উত্তরপ্রদেশ বার কাউন্সিলের নবনির্বাচিত চেয়ারপার্সন দরবেশ সিংহের খুনের ঘটনা নাড়িয়ে দিয়েছে যোগী আদিত্যনাথ প্রশাসনকে। মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, হাইকোর্ট এবং জেলা আদালত চত্বরে পর্যাপ্ত নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হবে। নিহত দরবেশের শেষকৃত্য আজ সম্পন্ন হয়েছে।

আগরার এক দায়রা আদালতে দরবেশকে কোর্ট চত্বরেই গুলি করে হত্যা করে আর এক আইনজীবী মণীশ শর্মা। ওই ঘটনার প্রেক্ষিতে গত কাল রাতে একটি যোগী আদিত্যনাথ একটি বিবৃতি জারি করেছেন। তিনি বলেছেন, ‘‘বার কাউন্সিল, বার অ্যাসোসিয়েশন এবং বিচার বিভাগকে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা দিতে সরকার বদ্ধপরিকর। এ নিয়ে মুখ্যসচিব এবং পুলিশের ডিজিকে স্পষ্ট নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।’’ আইনজীবী খুনের ঘটনায় শোকপ্রকাশ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। দরবেশের পরিজনদের সমবেদনাও জানিয়েছেন তিনি।

নিহত দরবেশের আদিবাড়ি এটার চন্দপুর গ্রামে। আজ সেখানে তাঁর শেষকৃত্য সম্পন্ন হয়েছে। হাজির ছিলেন রাজ্যের আইনমন্ত্রী ব্রিজেশ পাঠক এবং বহু আইনজীবী।  

উত্তরপ্রদেশ বার কাউন্সিলের প্রথম মহিলা চেয়ারপার্সন হিসেবে নির্বাচনের পরে গত কালই প্রথম আদালতে গিয়েছিলেন দরবেশ। তাঁর সম্মানে সেখানে একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছিল। আচমকা দর্শকাসন থেকে উঠে তাঁকে লক্ষ্য করে পরপর তিনটি গুলি চালায় মণীশ। এর পরে নিজেকে গুলি করে আত্মহত্যার চেষ্টা করে সে।

আইনজীবী খুনের ঘটনাকে অস্ত্র করে বিজেপিকে নিশানা করতে ছাড়েননি কংগ্রেস। দলের মুখপাত্র রণদীপ সিংহ সুরজেওয়ালা টুইটারে লেখেন, ‘‘অজয় সিংহ বিস্ত (আদিত্যনাথ) সরকারের নাকের নীচে বার কাউন্সিলের প্রথম মহিলা চেয়ারপার্সনকে গুলি করে খুন করা হল। জঙ্গলের রাজত্ব এবং উত্তরপ্রদেশে বিজেপি শাসনের মধ্যে খুব একটা ফারাক নেই।’’

এবার শুধু খবর পড়া নয়, খবর দেখাও। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের YouTube Channel - এ।