বাবর কোনও মন্দির ভেঙে মসজিদ তৈরি করাননি বলে আজ মুসলিম পক্ষ সুপ্রিম কোর্টে দাবি করল।

বাবরি মসজিদ-রাম জন্মভূমির বিতর্কিত জমি মামলায় আজ সুপ্রিম কোর্ট বলেছে, আদালতের সামনে এখন তিনটি প্রশ্ন রয়েছে। এক, বাবর মন্দির ভেঙে মসজিদ তৈরি করিয়েছিলেন কি না। দুই, আগে যেখানে মন্দির ছিল, বাবর সেখানে মসজিদ তৈরি করিয়েছিলেন কি না। তিন, বাবর ফাঁকা জমিতে মসজিদ তৈরি করিয়েছিলেন কি না।

সাংবিধানিক বেঞ্চের অন্যতম বিচারপতি শরদ এ বোবদের এই কথা শুনে মুসলিম পক্ষের আইনজীবী জাফরায়েব জিলানি বলেন, ‘‘আমাদের যুক্তি, কোনও মন্দির সেখানে যদি কখনও থেকেও থাকে, তা বহু আগেই উধাও হয়ে গিয়েছিল। ফাঁকা জমিতে মসজিদ তৈরি হয়েছিল।’’ বাবরি মসজিদ অ্যাকশন কমিটির আহ্বায়ক জিলানি আজ আইনজীবী হিসেবে যুক্তি দেন, যেখানে বাবরি মসজিদ ছিল, সেই জায়গাটিকে রামের জন্মস্থান ধরে নিয়ে হিন্দুরা কখনও পুজো করেনি। হিন্দুরা রাম চবুতরাকে রামের জন্মস্থান ধরে নিয়ে পুজো করত। মসজিদ থেকে রাম চবুতরার দূরত্ব ৫০ থেকে ৬০ ফুট।

তা শুনে বিচারপতিরা প্রশ্ন তোলেন, ‘‘আপনি কি মেনে নিচ্ছেন রাম চবুতরা রামের জন্মভূমি?’’ জিলানি বলেন, ‘‘এর আগে তিনটি আদালত এ কথা বলেছে বলে মেনে নিচ্ছি।’’ বিচারপতি প্রশ্ন করেন, ‘‘তা হলে অযোধ্যায় রামের জন্ম, তাতে আপত্তি তুলছেন না?’’ জিলানি বলেন, ‘‘আমাদের তাতে আপত্তি নেই। মসজিদের মধ্যে জন্মস্থান ছিল— এ কথায় আমাদের আপত্তি। বাল্মীকির রামায়ণ ও রামচরিত মানসেও নির্দিষ্ট ভাবে বলা নেই, অযোধ্যায় কোথায় রামের জন্ম হয়েছিল।’’ বিচারপতি ধনঞ্জয় চন্দ্রচূড় বলেন, ‘‘এ যুক্তি মেনে নেওয়ার অর্থ হল, হিন্দুরা অযোধ্যার নির্দিষ্ট কোনও জায়গায় রামের জন্ম বলে বিশ্বাস করতে পারেন না।’’

বিচারপতি বোবদে প্রশ্ন তুলেছেন, ‘‘আইন-ই-আকবরিতে খুঁটিনাটি নানা তথ্য রয়েছে। সেখানে বাবরি মসজিদের কথা নেই কেন?’’ জিলানি বলেন, ‘‘শুধু গুরুত্বপূর্ণ তথ্যই বইয়ে লেখা হয়েছিল।’’ বিচারপতি প্রশ্ন করেন, ‘‘মোগল সম্রাটের নির্দেশে তৈরি মসজিদ গুরুত্বপূর্ণ নয়?’’ জিলানি উত্তরে বলেন, ‘‘হতে পারে, এমন অনেক মসজিদই তৈরি হয়েছিল। বিবাদ না হলে এই মসজিদটিরও আলাদা গুরুত্ব ছিল না।’’