অসমের নাগরিকপঞ্জী পুনরায় খতিয়ে দেখার জন্য কেন্দ্রের আবেদন খারিজ করে দিল সুপ্রিম কোর্ট। শীর্ষ আদালতের তরফে স্পষ্ট জানিয়ে দেওয়া হল, আধার কার্ডের মতো নাগরিকপঞ্জির তথ্যও সুরক্ষিত রাখতে হবে।

এ দিন প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ এবং বিচারপতি আরএফ নরিম্যানের বেঞ্চ জানিয়ে দেয়, আগামী ৩১ অগস্ট নাগরিকপঞ্জী থেকে বাদ যাওয়া নামের তালিকা অনলাইনে প্রকাশিত হবে। অন্য দিকে সংশ্লিষ্ট জেলা অফিসগুলিতে নাগরিকপঞ্জীতে নথিবদ্ধ নামের তালিকার হার্ড কপি পাঠাতে হবে।


আরও পড়ুন: প্রথম ভারতীয় শেফ হিসাবে ফ্রান্সের সম্মান পেলেন বাংলার প্রিয়ম
আরও পড়ুন: ‘বিমান পাঠাতে হবে না, কাশ্মীরে যাচ্ছি, যাবেন অন্য বিরোধীরাও’, রাজ্যপালের আমন্ত্রণের জবাবে রাহুল

শীর্ষ আদালত স্পষ্টই জানাচ্ছে, নাগরিকত্ব আইনের ৩ এবং ৬-এ ধারায় নির্ধারিত নিয়মাবলী অনুযায়ী এনআরসি তালিকা প্রকাশ করতে হবে। এই বিধি অনুযায়ী অতীতে যাঁদের নাম নাগরিকপঞ্জীতে উঠেছে, তাঁদের নামের তালিকা পুনরায় যাচাই করা যাবে না। পাশাপাশি ২০০৪ সালের ৩ ডিসেম্বরের পরে জন্ম— এমন কারও বাবা বা মা যদি বিদেশি বলে গণ্য হন, তার নামও তালিকা থেকে বাদ যাবে। একই সঙ্গে সরকারকে এনআরসি-র তথ্য সুরক্ষিত রাখার জন্যে বিধি প্রণয়ন করতেও বলা হচ্ছে। আদালতের নির্দেশ অনুযায়ী— কেন্দ্র, অসম সরকার বা এনআরসি-র দায়িত্বে থাকা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষও এনআরসি তথ্য অবাধ ব্যবহারের স্বাধীনতা পাবে না।

কেন্দ্র এবং অসম সরকারের তরফে সুপ্রিম কোর্টে আবেদন করা হয়েছিল পুরনো ভুলচুক সংশোধন করতে অন্তত ২০ শতাংশ নমুনা পুনর্বার খতিয়ে দেখতে দেওয়া হোক। উল্টো দিকে এনআরসি কর্তৃপক্ষের তরফ থেকে সুপ্রিম কোর্টে বলা হয়, ৭২ লক্ষ মানুষের নাম এমনিতেই পুনর্যাচাই করা হয়েছে। এখন তথ্য যাচাই আর জরুরি নয়। তার পরেই এমন সিদ্ধান্ত সুপ্রিম কোর্টের।