Advertisement
০২ মার্চ ২০২৪
Santos

১১১ বছরের ইতিহাসে প্রথম বার অবনমন পেলে, নেমারের স্যান্টোসের, ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ ক্ষুব্ধ সমর্থকদের

প্রথম ডিভিশন থেকে দ্বিতীয় ডিভিশনে নেমে গেল স্যান্টোস। ক্লাব কর্তাদের বিরুদ্ধে অপদার্থতার অভিযোগে দাঙ্গা বাধালেন ক্ষুব্ধ সমর্থকেরা। কঠিন সময়ে প্রিয় ক্লাবের পাশে নেমার।

picture of Pele and Neymar

(বাঁদিকে) পেলে, নেমারের প্রাক্তন ক্লাব স্যান্টোস দ্বিতীয় ডিভিশনে নেমে গিয়েছে। —ফাইল চিত্র।

আনন্দবাজার অনলাইন ডেস্ক
কলকাতা শেষ আপডেট: ০৮ ডিসেম্বর ২০২৩ ১৩:০৭
Share: Save:

ব্রাজিলের ক্লাব ফুটবলের ১১১ বছরের ইতিহাসে প্রথম বার দ্বিতীয় ডিভিশনে নেমে গেল স্যান্টোস। পেলে, নেমারের ক্লাব বলে পরিচিত স্যান্টোস বৃহস্পতিবার ২-১ ব্যবধানে হেরে গিয়েছে ফোর্টালেজ়ার কাছে। এর পরই ক্ষোভে ফেটে পড়েন ক্লাব সমর্থকেরা। কার্যত দাঙ্গা বাধিয়ে দেন তাঁরা।

প্রথম ডিভিশনে জায়গা ধরে রাখতে বৃহস্পতিবারের ম্যাচে জিততেই হত স্যান্টোসকে। কিন্তু ম্যাচ হেরে ১১১ বছরের ইতিহাসে প্রথম বার অবনমনের আওতায় পড়ল ঐতিহ্যশালী ক্লাবটি। ৩৮ ম্যাচে তাদের পয়েন্ট হয়েছে ৪৩। ২০ দলের লিগে ১৭ নম্বরে শেষ করেছে স্যান্টোস এর পরেই ক্লাব কর্তাদের বিরুদ্ধে অপদার্থতার অভিযোগে ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন সমর্থকেরা। পেলে, নেমারের মতো ফুটবলারের খেলা ক্লাবের দ্বিতীয় ডিভিশনে অবনমন মেনে নিতে পারেননি তাঁরা। খেলা শেষ হওয়ার পর ফুটবলার, সমর্থকদের কান্না ভেঙে পড়তে দেখা গিয়েছে।

এর পরেই ক্রমশ উত্তপ্ত হয়ে ওঠে পরিবেশ। ক্ষুব্ধ সমর্থকদের একাংশ গ্যালারিতে ব্যাপক ভাঙচুর চালান। ক্ষোভের আগুন ছড়িয়ে পড়ে রাস্তাতেও। একাধিক গাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়। পুলিশ ফুটবলারদের নিরাপদ জায়গা সরিয়ে নিয়ে গেলেও উন্মত্ত সমর্থকদের বাগে আনতে বেশ কিছু ক্ষণ সময় লাগে। চেন্নাইয়ন এফসির প্রাক্তন ফুটবলার স্টিভেন মেন্ডোজার গাড়িতেও আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়। প্রিয় ক্লাবের অবনমনে হতাশ নেমারও। তিনি সমাজমাধ্যমে লিখেছেন, ‘‘সব সময় স্যান্টোসের পাশে আছি।’’

মাত্র কয়েক মাস আগে যে স্টেডিয়ামে পেলের শেষকৃত্য সম্পন্ন হয়েছে, সেই স্টেডিয়ামই বেনজির দর্শক হাঙ্গামার সাক্ষী থাকল। বিক্ষোভের ভিডিয়ো সমাজমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে দ্রুত।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement

Share this article

CLOSE