নিয়মিত হাজিরা দিতে হবে আদালতে। নইলে গ্রেফতার করা হতে পারে তাঁকে। মানহানি মামলায় এই শর্তেই শুক্রবার রাহুল গাঁধীর জামিন মঞ্জুর করল আমদাবাদ আদালত। ১৫ হাজার টাকার ব্যক্তিগত বন্ডও দিতে হয়েছে তাঁকে।

রাহুল এবং কংগ্রেস মুখপাত্র রণদীপ সুরজেওয়ালার বিরুদ্ধে ওই মানহানির মামলা দায়ের করেন আমদাবাদ জেলা সমবায় ব্যাঙ্ক এবং তার চেয়ারম্যান অজয় পটেল। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী অমিত শাহ ওই ব্যাঙ্কের অন্যতম ডিরে‌ক্টর। ২০১৬ সালে নোটবন্দির সময়েও তিনি ওই পদে ছিলেন। সেই সময় মাত্র পাঁচ দিনে ওই ব্যাঙ্কে ৭৫০ কোটি টাকার বাতিল নোট পাল্টে দেওয়ার অভিযোগ সামনে এসেছিল।

কংগ্রেস নেতৃত্বই ওই অভিযোগ তুলেছিলেন বলে দাবি অজয় পটেলের। আদালতে মানহানির মামলা দায়ের করেন তিনি। নোটিস পাঠানো হয়েছিল রাহুল গাঁধী এবং রণদীপ সুরজেওয়ালাকে। এ দিন সেই মামলারই শুনানি ছিল। শুক্রবার আমদাবাদ পৌঁছন রাহুল। লোকসভা নির্বাচনে শোচনীয় পরাজয়ের পর এই প্রথম সেখানে পা রাখলেন তিনি। সেখানে দলীয় একটি পথসভায় তিনি অংশ নেবেন বলে প্রথমে শোনা গিয়েছিল। যদিও পরে সেই জল্পনা খারিজ করেন গুজরাত কংগ্রেসের মুখপাত্র মণীশ দোশী। বিজেপির কুকর্মের কথা জনসমক্ষে প্রকাশ করে দিয়েছেন বলে বিজেপি রাহুল গাঁধীর বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

আরও পড়ুন: কেন্দ্রীয় হারেই বাড়তে পারে রাজ্যের কর্মীদের বেতন, কিন্তু প্রাপ্য বকেয়া নিয়ে সংশয়​

আমদাবাদে পা রেখে বিজেপি-আরএসএসকে আক্রমণ করেন রাহুল নিজেও। নিজের টুইটার হ্যান্ডলে লেখেন, ‘আরএসএস-বিজেপির দায়ের করা মানহানি মামলার শুনানিতে হাজিরা দিতে আজ আমদাবাদ এসেছি। জনসমক্ষে এ ভাবে আদর্শগত লড়াই চালিয়ে যাওয়ার সুযোগ করে দেওয়ার জন্য ওদের ধন্যবাদ। সত্যমেব জয়তে।’ এর পর আদালতে পৌঁছন তিনি। সেখানে শর্ত সাপেক্ষে তাঁর জামিনের আবেদন মঞ্জুর হয়ে যায়। আগামী ৭ সেপ্টেম্বর মামলার পরবর্তী শুনানি স্থির হয়েছে।

আরও পড়ুন: ১০০ কিমি গতিতে ছুটবে ড্রোন, হ্যালের হাত ধরে নয়া ‘ব্রহ্মাস্ত্র’ আনছে ভারত​

নির্বাচনী প্রচারে বিতর্কিত মন্তব্যের জন্য গত সপ্তাহেই পটনা দেওয়ানি আদালতে জামিন পান রাহুল। ‘‘সব চোরের পদবী মোদী’’, এমন মন্তব্য করায় তাঁর বিরুদ্ধে মানহানির মামলা ঠুকেছিলেন বিহারের উপ মুখ্যমন্ত্রী সুশীলকুমার মোদী। 

এবার শুধু খবর পড়া নয়, খবর দেখাও। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের YouTube Channel - এ।