার মুখ্যমন্ত্রীদের সামনে সব ভোটের জন্য একটিই তালিকা তৈরির পক্ষে সওয়াল করলেন মোদী। তাঁর দাবি, এই অভিন্ন ভোটার তালিকা তৈরির মাধ্যমে একসঙ্গে ভোটের লক্ষ্যে কাজটা অন্তত শুরু করা যেতে পারে।

লোকসভা ও বিধানসভার ভোটার তালিকা নির্বাচন কমিশন করলেও অনেক রাজ্যে পঞ্চায়েত ভোটের জন্য রাজ্য নির্বাচন কমিশনই নিজস্ব তালিকা তৈরি করে। কিন্তু সেখানে নানা রকম কারচুপিরও অভিযোগ ওঠে। সম্প্রতি কংগ্রেস মধ্যপ্রদেশে ৬০ লক্ষ ভুতুড়ে ভোটারের অভিযোগ তুলেছে। নীতি আয়োগের উপাধ্যক্ষ রাজীব কুমার বলেন, ‘‘প্রধানমন্ত্রীর যুক্তি, প্রতি বছরই কোনও না কোনও ভোট চলতে থাকলে উন্নয়ন ব্যাহত হয়। তাই একসঙ্গে ভোট হোক। তার আগে অন্তত অভিন্ন ভোটার তালিকা তৈরির প্রস্তাব দিয়েছেন তিনি।’’ যদিও প্রশ্ন উঠেছে, এ বার কি রাজ্য নির্বাচন কমিশনের ক্ষমতায় হস্তক্ষেপ করতে চাইছে কেন্দ্র?

নীতি আয়োগ নিজেও ২০২৪ থেকে একসঙ্গে লোকসভা ও বিধানসভা ভোট করানোর সুপারিশ করেছে। আইন কমিশনও এ বিষয়ে সব দল ও সব রাজ্যের মতামত জানতে চেয়েছে। উত্তরপ্রদেশ ও পুদুচেরি ছাড়া কেউই অবশ্য আইন কমিশনকে মত জানায়নি। উত্তরপ্রদেশ একসঙ্গে ভোটের প্রস্তাবকে সমর্থন করলেও পুদুচেরি তা খারিজ করে দিয়েছে।