বিশ্বকাপের আগেই হৃদয়বিদারক খবর পেলেন পাকিস্তানের ব্যাটসম্যান আসিফ আলি। অসুস্থ মেয়েকে যুক্তরাষ্ট্রের এক হাসপাতালে ভর্তি করে পাকিস্তানের হয়ে খেলার জন্য ইংল্যান্ডে চলে এসেছিলেন আসিফ। সিরিজ চলাকালীনই তিনি পেলেন দুঃসংবাদ। রবিবার জীবনযুদ্ধে হেরে গেল আসিফের দু’ বছরের মেয়ে ফতিমা নূর। 

পাকিস্তান সুপার লিগে খেলার সময়েই আসিফ জানতে পারেন, মারণ ক্যানসার থাবা বসিয়েছে মেয়ের শরীরে। চিকিৎসার জন্য যুক্তরাষ্ট্রে নেওয়া হয়েছিল তাকে। সেখানেই লড়াই শেষ হয়ে গেল ফতিমার। খবর শুনে ইংল্যান্ড থেকে যুক্তরাষ্ট্রে উড়ে গিয়েছেন আসিফ।

আসন্ন বিশ্বকাপের জন্য দল ঘোষণা করেছে পাকিস্তান। প্রাথমিক স্কোয়াডে জায়গা হয়নি আসিফের। বিশ্বকাপের আগে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজকে বেছে নিয়েছিলেন নিজেকে প্রমাণ করার জন্য। অন্য সময় হলে হয়তো নিজেকে সিরিজ থেকে সরিয়েই নিতেন আসিফ। কিন্তু, সময়ের বিচারে এরকম সিদ্ধান্ত নেওয়া কঠিনই ছিল পাক-ক্রিকেটারের পক্ষে।

আরও খবর: ভারত থেকে পাকিস্তান, এই এক্স ফ্যাক্টররা বদলে দিতে পারেন দলের বিশ্বকাপ ভাগ্য

আরও খবর: বিশ্বকাপে বাকিদের থেকে এগিয়ে ভারত, কেন বললেন দ্রাবিড়?

সিরিজে পাকিস্তানকে দুরমুশ করেছে ইংল্যান্ড।  সিরিজের ফলাফল ইংল্যান্ডের অনুকূলে ৪-০। পাকিস্তান হেরে গেলেও আসিফ নিজের সেরাটাই দেওয়ার চেষ্টা করেছেন। সিরিজের তৃতীয় ওয়ানডে ম্যাচে কেরিয়ারের সর্বোচ্চ ৫২ রান করেছিলেন আসিফ। মেয়ের চলে যাওয়ার খবর বড় ধাক্কা দিয়ে গেল পাক-তারকাকে। আসিফের মেয়ের চলে যাওয়ার খবরে শোকপ্রকাশ করেছে ইসলামাবাদ ইউনাইটেড। ইসলামাবাদকে কোচিং করিয়েছেন অস্ট্রেলিয়ার প্রাক্তন ক্রিকেটার ডিন জোন্স। তিনিও শোকজ্ঞাপন করেছেন।