Advertisement
২৩ জুলাই ২০২৪
Sushil Kumar

Sushil Kumar Arrest: ৬ দিনের পুলিশি হেফাজতে অলিম্পিক্স পদকজয়ী সুশীল কুমার, খুনের সময় ঘটনাস্থলে থাকার কথা স্বীকার করলেন

রবিবার ভোররাতে পশ্চিম দিল্লির মুন্ডকা থেকে সুশীলকে গ্রেফতার করেছিল দিল্লির পুলিশের বিশেষ শাখা। দুপুরে তাঁকে রোহিনী আদালতে তোলা হয়।

সুশীল কুমার।

সুশীল কুমার। ফাইল ছবি

নিজস্ব প্রতিবেদন
কলকাতা শেষ আপডেট: ২৩ মে ২০২১ ২০:০৯
Share: Save:

তরুণ কুস্তিগীর সাগর রানা হত্যাকাণ্ডের দিন ছত্রসাল স্টেডিয়ামে হাজির থাকার কথা স্বীকার করে নিলেন সুশীল কুমার। বেশ কিছুক্ষণ জিজ্ঞাসাবাদের পর দু’বারের অলিম্পিক্স পদকজয়ীকে ৬ দিনের পুলিশি হেফাজতে পাঠিয়েছে দিল্লির রোহিনী আদালত। প্রথমে ১২ দিনের হেফাজত চাওয়া হয়েছিল দিল্লি পুলিশের তরফে। সুশীলের আইনজীবীরা প্রবল প্রতিবাদ করেন। আদালত পরে তা কমিয়ে ৬ দিনের হেফাজত অনুমোদন করে।

রবিবার ভোররাতে পশ্চিম দিল্লির মুন্ডকা থেকে সুশীলকে গ্রেফতার করেছিল দিল্লির পুলিশের বিশেষ শাখা। এরপর রবিবার সকালে রোহিনী আদালতে জিজ্ঞাসাবাদের জন্যে নিয়ে আসা হয়। বিশেষ তদন্তকারী দলকে আধ ঘণ্টা জিজ্ঞাবাসাদের সুযোগ দেওয়া হয়। সেখানেই ঘটনার দিন ছত্রশলে হাজির থাকার কথা স্বীকার করে নেন সুশীল। এটাও জানান, সাগরকে যারা মেরেছে, তারা তাঁর বন্ধু। ঘটনার পর নিজের বাড়িতে গিয়ে ঘুমিয়ে পড়েন তিনি। সুশীলের বর্ণনা শুনে তদন্তকারী অফিসাররা বাকরুদ্ধ হয়ে যান।

সুশীল জানিয়েছেন, পালিয়ে বেড়াতে গিয়ে তাঁর টাকা শেষ হয়ে আসছিল। তাই সঙ্গী অজয় কুমারকে নিয়ে স্কুটারে করে মুন্ডকা এলাকায় এক বন্ধুর থেকে টাকা নিতে যাচ্ছিলেন। সে সময়ই তাঁকে পাকড়াও করে পুলিশ। তদন্তে সুশীল এ-ও জানিয়েছে, তাঁর নির্দেশেই প্রিন্স নামের এক ব্যক্তি সাগরকে হত্যা করার ঘটনা মোবাইলে রেকর্ড করে রাখে। সুশীল বলেছিলেন ওই ভিডিয়ো ভাইরাল করে দিতে, যাতে ভবিষ্যতে কেউ তাঁকে ঘাঁটানোর সাহস না পায়! সেই ভিডিয়োই এখন তাঁকে বিপদে ফেলেছে।

পালিয়ে বেড়ানোর সময় পুলিশ যাতে তাঁদের খুঁজে না পায়, তার জন্য মোবাইল ফোন ব্যবহার করছিলেন না সুশীল। হরিব্দাব, মেরঠ, বাহাদুরগড়, চণ্ডীগড় এবং বাঠিন্ডায় ছিলেন। সর্বক্ষণ তাঁর সঙ্গী ছিলেন অজ্য়। সুশীল ধরা পড়ার পরেই সাগরের বাবা অশোক সংবাদমাধ্যমকে বলেছেন, “ওর বিরুদ্ধে জোরালো প্রমাণ রয়েছে। আশা করি ওকে কড়া শাস্তি দেওয়া হবে। আইনের উপর পূর্ণ ভরসা রয়েছে আমার।”

তবে সুশীলের এই কাণ্ডে বিহ্বল ভারতীয় ক্রীড়ামহল। আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতা দেশকে পদক জিতিয়ে যিনি তেরঙা জড়িয়ে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করতেন, তা মনে করে অনেকে বিশ্বাসই করতে পারছে সুশীল এমন করতে পারেন। বক্সার বিজেন্দ্র সিংহ বলেছেন, “ভারতের খেলাধুলোর জন্য ও যা করেছে তা কোনওদিন কেড়ে নেওয়া যাবে না। এটাই আমার বলার।” টেবিল টেনিস খেলোয়াড় অচন্তা শরথ কমল বলেছেন, “যদি ও সত্যি দোষী হয়ে থাকে তবে তা দুর্ভাগ্যজনক। শুধু কুস্তি নয়, অন্যান্য খেলাধুলোর উপরেও তার প্রভাব পড়বে।”

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)
সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের মাধ্যমগুলি:
Advertisement

Share this article

CLOSE