Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১ ই-পেপার

হরভজন খেলত অস্ট্রেলীয়দের মেজাজে: স্টিভ

নিজস্ব প্রতিবেদন
কলকাতা ১৬ জানুয়ারি ২০২১ ০৫:৪৭
প্রশংসা: স্টিভ মুগ্ধ হরভজনের আগ্রাসী মানসিকতায়। ফাইল চিত্র

প্রশংসা: স্টিভ মুগ্ধ হরভজনের আগ্রাসী মানসিকতায়। ফাইল চিত্র

বর্ষীয়ান ভারতীয় অফস্পিনার হরভজন সিংহ অস্ট্রেলীয়দের মতো ইতিবাচক ও আগ্রাসী মানসিকতা নিয়েই ক্রিকেট খেলতেন। তাই তাঁর বিরুদ্ধে খেলার সময় অস্ট্রেলীয়দের কাজটা সহজ হত না। এমনই জানালেন অস্ট্রেলিয়ার প্রাক্তন অধিনায়ক স্টিভ ওয়।

হরভজনের প্রশংসা করে স্টিভ বলেন, ভারতীয় এই ক্রিকেটারের আগ্রাসী মনোভাব তাঁকে মুগ্ধ করত। ২০০১ সালে ভারতের মাটিতে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে টেস্ট সিরিজে হরভজন ৩২ উইকেট নিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে প্রথম বড় সাফল্য পান। সেই সিরিজে অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক ছিলেন স্টিভ ওয়।

শুক্রবার ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার ওয়েবসাইটকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে স্টিভ বলেন, ‍‘‍‘হরভজন আমাদের অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটারদের মতো মতো একই রকমের উদ্যম ও মানসিকতা নিয়ে ক্রিকেট খেলত। সে কারণেই খেলার সময় আমাদের কাছে হরভজন কাঁটার মতো বিঁধত। মনে হত, কোনও অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটার আমাদের বিরুদ্ধেই খেলতে নেমেছে।’’ যোগ করেন, ‍‘‍‘অস্ট্রেলীয়দের মতোই মানসিকতা। ইতিবাচক। তর্কযুদ্ধেও সমান পারদর্শী। তেমনই নিজেকে নিজেই প্রেরণা

Advertisement

জোগাতে পারত।’’ হরভজন কেন আন্তর্জাতিক পর্যায়ে সফল হয়েছিলেন, সে প্রসঙ্গে স্টিভ বলেন, ‍‘‍‘প্রথাগত ভাবে অফস্পিনারেরা যে ভাবে বল করে, ও সে রকম ভাবে বল করত না। পিচের বাউন্স কাজে লাগিয়ে বলকে হাওয়াতেও ঘোরাতে পারত।’’ যোগ করেন, ‍‘‍‘ওর বল যে প্রবল ঘূর্ণির ফাঁদ তৈরি করত তা নয়। কিন্তু সুক্ষ্ম সুক্ষ্ম প্রচুর বৈচিত্র ও বাউন্স কাজে লাগিয়ে বিপক্ষ ব্যাটসম্যানকে বিপদে ফেলত হরভজন।’’

এ প্রসঙ্গেই উঠে এসেছে ২০০১ সালের সেই ঐতিহাসিক সিরিজের কথা। সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে ভারতীয় দলের হয়ে খেলতে নেমে তিন টেস্টে ৩২ উইকেট পেয়ে নজির গড়েছিলেন হরভজন। যে প্রসঙ্গে প্রাক্তন অস্ট্রেলীয় অধিনায়ক জানিয়েছেন, হরভজন সেই সফরে বল করতে এসে উইকেট থেকে বাউন্স আদায় করে অস্ট্রেলীয়দের যে পরীক্ষার সামনে ফেলে দিয়েছিলেন, তার মোকাবিলা করা যায়নি। স্টিভের কথায়, ‍‘‍‘২০০১ সালের সেই সিরিজে ভারতের জয়ের নেপথ্যে হরভজনের অনেক অবদান রয়েছে। তিন টেস্টে ও ৩২ উইকেট পেয়েছিল। প্রতিটি স্পেলেই বল করতে এসে সে বার ও আমাদের পর্যুদস্ত করেছিল। টানা বল করে গিয়েছে সেই সিরিজে। দুর্দান্ত স্ট্রাইক-রেট রেখে ধারাবাহিক ভাবে পারফরম্যান্স করেছিল।’’ যোগ করেছেন, ‍‘‍‘ওর বিরুদ্ধে সেই সিরিজে ম্যাথু হেডেন কিছুটা সাফল্য পেয়েছিল। কিন্তু দলের বাকিরা কী ভাবে হরভজনের বিরুদ্ধে খেলতে হবে, তার রাস্তা খুঁজে পায়নি। ও সেই সিরিজে ভারতীয় দলের হয়ে বল হাতে বিপক্ষে না থাকলে হয়ত আমরাই সিরিজটা জিততে পারতাম। অস্ট্রেলীয়দের বিরুদ্ধে সব সময়েই প্রেরণাদায়ক পারফরম্যান্স করে এসেছে।’’

আরও পড়ুন

More from My Kolkata
Advertisement