পরের মরসুমে ইস্টবেঙ্গল এবং মোহনবাগানের ইন্ডিয়ান সুপার লিগে খেলার রাস্তা প্রায় পরিষ্কার হয়ে গেল।

সোমবার কুয়ালা লামপুরে  এএফসি-র সভায় সিদ্ধান্ত নেওয়া হল, ২০২০-২১ মরসুমে আইএসএল হবে ১২ দলের। দুটি দলকে নেওয়া হবে আই লিগ থেকে। এএফসি-র সভার পরে ভারতীয় ফুটবলের যে রোডম্যাপ ঘোষণা করা হয়েছে তাতে কোথাও অবশ্য কলকাতার দুই প্রধানের নাম নেই। তবে কুয়ালা লামপুরে ফোন করে জানা গেল, ফেডারেশন সচিব কুশল দাশ সভায় বলেছেন, ‘‘যে ক্লাবগুলির ঐতিহ্যের সঙ্গে প্রচুর সদস্য-সমর্থক আছেন, তাদেরই নেওয়া হবে দেশের এক নম্বর লিগে।’’ জানা গিয়েছে, আইএসএলে পরের মরসুমে কলকাতার দুই দলকে নেওয়া হলেও তাদের ফ্র্যাঞ্চাইজি ফি দিতে হবে অন্য দলগুলির মতোই। পরিস্থিতি যা, তাতে চাপের মুখে দুই ক্লাবই মত পরিবর্তন করবে। এবং সে জন্য তাদের দরকার ভাল স্পনসর। না হলে দু’প্রধান কীভাবে ৩০-৩৫ কোটি টাকা তুলবে তা নিয়ে সন্দেহ আছে।  তবে ২০২২-২৩ মরসুম থেকে ফ্র্যাঞ্চাইজি ফি (প্রায় কুড়ি কোটি টাকা) দিতে হবে না কোনও ক্লাবকেই।

ঠিক হয়েছে তিন বছর আইএসএল ও আই লিগ পাশাপাশি চলবে। তবে এক নম্বর লিগ আইএসএল। সেখানে চ্যাম্পিয়ন দল খেলবে এএফসি চ্যাম্পিয়ন্স লিগ। ২০২২-২৩ মরসুম থেকে শুরু হবে ওঠা-নামা। আই লিগ হবে দ্বিতীয় ডিভিশনের। সেখানে চ্যাম্পিয়ন দল খেলবে আইএসএলে। আইএসএল থেকে নামবে একটি দল। সভায় যাওয়ার সময় পাননি ফেডারেশন প্রেসিডেন্ট প্রফুল্ল পটেল। তিনি মহারাষ্ট্রের নির্বাচনী কাজে ব্যস্ত। তবে তাঁর তৈরি করে দেওয়া রোড ম্যাপেই সীলমোহর দিয়েছে এএফসি। এবং সেটা সব ক্লাবকে ডেকেই।