টোকিয়ো অলিম্পিক্সের যোগ্যতা অর্জনের টুর্নামেন্টে অংশ নিতে মেরি কমের সঙ্গে ট্রায়ালে লড়তে চেয়েছেন জুনিয়র বিশ্বচ্যাম্পিয়ন নিখাত জ়ারিন। স্বপ্ন সত্যি করতে চিঠি লিখেছেন কেন্দ্রীয় ক্রীড়ামন্ত্রী কিরেন রিজিজুকেও। সদ্য শেষ হওয়া বিশ্বচ্যাম্পিয়নশিপে অংশ নেওয়ার জন্য অতীতে একই দাবি পেশ করেছিলেন জ়ারিন। তখন জাতীয় বক্সিং সংস্থা সেই দাবি খারিজ করে দেয়। তাঁর নতুন দাবির পরিপ্রেক্ষিতে শুক্রবার ক্রীড়ামন্ত্রী নিজের প্রতিক্রিয়ায় পরিষ্কার বলে দিয়েছেন, দল নির্বাচন সংক্রান্ত কোনও বিষয়ে হস্তক্ষেপ করবেন না।

জ়ারিনের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ক্রীড়ামন্ত্রী টুইটারে লিখেছেন, ‘‘আমি অবশ্যই জাতীয় সংস্থাকে অনুরোধ করব যে দেশ, খেলাধুলো ও খেলোয়াড়ের স্বার্থে ঠিক সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য। যদিও অলিম্পিক্স সনদ অনুযায়ী মন্ত্রী কখনও স্বয়ংশাসিত ফেডারেশনের দল নির্বাচন সংক্রান্ত বিষয়ে জড়াতে পারেন না।’’

পরের বছর চিনে অলিম্পিক্স যোগ্যতা অর্জনের টুর্নামেন্ট হবে। জাতীয় বক্সিং সংস্থা ইতিমধ্যেই বুঝিয়ে দিয়েছে, বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে মেরির ব্রোঞ্জ জয়ে তারা সন্তুষ্ট। তাঁকেই চিনে পাঠানো হবে। জ়ারিনের সঙ্গে মেরির ট্রায়াল ম্যাচের সম্ভাবনা কার্যত নেই। এমনিতে ফেডারেশনের ঘোষিত সিদ্ধান্ত ছিল, বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে সোনা বা রুপো পাওয়া বক্সারদের একমাত্র চিনে পাঠানো হবে। কিন্তু মেরির ক্ষেত্রে সম্ভবত তার ব্যতিক্রম হতে যাচ্ছে। ব্রোঞ্জ জিতেও হয়তো চিনে তিনি লড়ার সুযোগ পাবেন। 

জ়ারিনের ঠিক এই জায়গাতেই আপত্তি। তাঁর বক্তব্য, পৃথিবীর সব দেশে অলিম্পিক্সের যোগ্যতা অর্জনের টুর্নামেন্টে অংশ নিতে নিজের দেশে ট্রায়াল দিতে হয়। এমনকি অলিম্পিক্সে ২৩টি সোনার মালিক মাইকেল ফেলপ‌্সও ট্রায়াল দিতেন। জ়ারিনের দাবির সমর্থনে টুইট করেন অলিম্পিক্সে সোনাজয়ী ভারতীয় শুটার অভিনব বিন্দ্রাও। তাঁর বক্তব্য, মেরি অতীতে যা-ই করুন না কেন, যোগ্যতা অর্জনের একমাত্র মাপকাঠি হওয়া উচিত এখনকার পারফরম্যান্স।

রিজিজু বিতর্কিত বিষয়টি থেকে নিজেকে সরিয়ে নিলেও জ়ারিন কিন্তু তাঁর বক্তব্যে খুশি। তিনি টুইট করেছেন, ‘‘আমার আবেদনের ভিত্তিতে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য আপনাকে অনেক ধন্যবাদ। আশা করব একজন খেলোয়াড়ের কঠোর পরিশ্রম এবং ত্যাগের কথা মনে রেখে কোনও পক্ষপাতিত্ব বা স্বজনপোষণ করা হবে না।’’

জাতীয় বক্সিং সংস্থা সম্প্রতি বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় বক্সারদের পারফরম্যান্সের ভিত্তিতে পয়েন্ট পদ্ধতি চালু করেছে। দল নির্বাচন সাধারণত হয় সেখানে পাওয়া পয়েন্টের যোগফল দেখে। একটা সময় পর্যন্ত ট্রায়াল লড়াই হত। এখন সেটা একমাত্র হতে পারে দক্ষতায় খুব কাছাকাছি থাকা বক্সারদের মধ্যে। তবে সে ক্ষেত্রে কোচ ও নির্বাচকদের মতামতের উপর তা নির্ভর করে। এখন দেখার, জ়ারিনের ক্ষেত্রে সেই নিয়ম প্রয়োগ করা হয় কি না। মেরি কম নিজে অবশ্য এই ধরনের বিতর্ক থেকে নিজেকে দূরে রেখেছেন। তাঁর বক্তব্য, বক্সিং ফেডারেশন যা সিদ্ধান্ত নেবে, তা তিনি মেনে চলতে বাধ্য। তবে ট্রায়ালকেও ভয় পান না।