Advertisement
২৫ মে ২০২৪
Chelsea FC

নাটকীয় ভাবে চাকরি খোয়ালেন কোচ, ম্যাচ হারার পর দিন সকালেই বরখাস্ত করল ক্লাব

প্রিমিয়ার লিগে টানা ব্যর্থতার জেরে চাকরি গেল চেলসি কোচ টুহলের। নতুন মালিকরা দায়িত্ব নেওয়ার ১০০ দিনের মাথায় কোচ ছাঁটাই করলেন। নতুন কোচ কে হবেন, তা এখনও জানায়নি ক্লাব কর্তৃপক্ষ।

প্রতীকী ছবি।

প্রতীকী ছবি।

নিজস্ব প্রতিবেদন
শেষ আপডেট: ০৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ ১৫:১২
Share: Save:

চাকরি গেল চেলসি কোচ টমাস টুহলের। প্রিমিয়ার লিগে একের পর এক ম্যাচে খারাপ ফলের জন্য টুহলকে নিয়ে অসন্তোষ, ক্ষোভ বাড়ছিল। শেয পর্যন্ত মঙ্গলবার ডায়নামো জাগ্রেবের কাছে ০-১ ব্যবধানে হারের পরই তাঁকে সরিয়েই দিলেন চেলসির কর্ণধার টড বোহলি।

নতুন মালিক পক্ষ ক্লাবের দায়িত্ব নেওয়ার ১০০ দিনের মাথায় কোচ ছাঁটাই করল। চেলসির নতুন কোচ কে হবেন, তা এখনও জানায়নি ক্লাব কর্তৃপক্ষ। একটি বিবৃতি দিয়ে জানানো হয়েছে, ‘চেলসি ফুটবল ক্লাব কোচ টমাস টুহলের সঙ্গে বিচ্ছেদ ঘোষণা করছে। চেলসি এফসির সকলে টুহলের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছে। তাঁর কার্যকালের সমস্ত প্রচেষ্টার জন্য তাঁকে এবং তাঁর সহকারীদের ধন্যবাদ।’’

ক্লাবের পক্ষ থেকে বিবৃতিতে আরও বলা হয়েছে, ‘চেলসির ইতিহাসে থাকবেন টুহল। চ্যাম্পিয়ন্স লিগ, ক্লাব বিশ্বকাপ এবং সুপার কাপ দিয়েছেন তিনি।’ টুহলকে সরিয়ে দিলেও সদস্য, সমর্থকদের হতাশ না হওয়ার বার্তা দেওয়া হয়েছে ক্লাবের পক্ষ থেকে। ক্লাবের নতুন কর্তৃপক্ষ চেলসিকে আরও এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার ব্যাপারে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ বলেও আশ্বস্ত করা হয়েছে। ক্লাবের অন্য কোচিং স্টাফরাই আপাতত ফুটবলারদের ট্রেনিং করাবেন। নতুন কোচ কে হবেন তা অবশ্য জানানো হয়নি। যদিও বলা হয়েছে, দ্রুত নতুন কোচ নিয়োগ করা হবে।

ফ্র্যাঙ্ক ল্যাম্পার্ডের পর টুহল চেলসির দায়িত্ব নেন ২০২১ সালের জানুয়ারি মাসে। মোট ১০০টি ম্যাচে তিনি চেলসির কোচের দায়িত্ব পালন করেছেন। তাঁর কোচিংয়ে প্রথম ৫০টি ম্যাচে চেলসি ২৪টি গোল খেলেও পরের ৫০টি ম্যাচে খেয়েছে ৫৩টি গোল। ক্রমশই খারাপ হয়েছে দলের পারফরম্যান্স। চেলসিতে যোগ দেওয়ার আগে ২০১৮ থেকে ২০২০ পর্যন্ত প্যারিস সঁ জঁয়ের কোচ ছিলেন টুহল।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)
সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের মাধ্যমগুলি:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE