Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

১৮ অগস্ট ২০২২ ই-পেপার

URL Copied
Something isn't right! Please refresh.

Wimbledon 2022: ম্যাচের মধ্যেই বিতর্ক! মোটা টাকা জরিমানা গুণতে হচ্ছে কিরিয়স, চিচিপাসকে

তৃতীয় রাউন্ডে মুখোমুখি হয়েছিলেন দুই খেলোয়াড়, যে ম্যাচে প্রবল বিতর্ক হয়। দুই খেলোয়াড়কেই জরিমানা করেছে উইম্বলডন।

নিজস্ব প্রতিবেদন
কলকাতা ০৪ জুলাই ২০২২ ১৯:৫৬
Save
Something isn't right! Please refresh.
চিচিপাস, কিরিয়সের জরিমানা।

চিচিপাস, কিরিয়সের জরিমানা।
ছবি রয়টার্স

Popup Close

উইম্বলডনের তৃতীয় রাউন্ডের ম্যাচ চলাকালীন ব্যাপক বিতর্কে জড়িয়ে পড়েছিলেন দু’জনে। তার জন্য মোটা টাকা জরিমানা গুণতে হবে নিক কিরিয়স এবং স্টেফানোস চিচিপাসকে। অভব্য আচরণের জন্যই দু’জনকে জরিমানা করা হয়েছে। ম্যাচে কিরিয়সের কাছে ৭-৬, ৪-৬, ৩-৬, ৬-৭ গেমে হেরেছেন চিচিপাস।

অশ্রাব্য ভাষায় গালিগালাজ করার জন্য কিরিয়সকে ৪০০০ ডলার (ভারতীয় মুদ্রায় তিন লাখ ১৫ হাজার টাকা) জরিমানা করা হয়েছে। রাগের চোটে এক দর্শকের প্রায় মাথা লক্ষ্য করে বল মারার জন্য চিচিপাসকে ১০ হাজার ডলার (প্রায় আট লাখ টাকা) জরিমানা দিতে হবে। তিনি ইতিমধ্যেই বিদায় নিয়েছেন প্রতিযোগিতা থেকে। কিরিয়স চতুর্থ রাউন্ডে উঠেছেন। এই উইম্বলডনে কিরিয়সের আগেও জরিমানা হয়েছে। প্রথম রাউন্ডের ম্যাচেই এক দর্শককে থুতু ছেটানোর অপরাধে ১০ হাজার ডলার (প্রায় আট লাখ টাকা) জরিমানা হয়েছিল। ২০১৯-এ একটি প্রতিযোগিতায় আট বার নিয়ম ভাঙায় ১ লাখ ১৩ হাজার ডলার (প্রায় ৯০ লাখ টাকা) জরিমানা হয়। ২০১৬-এ শাংহাই মাস্টার্স থেকে নিয়মভাঙার কারণে বহিষ্কার করা হয়েছিল তাঁকে। কখনওই নিজেকে শোধরানোর চেষ্টা করেননি কিরিয়স। এ দিনও তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ, বার বার আম্পায়ারের সঙ্গে ঝামেলা করেছেন। অন্তত তিন বার ইচ্ছাকৃত ভাবে চিচিপাসের শরীর লক্ষ্য করে বল মেরেছেন। চিচিপাস আবার দ্বিতীয় সেট হারানোর পর রাগের চোটে দর্শকাসনের দিকে সপাটে বল মারেন। সেটি কারওর গায়ে অবশ্য লাগেনি। দেওয়ালে ধাক্কা খেয়ে ফিরে আসে।

Advertisement

প্রসঙ্গত, দুই খেলোয়াড়ের তৃতীয় রাউন্ডের ম্যাচ ঘিরে তীব্র বিতর্ক হয়েছে। চিচিপাস দাবি করেন, কিরিয়স তাঁকে গোটা ম্যাচ জুড়ে বিভিন্ন ভাবে কটাক্ষ করে গিয়েছেন। যে কারণে নিজের উপরে নিয়ন্ত্রণ রাখতে পারেননি তিনি। পাল্টা দিতে বাধ্য হয়েছেন। চিচিপাসের বলেন, “কিরিয়স বিপক্ষকে কটাক্ষ করতে ভালবাসে। হয়তো ছোটবেলায় স্কুলে ওকে কেউ কটাক্ষ করেছিল। আমি কটাক্ষ একদম সহ্য করতে পারি না। যারা অন্যকে নীচে টেনে নামায় তাদের পছন্দ করি না। ওর চরিত্রের কিছু ভাল দিকও রয়েছে। তবে খারাপ দিকও কম নেই। খারাপ দিকটা সামনে এলে অনেক মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে।”

ম্যাচের পর স্বাভাবিক ভাবেই কিরিয়স সব অস্বীকার করেন। বলেছেন, “জানি না কী বলব। কী ভাবে ওকে কটাক্ষ করলাম সেটাই বুঝতে পারছি না। ও-ই তো দর্শকদের লক্ষ্য করে বল মারল। এমন কিছুই আজ করিনি যেটা অসম্মানজনক। ওর দিকে ইচ্ছাকৃত বল মারার কোনও চেষ্টাই করিনি। কেন ও এই অভিযোগ করল সেটাই বুঝতে পারছি না। আমি সত্যিকারের প্রতিযোগীর বিরুদ্ধে খেলতে ভালবাসি। অনেক বন্ধু রয়েছে আমার। অনেকেই আমাকে পছন্দ করে। ও যদি না করে তাতে আমার কোনও আপত্তি নেই।”

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)


Something isn't right! Please refresh.

Advertisement