Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

১৭ অক্টোবর ২০২১ ই-পেপার

India vs England: একাত্তরের সেই সিরিজ় জয়ের স্মৃতিচারণ শাস্ত্রীর

নিজস্ব প্রতিবেদন
কলকাতা ২৫ অগস্ট ২০২১ ০৮:২১
জুটি: ফের কি সিরিজ় জিততে পারবেন বিরাট-শাস্ত্রী?

জুটি: ফের কি সিরিজ় জিততে পারবেন বিরাট-শাস্ত্রী?
ফাইল চিত্র

ইংল্যান্ডের মাটিতে ঐতিহাসিক টেস্ট সিরিজ় জয়ের ৫০ বছর উপলক্ষে স্মৃতিচারণ করলেন রবি শাস্ত্রী। ভারতীয় দলের হেড কোচ জানালেন, সেই জয়ের সৌজন্যে কী ভাবে ভারতীয় ক্রিকেটে নতুন অধ্যায়ের সূচনা হয়েছিল।

অজিত ওয়াড়েকরের নেতৃত্বে সে বার ভারত সিরিজ় জেতে ২৪ অগস্ট। ভারত তার আগে কখনও ইংল্যান্ডে টেস্ট সিরিজ় জেতেনি। প্রসঙ্গত ভারতীয় দল সে বার ইংল্যান্ডে খেলতে যায় ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধেও টেস্ট সিরিজ় জিতে। ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা এক ভিডিয়োয় শাস্ত্রী বলেছেন, ‘‘তখন আমার ন’বছর বয়স। আমার সেই টেস্টের প্রতিটি বল-এর কথা মনে আছে। কারণ সেই ম্যাচের ধারাবিবরণী শুনেছিলাম রেডিয়োতে। মনে আছে দু’ইনিংসেই রান পেয়েছিলেন ফারুক ইঞ্জিনিয়ার। ভিশি (গুন্ডাপ্পা বিশ্বনাথ), অজিত ওয়াড়েকরও রান পেয়েছিলেন।’’

শাস্ত্রী আরও বলেছেন, ‘‘অবশ্যই চন্দ্রশেখরের (ভগবৎ) অসাধারণ বোলিংয়ের কথাও মনে আছে। তিনি একাই সেই ম্যাচ ঘুরিয়ে দিয়েছিলেন ৩৮ রানে ছ’উইকেট নিয়ে। এখনও আমার সেই বোলিং গড়ের কথা মনে আছে।’’ বিরাট কোহালিদের গুরু মনে করেন, একাত্তরের সেই জয় ভারতকে বিদেশের মাটিতে সাফল্য ছিনিয়ে নেওয়ার ব্যাপারে আরও প্রত্যয়ী করে তুলেছিল। ‘‘১৯৭১-এর সেই জয় ভারতীয় দলের মনোবলকে অনেক উঁচুতে তুলে দিয়েছিল। বিদেশেও যে জেতা সম্ভব, সেই বিশ্বাসটাও এসেছিল ওদের মধ্যে। তার উপরে ইংল্যান্ডে জেতাটা সবসময়ই ঐতিহাসিক একটা ব্যাপার। এর মধ্যে ৫০ বছর কেটে গিয়েছে। ওই দলের ক্রিকেটারেরা সূচনাটা করে যান। ওঁদের সবাইকে নমস্কার জানাচ্ছি,’’ বলেছেন শাস্ত্রী।

Advertisement

সেই ঐতিহাসিক সিরিজ়ে লর্ডস ও ম্যাঞ্চেস্টারে প্রথম দু’টি টেস্ট ড্র হয়েছিল। শেষ টেস্টে প্রথমে ব্যাট করে ইংল্যান্ড তোলে ৩৫৫ রান। জবাবে ভারত করেছিল ২৮৪। দিলীপ সরদেশাই ও ইঞ্জিনিয়ারের অর্ধ শতরানের সৌজন্যে সেটা সম্ভব হয়েছিল। অবশ্য চল্লিশের উপরে রান করেছিলেন অধিনায়ক ওয়াড়েকর এবং একনাথ সোলকারও। ইংল্যান্ডের প্রথম ইনিংসে তিনটি উইকেটও নিয়েছিলেন সোলকার। আর ইংল্যান্ডের দ্বিতীয় ইনিংস প্রায় একাই শেষ করে দেন চন্দ্রশেখর। তিনি ছ’উইকেটে পান ৩৮ রানে। ইংল্যান্ড তোলে মাত্র ১০১ রান।

জয়ের জন্য দ্বিতীয় ইনিংসে ভারতের সামনে লক্ষ্য ছিল ১৭৩ রানের। ওয়াড়েকর (৪৫), সরদেশাই (৪০), বিশ্বনাথ (৩৩) ও ইঞ্জিনিয়ারের (অপরাজিত ২৮) সম্মিলিত প্রচেষ্টায় ভারত শেষপর্যন্ত চার উইকেটে টেস্ট সিরিজ় জিতে নতুন ইতিহাস রচনা করেছিল।

আরও পড়ুন

Advertisement