আন্দোলনকারী জুনিয়র চিকিৎসকদের সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রীর বৈঠক ঘিরে অনিশ্চয়তা কাটল। জুনিয়র ডাক্তাররা দাবি জানিয়েছিলেন, টেলিভিশন মাধ্যমে গোটা বৈঠকের লাইভ কভারেজের ব্যবস্থা হলে তবেই তাঁরা নবান্নে মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে যাবেন। সেই দাবি মেনে নিয়েছে সরকার। লাইভ কভারেজে সম্মতি জানিয়ে নবান্নের তরফে চিঠিও পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে আন্দোলনকারীদের কাছে।

সোমবার সকালে আন্দোলনকারীদের তরফ থেকে জানানো হয়, মৌখিক ভাবে বিভিন্ন সূত্র থেকে নবান্নে বৈঠকের কথা জানতে পারলেও সরকারি ভাবে কোনও আমন্ত্রণপত্র তাঁরা হাতে পাননি। সরকারি আমন্ত্রণপত্র ছাড়া তাঁরা কোনও ভাবেই বৈঠকে যোগ দিকে পারবেন না।সাংবাদিকদের এ কথা জানানোর কিছু পরই স্বাস্থ্য ভবন থেকে একটি আমন্ত্রণপত্র তাঁদের কাছে পৌঁছেছে।

ওই আমন্ত্রণপত্রে অবশ্য মিডিয়ায় উপস্থিতি নিয়ে জুনিয়র ডাক্তারদের শর্তের উল্লেখ ছিল না। লেখা ছিল, প্রতিটা মেডিক্যাল কলেজ থেকে অন্তত ২ জন প্রতিনিধি মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে এই বৈঠকে যোগ দিতে পারবেন। বেলা আড়াইটার মধ্যেই পরিচয়পত্র-সহ তাঁদের নবান্নে পৌঁছে যেতে হবে। এবং পুরো বৈঠকটা রেকর্ড করা হবে।

রবিবার রাত পর্যন্ত স্বাস্থ্য দফতরের প্রস্তাব অনুয়ায়ী, নবান্ন সভাগৃহে আন্দোলনকারী জুনিয়র চিকিৎসকদের ২৮ জনের প্রতিনিধি দল মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে সম্মত হয়েছিল। রবিবার রাতেই নবান্ন থেকে স্বাস্থ্যশিক্ষা অধিকর্তার মাধ্যমে আন্দোলনকারী জুনিয়র চিকিৎসকদের জানানো হয়, মুখ্যমন্ত্রী সোমবার বেলা ৩টের সময় আন্দোলনকারীদের বৈঠকে ডেকেছেন। কিন্তু সোমবার সকালে আন্দোলনকারী জুনিয়র চিকিৎসকদের একটি অংশ দাবি করেন, যতক্ষণ না সরকারি ভাবে চিঠি দিয়ে তাঁদের বৈঠকের স্থান, কার সঙ্গে বৈঠক এবং কখন বৈঠক, এই তিনটি বিষয় স্পষ্ট করা হচ্ছে তত ক্ষণ তাঁরা বৈঠকে অংশ নেবেন না। জটিলতা তৈরি হয় বৈঠকের সময় সংবাদমাধ্যমের উপস্থিতির প্রশ্ন নিয়েও।

স্বাস্থ্য কর্তাদের দাবি, রবিবারই আন্দোলনকারী জুনিয়র চিকিৎসকদের স্পষ্ট করে দেওয়া হয়েছিল, সরকারি নিয়ম অনুযায়ী এ ধরনের বৈঠকের সরাসরি সম্প্রচারের জন্য কোনও সংবাদমাধ্যমকে উপস্থিত থাকার অনুমতি দেওয়া সম্ভব নয়। স্বাস্থ্য কর্তাদের দাবি, সেই শর্ত মেনেই বৈঠকে রাজি হয়েছিলেন আন্দোলনকারীরা। কিন্তু এ দিন সকালে আন্দোলনকারী জুনিয়র চিকিৎসকদের একটি অংশ ফের দাবি করেন, সংবাদমাধ্যমের উপস্থিতিতেই বৈঠক হতে হবে। তাঁরা বলেন, রবিবারের জিবি বৈঠকের পর তাঁরা যে দাবিগুলো রেখেছিলেন, তার মধ্যে অন্যতম ছিল মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকের সময় সংবাদমাধ্যমের উপস্থিতি। সংবাদমাধ্যমের উপস্থিতি প্রসঙ্গে স্বাস্থ্য দফতর যে সরকারি নিয়মকে তুলে ধরছেন, সেটা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন আন্দোলনকারীরা। তাঁদের প্রশ্ন, মুখ্যমন্ত্রীর প্রশাসনিক বৈঠক যদি সরাসরি সম্প্রচারিত হতে পারে, তা হলে এই বৈঠকে সংবাদমাধ্যমের উপস্থিতি নিয়ে সরকারের আপত্তি কেন?

আরও পড়ুন: 

রাজ্যে চিকিৎসা-সঙ্কট কাটার সম্ভাবনা, আজ মুখোমুখি বৈঠক হতে পারে নবান্নেই

আপনার ব্যবহারই আপনার পরিচয়! ডাক্তাররাও কেন এটা শিখবেন না
‘সার্জন হতে সমস্যা হবে না পরিবহের’

স্বাস্থ্য কর্তাদের আশা, দ্রুত এই বিষয়টি নিষ্পত্তি হবে এবং আজই বৈঠক হবে।