• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

৩০-৩৫% পাঠ কমল মাধ্যমিকে, দ্বাদশেও

Partha
পার্থ চট্টোপাধ্যায়। —ফাইল চিত্র

অতিমারির দাপটে আগামী বছরের বোর্ড পরীক্ষার বোঝা আগেই অনেকটা কমিয়ে দিয়েছে সিবিএসই, আইসিএসই। দিল্লির জোড়া বোর্ডের পথে হেঁটে পশ্চিমবঙ্গেও মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার পাঠ্যক্রম কমানো হচ্ছে। দুই ক্ষেত্রেই ৩০ থেকে ৩৫% পাঠ্যক্রম কমানো হচ্ছে বলে বুধবার এক সাংবাদিক বৈঠকে জানান শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। তবে স্কুল বা কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় কবে খুলবে, শিক্ষামন্ত্রী তা স্পষ্ট করেননি। তিনি জানান, করোনা আবহে পড়ুয়াদের স্বাস্থ্য-সুরক্ষা নিশ্চিত করেই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

মাধ্যমিক বা উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা কবে হবে, সেই বিষয়েও এ দিন নির্দিষ্ট ভাবে কিছু বলতে চাননি শিক্ষামন্ত্রী। করোনার দরুন দশম ও দ্বাদশ শ্রেণির ক্লাস হয়েছে যৎসামান্য। এই অবস্থায় ওই দু’টি পরীক্ষার পাঠ্যক্রম শেষ পর্যন্ত কী হবে এবং কবে হবে পরীক্ষা, ছাত্রছাত্রী ও অভিভাবকেরা তা নিয়ে দীর্ঘদিন ধরেই উদ্বেগ প্রকাশ করে আসছেন। শিক্ষামন্ত্রী জানান, পাঠ্যক্রম নিয়ে পড়ুয়া এবং শিক্ষক-শিক্ষিকাদের কাছ থেকে ক্রমাগত অনুরোধ পাচ্ছিলেন তাঁরা। এটা ঠিক যে, করোনার জন্য মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদেরও নিয়মিত ক্লাস করা সম্ভব হয়নি। তবে শিক্ষা দফতরের উদ্যোগে কখনও অনলাইনে, কখনও দূরভাষে, কখনও বা টেলিভিশনে পড়ুয়াদের পঠনপাঠনে যথাসম্ভব সাহায্য করা হয়েছে।

এর পাশাপাশি আগামী মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার চূড়ান্ত পাঠ্যক্রম কী হবে, মধ্যশিক্ষা পর্ষদ ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা সংসদের কর্তারা সেই বিষয়ে শিক্ষা দফতরের বিশেষজ্ঞ কমিটির সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করেছেন। পাঠ্যক্রম কতটা কমানো যেতে পারে, তার সুপারিশও এসেছে বলে জানান শিক্ষামন্ত্রী। তিনি বলেন, “কোভিড পরিস্থিতিতে ছাত্রছাত্রীদের স্বার্থ রক্ষা করে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকে ৩০ থেকে ৩৫% পাঠ্যক্রম কমানোর সুপারিশ করা হয়েছে এবং আমরা তা গ্রহণ করেছি। কোন বিষয়ে কতটা পাঠ কমল, মধ্যশিক্ষা পর্ষদ ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা সংসদ নিজেদের ওয়েবসাইটে তা জানিয়ে দেবে।”

কতটা বাদ

• মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার পাঠ্যক্রম ৩০-৩৫ শতাংশ কমানো হবে। 

• কোন কোন অংশ বাদ দেওয়া হয়েছে, তার তালিকা ওয়েবসাইটে। 

• পর্ষদের ওয়েবসাইট www.wbbse.org এবং সংসদের ওয়েবসাইট www.wbchse.•ic.i•

• সংসদ জানিয়েছে, গত উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় যে-সব অংশ থেকে প্রশ্ন এসেছিল, সেগুলি বাদ যাচ্ছে। 

• যে-সব বিষয়ের থিয়োরির নম্বর ৬০ বা তার থেকে কম, সেগুলির কোনও অংশ বাদ যাবে না। 

পরীক্ষা কবে হবে? শিক্ষামন্ত্রী জানান, নানা রকম চিন্তাভাবনা চলছে। সব দিক দেখেশুনে সিদ্ধান্ত হবে। “পরিস্থিতি আরও ঘোরালো হচ্ছে। যারা স্কুল খুলেছিল, তাদের ঝাঁপ বন্ধ করতে হয়েছে,” বলেন মন্ত্রী। এ বার টেস্ট হয়নি। ফলে দশম ও দ্বাদশের সব পড়ুয়াই চূড়ান্ত পরীক্ষায় বসতে পারবেন। সংসদ জানিয়েছে, ৫ জানুয়ারি স্কুলগুলিকে ক্যাম্প অফিস থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের এনরোলমেন্ট ফর্ম সংগ্রহ করতে হবে। এনরোলমেন্টের শেষ তারিখ ২০২১ সালের ২২ জানুয়ারি। তবে জরিমানা নিয়ে নাম এলরোলমেন্টের কাজ চলবে ২৯ জানুয়ারি পর্যন্ত।

উচ্চ মাধ্যমিকে বিষয়ভিত্তিক উল্লেখযোগ্য কিছু বাদ

রাষ্ট্রবিজ্ঞান

• বিদেশ নীতি

অর্থনীতি

• ফিসকাল পলিসি

দর্শন

• আর্গুমেন্ট

ভূগোল

• সাইকল অব ইরোসন

স্ট্যাটিসটিকস

• স্যাম্পলিং থিওরি

ইতিহাস

• দ্য এরা অব কোল্ড ওয়ার

পদার্থবিদ্যা

• কমিউনিকেশন সিস্টেম

• ইলেক্ট্রোম্যাগনেটিভ ওয়েভস

বাংলা

• ভাষা সাহিত্য থেকে ‘শব্দার্থ তত্ত্ব’

ইংরেজি

• কবিতা অন কিলিং আ ট্রি

রসায়ন

• পলিমারস 

• ইলেক্ট্রোকেমিস্ট্রির কিছু অংশ

অঙ্ক

• ভেক্টরস

জার্নালিজম অ্যান্ড মাস কমিউনিকেশন

• স্পেশালাইজেশন অফ রিপোর্টিং সায়েন্স, পলিটিক্স, ক্রাইম, ফ্যাশন

কবে খুলবে স্কুল? শিক্ষামন্ত্রীর বক্তব্য, কোন পথে গেলে পাঠদানের সঙ্গে সঙ্গে ছাত্রছাত্রীদের স্বাস্থ্যও সুরক্ষিত থাকে, সেটা দেখতে হবে। সমন্বয় সাধন করতে হবে দু’টোর মধ্যে। দীর্ঘদিন স্কুল বন্ধ থাকায় শ্রেণিকক্ষে, বেঞ্চে ধুলো জমেছে। শৌচালয় থেকে লাইব্রেরি, সবই পরিষ্কার করতে হবে। স্কুল খোলার আগে স্কুলের পরিবেশ ঠিক করে অতিমারির মোকাবিলা করার প্রস্তুতি চালাতে হবে। প্রস্তুতির জন্য শিক্ষাসচিব মণীশ জৈনের নেতৃত্বে স্কুলশিক্ষা দফতরের সঙ্গে মধ্যশিক্ষা পর্ষদ ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা সংসদের আলাপ-আলোচনা চলছে। স্কুল কবে খোলা যায়, সব দিক বিবেচনা করেই সেই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

আরও পড়ুন: ধর্মঘট ঘিরে আজ শক্তির পরীক্ষায় বাম-কংগ্রেস, তৈরি থাকছে প্রশাসনও

ডিসেম্বরে কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় খোলার সম্ভাবনার কথা কিছু দিন আগে বলেছিলেন শিক্ষামন্ত্রী। কিন্তু সত্যিই আগামী মাসে কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় খুলছে কি না, এ দিন সেই প্রশ্নের নির্দিষ্ট উত্তর দেননি তিনি। শিক্ষামন্ত্রী বলেন, “আগে উপাচার্যদের সঙ্গে কথা বলি, তাঁদের মনোভাব জানি। তাঁদের বক্তব্য জেনে সরকারকে বলব। মুখ্যমন্ত্রীকে জানাব। তার পরে সরকার যে-সিদ্ধান্ত নেবে, তা-ই হবে।”

আরও পড়ুন: কমছে সক্রিয় রোগীর সংখ্যা, সুস্থতার হার বৃদ্ধি, প্রবণতায় আশার আলো

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন