Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৫ মে ২০২২ ই-পেপার

URL Copied
Something isn't right! Please refresh.

আজ্জুর স্ত্রীকে কটাক্ষ করায় তেড়ে যায় ইনজ়ি, ফাঁস ওয়াকারের

নিজস্ব প্রতিবেদন
১৯ জুলাই ২০২০ ০৫:২১
Save
Something isn't right! Please refresh.
ক্ষুব্ধ: টরোন্টোর সেই বিতর্কিত দৃশ্য। ইনজ়ি তেড়ে যাচ্ছেন দর্শকের দিকে।

ক্ষুব্ধ: টরোন্টোর সেই বিতর্কিত দৃশ্য। ইনজ়ি তেড়ে যাচ্ছেন দর্শকের দিকে।

Popup Close

ভারত-পাকিস্তানের ক্রিকেটারদের মধ্যে মাঠে যতই প্রতিদ্বন্দ্বিতা থাকুক, তাঁরা একে অন্যের পাশেও দাঁড়াতে জানেন, বলে মন্তব্য করলেন ওয়াকার ইউনিস। একটি বিখ্যাত ঘটনার নেপথ্যে অজানা কাহিনি শুনিয়েছেন ইউনিস। টরোন্টোয় ১৯৯৭-এ সহারা কাপের সময় ইনজ়ামাম-উল-হক ব্যাট হাতে এক দর্শককে মারতে গ্যালারিতে উঠে যাচ্ছেন— এই দৃশ্য নিশ্চয়ই অনেকের মনে আছে। যা নিয়ে প্রবল বিতর্ক হয়েছিল এবং ইনজ়ামামকে শাস্তিও পেতে হয়েছিল।

এ বার সেই ঘটনা নিয়েই নতুন কাহিনি শোনালেন পাকিস্তানের প্রাক্তন পেস বোলার। তখন জানাজানি হয়েছিল, ওই দর্শক অনেকক্ষণ একটানা ইনজ়ামামকে ‘আলু’ বলে কটাক্ষ করছিলেন। তাতেই মেজাজ হারিয়ে দর্শকের দিকে তেWWWWWWড়ে যান ইনজ়ামাম। কিন্তু ওয়াকার একটি কথোপকথনে জানিয়েছেন, ওই দর্শক আসলে ভারতের প্রাক্তন অধিনায়ক মহম্মদ আজহারউদ্দিনের স্ত্রীর উদ্দেশে কটূক্তি করছিল। যা মেনে নিতে পারেননি ইনজ়ি। স্লিপ থেকে বাউন্ডারি লাইনে ফিল্ডিং করতে এসে তিনি দ্বাদশ ব্যক্তির কাছ থেকে ব্যাট চেয়ে ওই দর্শকের দিকে তেড়ে যান।

ওয়াকার জানিয়েছেন, সেই দর্শক ছিলেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত। বলেছেন, ‘‘এটা ঘটনা যে গ্যালারি থেকে কেউ একটা ওকে (ইনজ়ামামকে) আলু বলছিল। কিন্তু আজ়হারউদ্দিনের স্ত্রী সম্পর্কে খারাপ মন্তব্য শুনেই নিজেকে সামলাতে পারেনি ইনজ়ি। ও আসলে এ রকমই।’’ পাকিস্তানের সর্বকালের অন্যতম সেরা পেসার এর পরে যোগ করছেন, ‘‘এই ঘটনা প্রমাণ করে দেয়, খেলার মাঠে যতই তুমুল প্রতিদ্বন্দ্বিতা থাকুক, দু’দলের ক্রিকেটারদের মধ্যে গভীর বন্ধুত্বের সম্পর্কও তৈরি হয়েছে। এমনকি পারস্পরিক শ্রদ্ধাও কখনও নষ্ট হয়নি।’’ টরোন্টোর ঘটনার পরে ইনজ়ামাম দু’ম্যাচের জন্য নির্বাসিত হন। সেই দর্শক তাঁর বিরুদ্ধে মামলাও করেন। ওয়াকার জানিয়েছেন, সেই সময় আজহারই সেই দর্শকের সঙ্গে আলাদা করে কথা বলে পুরো ব্যাপারটা আদালতের বাইরে মিটিয়ে দিয়েছিলেন। ওয়াকার বলছেন, ‘‘আজহার খুবই ভাল মানুষ।’’

Advertisement

ভারত-পাক দ্বৈরথ ছাপিয়ে বন্ধুত্বের সুর আরও রয়েছে। ১৯৯৯ সালে চেন্নাইয়ে সচিন তেন্ডুলকরের দুরন্ত সেঞ্চুরির প্রশংসা করলেন ওয়াকার। চতুর্থ ইনিংসে ১৩৬ করেন সচিন। তবুও ১২ রানে হেরে যায় ভারত। কিংবদন্তি ব্যাটসম্যানের সাহসের প্রশংসা করে ওয়াকার বলেন, ‘‘অবিশ্বাস্য ইনিংস খেলেছিল সচিন। ও যত ক্ষণ ক্রিজে ছিল, কখনওই জয়ের জন্য নিশ্চিত হওয়া যাচ্ছিল না।’’ যোগ করেন, ‘‘এত উত্তেজনাপূর্ণ টেস্ট ম্যাচ কখনও দেখিনি। আমার ক্রিকেট জীবনের সেরা টেস্ট খেলেছি চেন্নাইয়ে। সচিনের সেই ইনিংস কখনও ভোলা যায় না।’’ একই দিনে কামরান আকমল জানিয়েছেন, ভারতের সেরা উইকেটকিপার-ব্যাটসম্যান অবশ্যই মহেন্দ্র সিংহ ধোনি।



Something isn't right! Please refresh.

আরও পড়ুন

Advertisement