• নিজস্ব প্রতিবেদন

হেরে অসুস্থ বোধ করছিলেন ল্যাঙ্গার, স্মিথদের পাশে স্টিভ

Steve Waugh
প্রত্যাবর্তন: মঙ্গলবার ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে ওয়ার্নারের সঙ্গে স্টিভ। এএফপি

Advertisement

বেন স্টোকসের বিধ্বংসী ইনিংসের সামনে বিপর্যস্ত অস্ট্রেলিয়ার মনোবল ফেরাতে আসরে নামলেন তিনি। অস্ট্রেলিয়ার বিশ্বজয়ী প্রাক্তন অধিনায়ক স্টিভ ওয়। 

গত সপ্তাহে হেডিংলে টেস্টে জিতলেই এ বারের মতো অ্যাশেজ থেকে যেত অস্ট্রেলিয়ার দখলে। কিন্তু শেষ উইকেটে ৭৬ রান যোগ করে হারা ম্যাচ ইংল্যান্ডকে জিতিয়ে দেন স্টোকস। এই হার এতটাই ধাক্কা দিয়েছে অস্ট্রেলিয়াকে যে, কোচ জাস্টিন ল্যাঙ্গার পর্যন্ত বলে ফেলেছেন, ‘‘ওই ভাবে হারের পরে শারীরিক ভাবে অসুস্থ লাগছিল। হোটেলের ঘরে ফিরে বুঝতে পারছিলাম না, কাঁদতে কাঁদতে চোখ লাল করে ফেলব না কি সব জিনিসপত্র ভাঙতে শুরু করব।’’ 

সিরিজ ১-১ অবস্থায় পরের লড়াই শুরু হচ্ছে বুধবার থেকে ম্যাঞ্চেস্টারে। তার আগে সোমবার অস্ট্রেলিয়া শিবিরে আবার যোগ দিলেন স্টিভ ওয়। সিরিজের প্রথম দুই টেস্টে দলের সঙ্গে মেন্টর হিসেবে কাজ করেছেন স্টিভ। কিন্তু তৃতীয় টেস্টে ছিলেন না তিনি। রবিবার রাতে ম্যাঞ্চেস্টারে চলে এসেছেন স্টিভ। এ দিন ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে ডেভিড ওয়ার্নারদের সঙ্গে মাঠেও নেমে পড়েন তিনি। 

ল্যাঙ্গার বলছেন, ‘‘আমরা স্টিভকে বলেছিলাম তৃতীয় টেস্টের জন্য থেকে যেতে। কিন্তু বিশেষ একটা অনুষ্ঠানে যোগ দিতে ফিরে যেতে হয়েছিল ওকে। আবার ওকে পাওয়া গেল।’’ স্টিভকে নিয়ে ল্যাঙ্গার আরও বলেন, ‘‘অবসর নেওয়ার পরে দীর্ঘদিন ক্রিকেটের বাইরে ছিল স্টিভ। কিন্তু খেলাটার প্রতি ওর আবেগ, ভালবাসা দেখার মতো। স্টিভকে আবার পাওয়াটা দারুণ ব্যাপার।’’ 

বিশ্বকাপের সময় অস্ট্রেলিয়া দলের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন রিকি পন্টিং। অ্যাশেজে সেই জায়গাটা নেন স্টিভ। এই দুই কিংবদন্তি দলে থাকায় কী লাভ হয়েছে? ল্যাঙ্গারের জবাব, ‘‘পান্টার (পন্টিং) বা স্টিভের মতো কিংবদন্তিকে পেলে এমনিতেই ড্রেসিংরুমের চেহারা বদলে যায়। ওরা যে শুধু ওদের উপস্থিতি দিয়েই দলকে অনুপ্রাণিত করে, তা নয়। ওরা দারুণ মনোবিদও। ওরা এই পরিস্থিতিতে আগেও পড়েছে। তাই জানে, এই অবস্থায় কী করা উচিত।’’ এর আগে অস্ট্রেলিয়ার অলিম্পিক্স দলের সঙ্গেও মেন্টর হিসেবেও যুক্ত ছিলেন স্টিভ।

এই দলে তাঁর ভুমিকাটা ঠিক কী? লর্ডস টেস্টের পরে এই প্রশ্নের জবাবে স্টিভ বলেছিলেন, ‘‘আমার কাজটা হল নেটে, হোটেলে বা ক্রিকেটারদের সঙ্গে হাঁটতে হাঁটতে তাদের সাহায্য করা। নতুন দৃষ্টিভঙ্গিতে সব কিছু দেখা।’’ 

চতুর্থ টেস্টে তাঁরা কী দল নামাবেন, তা নিয়ে ল্যাঙ্গার খোলাখুলি কিছু না বললেও এটা স্পষ্ট, স্টিভ স্মিথ ফিরছেন। জোফ্রা আর্চারের বাউন্সারে আহত হওয়ার পরে তৃতীয় টেস্টে খেলতে পারেননি তিনি। কিন্তু স্মিথ এখন সুস্থ হয়ে উঠেছেন। সোমবার সাংবাদিকদের ল্যাঙ্গার বলেন, ‘‘ক্রিকেটারেরাও এখনও জানে না, কারা খেলবে। খুব সম্ভবত আজ রাতে খাওয়া দাওয়ার পরে ওদের বলা হবে।’’ এই সিরিজে এখনও সুযোগ পাননি বাঁ-হাতি পেসার মিচেল স্টার্ক। অ্যাশেজের চূড়ান্ত পর্বে দলে ফিরতে চাইবেন তিনি। সাংবাদিকদের ল্যাঙ্গার এও বলেছেন, ‘‘এগারো জন ঠিক না হলেও বারো জন কারা, তা নিয়ে আমাদের পরিষ্কার ধারণা আছে। তবে ক্রিকেটারদের সেটা না জানানোর আগে সাংবাদিকদের বলা ঠিক হবে না।’’ তবে কোচ এটুকু বলেছেন, ‘‘দ্বাদশ ব্যক্তি এক জন বোলারই হবে। ব্যাটিং লাইন নিয়ে আমরা চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছি।’’ ইংল্যান্ড আবার ঠিক করেছে, ওপেনার জেসন রয়কে মিডল অর্ডারে নামিয়ে আনবে। ওপেন করবেন জো ডেনলি।

Advertisement

আরও পড়ুন
বাছাই খবর
আরও পড়ুন