নাটকীয় বিশ্বজয়। ২০১৯ সালে অনূর্ধ্ব-১৭ বিশ্বকাপের মূল পর্বে যোগ্যতা অর্জনে ব্যর্থ ব্রাজিলই শেষ পর্যন্ত খেতাব জিতল!

দু’বছর আগে ভারতে অনূর্ধ্ব-১৭ বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে ইংল্যান্ডের কাছে হেরে স্বপ্নভঙ্গ হয়েছিল ব্রাজিলের। এ বছর পরিস্থিতি আরও জটিল হয়ে গিয়েছিল। কারণ, দক্ষিণ আমেরিকা থেকে মূল পর্বে খেলার যোগ্যতাই অর্জন করতে পারেনি পেলে, জ়িকো, রোনাল্ডো, নেমারের উত্তরসূরিরা। 

তা হলে কী ভাবে খেলল ব্রাজিল? এ বছর অনূর্ধ্ব-১৭ বিশ্বকাপ আয়োজনের দায়িত্ব ছিল পেরুর। কিন্তু শেষ মুহূর্তে তারা সরে দাঁড়ানোয় এগিয়ে আসে ব্রাজিল। আয়োজক দেশ হিসেবে মূল পর্বে খেলার দরজা খুলে যায় তাদের সামনে। রবিবার রাতে ব্রাসিলিয়ায় রুদ্ধশ্বাস ম্যাচে মেক্সিকোকে হারিয়ে অনূর্ধ্ব-১৭ বিশ্বকাপে চ্যাম্পিয়ন হল ব্রাজিল। এখানেই শেষ নয়। প্রতিযোগিতায় অপরাজিত থেকেই চতুর্থবারের জন্য খেতাব ঘরে তুলল তারা।

ব্রাজিলের বিরুদ্ধে ম্যাচের ৬৬ মিনিটে গোল করে মেক্সিকোকে এগিয়ে দেয় ব্রায়ান গঞ্জালেস। ম্যাচ শেষ হওয়ার মিনিট ছ’য়েক আগে পেনাল্টি থেকে সমতা ফেরায় ব্রাজিলের কাইয়ো জর্জ। সংযুক্ত সময়ে জয়সূচক গোল করে লাজ়ারো। 

তবে দুরন্ত জয়ের রাতে ব্রাজিলের অস্বস্তি বাড়িয়েছেন মেক্সিকো কোচ মার্কো রুইস। তাঁর অভিযোগ, ব্রাজিলকে সাহায্য করেছেন রেফারি। বিতর্কের সূত্রপাত পেনাল্টির দেওয়াকে কেন্দ্র করে। রেফারি প্রথমে পেনাল্টি দেননি। কিন্তু পরে ভিডিয়ো অ্যাসিট্যান্ট রেফারি (ভিএআর) প্রযুক্তির সাহায্য নিয়ে সিদ্ধান্ত বদলান। যা থেকে গোল করে ব্রাজিলকে ম্যাচে ফেরায় কাইয়ো। ম্যাচের পরে ক্ষুব্ধ মেক্সিকো কোচ বলেছেন, ‘‘পেনাল্টির সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষেত্রে পক্ষপাতমূলক আচরণ করা হয়েছে।’’

যুব দলের বিশ্বসেরা হওয়ার পরেই আলোচনার কেন্দ্রে গ্যাব্রিয়েল জেসুসেরা। মঙ্গলবার ফিফা ফ্রেন্ডলিতে ব্রাজিলের প্রতিপক্ষ দক্ষিণ কোরিয়া। আগের ম্যাচের আর্জেন্টিনার বিরুদ্ধে হারের ধাক্কা ভুলে পাঁচ বারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নেরা ঘুরে দাঁড়াতে পারে কি না, সেটাই এখন দেখার।