রবিবার সন্ধ্যাবেলা। চেন্নাইয়ের সমুদ্রে সৈকতে যারা গিয়েছিলেন, তাঁরা দেখলেন নীল রঙের ঝলমলে ঢেউ এসে আছড়ে পড়ছে সৈকতে। আর তা দেখে তাঁদের বিস্ময়ের ঘোর কাটতেই চাইছে না। কারণ সে দিন সমুদ্রের দিকে চেয়ে তাঁরা যা দেখেছেন তা বোধহয় আগে কোনওদিনই দেখেননি। সেই বিরল ঘটনার সৌন্দর্যই এখন গেঁথে রয়েছে তাঁদের মনে। 

তবে শুধু চেন্নাইয়ের সৈকতে নয়। রবিবার সন্ধ্যায় নীল রঙের ঢেউ আছড়ে পড়েছিল তিরুভানমিয়ু, পালাবক্কম ও ইনজামবক্কম সৈকতেও। আর নীল ঢেউ নিয়ে আগ্রহ তুঙ্গে উঠেছে বিজ্ঞানী মহলেও।

এই ধরনের নীল ঢেউকে বিজ্ঞানের পরিভাষায় ‘বায়োলুমিনিসেন্স’ বলে। সমুদ্রে বায়োলুমিনিসেন্ট ফাইটোপ্ল্যাঙ্কটন বা জলজ উদ্ভিদ থাকে। যা ‘সি স্পার্কল’ নামেও পরিচিত। সেই শেওলার জন্যই এই ধরনের নীল ঢেউ দেখা যায় বলে জানিয়েছেন বিজ্ঞানীরা। ঢেউয়ের সঙ্গে ভেসে আসা ফাইটোপ্ল্যাঙ্কটন নিজেদের রাসায়নিক শক্তি বৈদ্যুতিক শক্তিতে রূপান্তরিত করে। শক্তির এই রূপান্তরের জন্যই ঢেউয়ের অগ্রভাগকে নীল দেখায়।

তবে এই ঘটনা খুব সচারচার দেখা যায় না। গত বছর মলদ্বীপে ভারত মহাসাগরে এই ধরনের ঢেউয়ের দেখা মিলেছিল। তবে প্রশান্ত মহাসাগরে ক্যালিফোর্নিয়ার সৈকতে এই ধরনের নীল ঢেউয়ের দেখা মেলে। 

বিজ্ঞানীরা মনে করছেন, এই ধরনের ঘটনা সমুদ্রের ইকোসিস্টেম বা বাস্তুতন্ত্রে পরিবর্তন আনতে পারে। তবে তামিলনাড়ুর সমুদ্রে সৈকতে এই ঘটনার প্রভাব কী হবে? সে দিকে নজর রাখছেন গবেষকরা। 

 

আরও পড়ুন: খরস্রোতা নদী থেকে আটকে পড়া ব্যক্তিদের উদ্ধার করল বায়ুসেনা! দেখুন রুদ্ধশ্বাস ভিডিয়ো

আরও পড়ুন: মত্ত চালক, ফুটপাথে উঠে এসে পর পর ধাক্কা এসইউভির, দেখুন ভিডিয়ো