×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

১৮ এপ্রিল ২০২১ ই-পেপার

২০০১-এর সেই সিরিজে ডুবেই আছেন হরভজন

নিজস্ব প্রতিবেদন
কলকাতা ০৬ মে ২০২০ ০৪:২২
ঐতিহাসিক: ইডেনের সেই ছবি। হরভজনের কোলে সৌরভ। ফাইল চিত্র

ঐতিহাসিক: ইডেনের সেই ছবি। হরভজনের কোলে সৌরভ। ফাইল চিত্র

দেশের মাটিতে ২০০১ সালে ভারত বনাম অস্ট্রেলিয়া সিরিজের কথা কোনও দিন ভুলতে পারবেন না ভারতীয় স্পিনার হরভজন সিংহ। অনুজ অফস্পিনার আর অশ্বিনের সঙ্গে ইনস্টাগ্রাম চ্যাটে সেই সিরিজের স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে এ কথাই বললেন তিনি। ২০০১ সালের সেই সিরিজে মুম্বইয়ে প্রথম টেস্টে অস্ট্রেলিয়ার কাছে হারে ভারত। কিন্তু তার পরে দুর্দান্ত প্রত্যাবর্তন ঘটিয়ে পর পর দুই টেস্ট জিতে নেয়। ৩২ উইকেট নিয়ে সিরিজ সেরা হন হরভজন। ইডেনে দুরন্ত হ্যাটট্রিক করে সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের দলের ঐতিহাসিক জয়ের অন্যতম নায়ক ছিলেন তিনি।

ফিরে তাকিয়ে হরভজনের মনে হচ্ছে, ‍‘‍‘আমি তখন ভারতীয় দলের বাইরে। পঞ্জাব ক্রিকেট সংস্থাও আমাকে রঞ্জি দলে নিচ্ছিল না। আমার বাবাও প্রয়াত হয়েছিলেন। তাই ব্যক্তিগত ভাবে ওই সিরিজ ছিল, ‍করো অথবা মরো পরিস্থিতির মতো। ঠিক ওই সময়েই ভারতীয় দলের কোচ জন রাইট এবং ‍দাদা (সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়) ওই সিরিজের জন্য একজন স্পিনার খুঁজছিলেন। কারণ, অনিল ভাই (অনিল কুম্বলে) সেই সময়ে আহত ছিল।’’ হরভজন যোগ করেন, ‍‘‍‘আমি ভাগ্যবান যে, বেশ কয়েক জন সিনিয়র ক্রিকেটারের সমর্থন তখন আমার দিকে ছিল। টিম ম্যানেজমেন্টও এমন একজনকে খুঁজছিল, যে দীর্ঘ সময় বল করতে পারে। চেন্নাইতে শিবির হয়েছিল। শেষ পর্যন্ত আমাকেই বেছে নেওয়া হয় দলের স্পিনার হিসেবে।’’

২০০১ সালের ওই সিরিজে ইডেন টেস্টে ভারত ম্যাচ জিতেছিল প্রথম ইনিংসে ফলো অন করেও। অশ্বিনকে সেই ম্যাচ প্রসঙ্গে হরভজন বলেন, ‍‘‍‘ইডেনে আমরা খেলতে নেমেছিলাম সিরিজে পিছিয়ে থেকে। কিন্তু দুর্দান্ত প্রত্যাবর্তন ঘটাই ওই ম্যাচে। প্রথম ইনিংসে আমি হ্যাটট্রিক করি এবং জীবনে প্রথমবার পাঁচ উইকেট পাই। ওরা এক সময়ে ২৮০-৮ ছিল। কিন্তু জেসন গিলেসপি এবং স্টিভ ওয়ের জুটি অস্ট্রেলিয়ার প্রথম ইনিংসের রান ৪০০-র উপরে নিয়ে যায়!’’

Advertisement

আরও পড়ুন: সুইং করাতে বলের ওজন বাড়ানোর প্রস্তাব ওয়ার্নের

হরভজন বলতে থাকেন, ‍‘‍‘প্রথম ইনিংসে আমরা বেশি রান করিনি। তাই ফলো অন হয়। কিন্তু দ্বিতীয় ইনিংসে ভি ভি এস লক্ষ্মণ এবং রাহুল দ্রাবিড়ের জুটি অবিশ্বাস্য খেলে দেয়। যা আজ পর্যন্ত আমার দেখা সেরা ইনিংস।’’ ইডেনের সেই টেস্টে সারা দিন ধরে অপরাজিত ছিল লক্ষ্মণ-দ্রাবিড় জুটি। দ্রাবিড় ১৮০ ও লক্ষ্মণ ২৮১ করেন। দুই ইনিংস মিলিয়ে ১৩ উইকেট নিয়েছিলেন হরভজন। বলছেন, ‘‍‘পঞ্চম দিন চা-পানের বিরতি পর্যন্ত অস্ট্রেলিয়ার ধারণা ছিল ম্যাচ ড্র হবে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত নাটকীয় ভাবে আমরা জিতি।’’ আলাপচারিতার মধ্যে অশ্বিনকে এমন কথাও বলেন হরভজন, ‘‘তুমিই এখন বিশ্বের সেরা অফস্পিনার। অনেকে অনেক কথা বলে কিন্তু আমি মোটেও তোমার উত্থান দেখে ঈর্শান্বিত নই।’’

আরও পড়ুন: এমবাপেকে ফের রেকর্ড অর্থে ধরে রাখার চেষ্টা পিএসজির

Advertisement