টানা ছ’বার বর্ষসেরা ফুটবলারের পুরস্কার পেয়ে সুনীল ছেত্রী বৃহস্পতিবার বলে দিলেন, ‘‘অনেকের কাছ থেকেই অনেক কিছু শিখেছি। কিন্তু আমার ফুটবলার জীবনে সব চেয়ে বেশি অনুপ্রেরণা পেয়েছি একজনের কাছ থেকেই। তিনি হলেন, এমসি মেরি কম।’’

ফেডারেশনের বিচারে বর্ষসেরা ফুটবলার হওয়ার পর এক সাক্ষাৎকারে ৩৪ বছর বয়সী ভারত অধিনায়ক কেন ভারতের সেরা বক্সারকে প্রেরণা বলে মনে করেন, সেই ব্যাখ্যাও দিয়েছেন। সুনীল বলেছেন, ‘‘মেরি কম যা করেছেন তা অবিশ্বাস্য। তিনি দুই ছেলে-মেয়ের মা হয়েও বক্সিংয়ে ছ’বারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন। তৃতীয় সন্তানের জন্মের পরেও তিনি পদক জিতছেন। এ রকমই তাঁর অধ্যবসায়। এশিয়াড, এশিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপ অথবা কমনওয়েলথ চ্যাম্পিয়নশিপ মিলিয়ে ১৪ টি পদক জিতেছেন। মেরির মতো অনুপ্রেরণা জোগানোর মাইলফলক আর কার আছে। আমি ওঁর সব চেয়ে বড় ভক্ত।’’

চতুর্দলীয় আন্তর্জাতিক ফুটবল কাপ খেলতে সুনীল এখন রয়েছেন আমদাবাদে। শনিবার তাঁদের দ্বিতীয় ম্যাচ উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে। প্রথম ম্যাচে তাজিকিস্তানের কাছে ভারত হারলেও সুনীল করেন দু’গোল। জাতীয় দলের হয়ে তাঁর গোলের সংখ্যা এখন ৭০। দেশের এক নম্বর ফুটবল তারকার কাছে মেরি কম ছাড়া বিশ্বের আর কেউ কি এমন রয়েছেন, যাঁরা বিভিন্ন সময়ে তাঁকে অনুপ্রেরণা দিয়েছেন? সুনীলের জবাব, ‘‘ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো এবং লিয়োনেল মেসি। কারণ দু’জনেই গত দশ-এগারো বছর ধরে বিশ্ব ফুটবলে দাপিয়ে খেলছেন। দুই বা তিনটি ম্যাচ না খেললেই দেখবেন ওঁদের নিয়ে সমালোচনা হয়। আমি যদি ক্লান্তির কারণে দু’তিন ম্যাচ গোল না পাই, তখনই নানা কথা শুরু হয়। তখন মেসি বা রোনাল্ডোর কথা মনে পড়ে।’’

৩৪ বছর বয়েসে জাতীয় দলের জার্সিতে সব চেয়ে বেশি গোল করার অথবা বেশি ম্যাচ খেলার রহস্য কি? সুনীল বলেছেন, ‘‘শৃঙ্খলা এবং নিয়মানুবর্তিতা। পর্যাপ্ত বিশ্রামের সঙ্গে কী ধরনের খাবার খাব, সেটা নিয়ে সচেতন থাকি।’’ পাশাপাশি তাঁর মন্তব্য, ‘‘পুরষ্কার পেলে ভাল লাগে। মনে হয় দেশের জন্য আরও কিছু করি।’’