×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

০৭ মে ২০২১ ই-পেপার

‘আইপিএল ছিল উৎসবের মতো, ম্যাচের শেষে পার্টি ছিল মাস্ট’, বলছেন প্রাক্তন নাইট তারকা

সংবাদ সংস্থা
করাচি ২৭ জুন ২০২০ ১২:২৭
আইপিএল-এর প্রথম সংস্করণে কেকেআর-এর হয়ে খেলেছিলেন পাকিস্তানের পেসার উমর গুল। —ফাইল চিত্র।

আইপিএল-এর প্রথম সংস্করণে কেকেআর-এর হয়ে খেলেছিলেন পাকিস্তানের পেসার উমর গুল। —ফাইল চিত্র।

আইপিএল একটা উৎসবের মতো। দর্শকদের উচ্ছ্বাস, সমর্থন, সুপারস্টারদের সঙ্গে এক ড্রেসিং রুম শেয়ার এবং খেলার শেষে পার্টি এই মেগা টুর্নামেন্টকে অন্য এক মাত্রা দেয় বলে মনে করেন পাকিস্তানের প্রাক্তন পেসার উমর গুল।

আইপিএল-এর প্রথম সংস্করণে কলকাতা নাইট রাইডার্সের হয়ে খেলেছিলেন তিনি। সে বারের খেলার অভিজ্ঞতা থেকে গুল বলছেন, ‘‘প্রথম বার এ রকম প্রাইভেট একটা লিগ অনুষ্ঠিত হয়েছিল। আমরা সবাই তা খুব উপভোগ করেছিলাম।’’

২০০৭ বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি হয়েছিলেন গুল। আইপিএল-এর একেবারে শেষের দিকে তাঁকে নিয়েছিল কেকেআর। বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ঘরোয়া সিরিজ খেলে আইপিএল খেলতে এসেছিলেন গুল। তিনি বলছেন, ‘‘প্রথম ম্যাচেই ম্যাকালাম ১৫০ রান হাঁকিয়েছিল। টুর্নামেন্টে অংশ নেওয়ার জন্য আমি খুবই উত্তেজিত ছিলাম। পাকিস্তানি ক্রিকেটারদের বহু সমর্থক রয়েছে ভারতে। সব অর্থেই আইপিএল ছিল অন্য ধরনের একটা টুর্নামেন্ট। এটা অনেকটা উৎসবের মতো ছিল।’’

Advertisement

আরও পড়ুন: তিন দশকের শাপমোচন, লকডাউনেও লাল-স্রোত

প্রথম বারের আইপিএল-এ খেলার শেষে পার্টি হত। পরে অবশ্য সেই পার্টি বন্ধ করে দেওয়া হয়। প্রথম সংস্করণে খেলার সঙ্গে সঙ্গে পার্টি ছিল আকর্ষণের কেন্দ্রে। গুল বলছেন, ‘‘খেলার শেষে হোটেলে পার্টি হত। সেটাও ছিল আকর্ষণীয়। কেকেআর-এর পার্টির তো তুলনাই ছিল না। কারণ কেকেআর-এর মালিক ছিলেন শাহরুখ খান। ম্যাচ হারো বা জেতো, খেলার শেষে ব্র্যান্ড এবং স্পনসরদের জন্য ছবি তোলা হত। পরে হত পার্টি।’’

অনেকেই বলে থাকেন, আইপিএল থেকে অনেক অভিজ্ঞতা সঞ্চয় করেছেন। গুলও সেই সুরেই বলছেন, ‘‘দুর্দান্ত একটা অভিজ্ঞতা। আমার হয়ত তখন খুব বেশি নয়। অনেক কিছু শিখতে পেরেছিলাম। চোখের সামনে দেখেছি রিকি পন্টিংয়ের মতো সুপারস্টারকে। কিংবদন্তি সেই সব ক্রিকেটারের জীবনযাত্রা কেমন, তা চোখের সামনে দেখেছি। পেশাদারিত্ব কাকে বলে তা শিখেছি আইপিএল খেলেই।’’

Advertisement