×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

২১ জুন ২০২১ ই-পেপার

বিরাটকে ফিরিয়ে উইলিয়ামসের নতুন উৎসব ভঙ্গিতে চাঞ্চল্য

নিজস্ব প্রতিবেদন
কলকাতা ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯ ০৩:৩৮
বদল: কোহালিকে আউট করে এ বার অন্য উৎসব উইলিয়ামসের। এপি

বদল: কোহালিকে আউট করে এ বার অন্য উৎসব উইলিয়ামসের। এপি

আগের ম্যাচে কেসরিক উইলিয়ামসের ‘নোটবুক’ উৎসবের ভঙ্গি করে ক্যারিবিয়ান পেসারকে জবাব দিয়েছিলেন বিরাট কোহালি। রবিবার তিরুঅনন্তপুরমে দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টি ম্যাচে দেখা গেল ভারত অধিনায়ককে ফিরিয়ে দেওয়ার পরে ঠোঁটে আঙুল দিয়ে চুপ করার ইঙ্গিত করছেন উইলিয়ামস। কেন এই ইঙ্গিত, এই নিয়ে চাঞ্চল্য সোশ্যাল মিডিয়ায়।

এত দিন উইকেট নিয়ে উইলিয়ামস একটা বিশেষ উৎসব করতেন। ব্যাটসম্যানকে ফিরিয়ে দিয়ে নোটবুকে লেখার ভঙ্গি করতেন তিনি। যেন ব্যাটসম্যানকে বোঝাতে চাইতেন, তুমি আমার পকেটে। দু’বছর আগে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে কোহালিকে আউট করার পরে সেই ‘নোটবুক’ উৎসব করেছিলেন উইলিয়ামস। সে কথা ভোলেননি ভারত অধিনায়ক। আগের ম্যাচে উইলিয়ামসকে পরপর চার, ছয় মেরে সেই উৎসব ফিরিয়ে দেন কোহালি।

রবিবার দ্বিতীয় ম্যাচে কোহালিকে ১৯ রানে আউট করার পরে দেখা গেল উইলিয়ামসের এই নতুন উৎসব ভঙ্গি। ‘নোটবুক’ উৎসব নয়, এ বার ঠোঁটে আঙুল দিয়ে চুপ করার ইঙ্গিত করেন ক্যারিবিয়ান পেসার। শুধু কোহালির ক্ষেত্রেই নয়, দেখা গেল ইনিংসের শেষে রবীন্দ্র জাডেজাকে ফিরিয়ে দিয়েও ওই একই ভঙ্গি করছেন উইলিয়ামস। তার পরে সোশ্যাল মিডিয়ায় দুটো মতামত ভেসে উঠেছে। অনেকে বলছেন, আগের ম্যাচে রুদ্রমূর্তির কোহালিকে দেখার পরে উইলিয়ামস আর তাঁর ‘নোটবুক’ উৎসব করতে সাহস পাননি। তাই এই বদল। উইলিয়ামস ঠোঁটে আঙুল দিয়ে বলতে চেয়েছেন, কোহালিকে আউট করে উচ্ছ্বাসে মেতে ওঠার কোনও কারণ ঘটেনি। এমনকি দেখা যায়, দু’হাতে তিনি দলের বাকি ক্রিকেটারদেরও শান্ত থাকার ইঙ্গিত করছেন। যে কারণে মনে করা হচ্ছে, কোহালিকে আর রাগিয়ে দিতে চান না তিনি। ঠিক যে পরামর্শটা দিয়েছিলেন স্বয়ং অমিতাভ বচ্চন। আবার সোশ্যাল মিডিয়ায় অনেকে বলতে থাকেন, এটা কি অন্য কোনও ইঙ্গিত? কোহালি যে ভাবে ক্যাচ ধরে মাঝে, মাঝে ঠোঁটে আঙুল রেখে প্রতিপক্ষকে চুপ থাকার ইঙ্গিত করেন, এটা কি তারই নকল?

Advertisement

উইলিয়ামস কী বোঝাতে চেয়েছেন, তা নিয়ে প্রশ্ন থাকতে পারে। কিন্তু একটা ব্যাপার নিয়ে কোনও প্রশ্ন নেই। এ দিনই রোহিত শর্মাকে পিছনে ফেলে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে সর্বাধিক রানের মালিক হয়ে গেলেন কোহালি। এ দিন মাত্র ১৯ রানে আউট হলেও রোহিতকে টপকে যাওয়ার জন্য সে রানই যথেষ্ট ছিল। কোহালির সংগ্রহ এখন ৭৪ ম্যাচে ২৫৬৩ রান। অন্য দিকে ১০৩ ম্যাচে রোহিতের রান ২৫৬২। তবে বিশ্বরেকর্ড করার দিনে হারের যন্ত্রণা নিয়েই মাঠ ছাড়তে হল কোহালিকে।

Advertisement