রাজ্যের হাসপাতালগুলিতে এখনকার গোলমালকে সরাসরি ‘সাম্প্রদায়িক’ তকমা দিলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। তাঁর ব্যাখ্যা অনুযায়ী, হামলাকারীরা সেই সম্প্রদায়ভুক্ত, রাজ্যে যাদের ২৭%ভোট রয়েছে। হাসপাতাল-সহ রাজ্যে যে কোনও গোলমালের নেপথ্যেই ওই বিশেষ সম্প্রদায় রয়েছে বলে তাঁর অভিযোগ।   

মঙ্গলবার বিজেপি নেতা মুকুল রায়ও ডাক্তার নিগ্রহের পিছনে একটি বিশেষ সম্প্রদায়ের হাত রয়েছে বলে মন্তব্য করেন। আরও এক ধাপ এগিয়ে বুধবার দিলীপবাবু বলেন, ‘‘তৃণমূল সরকার ওই সম্প্রদায়কে দিয়ে অপরাধ করাচ্ছে। ওদের কাছে অনুরোধ, তৃণমূলের পাতা ফাঁদে পা দেবেন না।’’ তাঁর বক্তব্য, ‘‘সমাজের সেই বিশেষ সম্প্রদায়ের লোকেরা আক্রমণ করেছে, যারা দুধেল গরু। যাদের লাথি খেতে উনি (মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়) পছন্দ করেন।’’ জবাবে রাজ্যের মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম বলেন, ‘‘অপরাধীর কোনও জাত-ধর্ম থাকে না। অপরাধী সমাজের শত্রু। ভাটপাড়ায় যে দু’জন খুন হয়েছেন তাঁদের তো কোনও সম্প্রদায়ের লোক বলছি না আমরা। এই যে সাম্প্রদায়িক বিভাজনের চেষ্টা হচ্ছে, তা না করে তৃণমূলের নামে দোষ না দিয়ে বাংলার কৃষ্টির পরিপন্থী কথা বলা বন্ধ করুন বিজেপি নেতারা।’’ 

বিজেপির এই ধরনের সংকীর্ণ, সাম্প্রদায়িক বক্তব্যের বিরোধিতা করেছে কংগ্রেস ও সিপিএম। এ দিন রাতে জুনিয়র ডাক্তারদের সংগঠনের পক্ষ থেকেও বিবৃতিতে বিজেপির অবস্থানকে ‘ধিক্কার’ জানিয়ে বলা হয়েছে,  ‘যারা আক্রমণ করে তারা সমাজের দুষ্কৃতী। এখানে কোনও জাতি-ধর্মের বিচার নয়।’

বিজেপির রাজ্য সভাপতি অবশ্য আরও দাবি করেন, যে বিশেষ সম্প্রদায়ের কথা তিনি বলছেন, তাদের ৪৭% সমাজবিরোধী। তাঁর মন্তব্য, ‘‘ওই বিশেষ সমাজকে দিয়ে বিজেপিকে আক্রমণ করানো হচ্ছে। কারণ ওরা জানে ওদের গায়ে হাত পড়বে না। পুলিশি নিরাপত্তায় ওরা অন্যায় করতে পারে। ওদের সাজা হয় না।’’ এ দিনই তৃণমূলের সাংসদ ও যুব সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘‘যারা চিকিৎসকদের উপর হামলা করেছে, তাদের তো গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তা সত্ত্বেও দূর দূরান্ত থেকে আসা লক্ষ লক্ষ রোগী চিকিৎসা না পেয়ে যে ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন, তার দায় কার? চিকিৎসকদের দাবি দাওয়াকে মান্যতা দিচ্ছে প্রশাসন। তার উপর আস্থা রাখুন।’’

প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সোমেন মিত্রেরও আবেদন, ‘‘সংকীর্ণ রাজনৈতিক অহং প্রকাশের সময় নয়। আবেদন করছি, তৃণমূল নেত্রী হিসেবে নন, মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে মমতা আন্দোলনরত চিকিৎসকদের সঙ্গে কথা বলুন। তাঁদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করুন।’’ চিকিৎসকদের উপরে হামলার নিন্দা করে সিপিএম রাজ্য সম্পাদক সূর্যকান্ত মিশ্র বলেন, ‘‘মুখ্যমন্ত্রী তথা স্বাস্থ্যমন্ত্রীর কাছে দাবি জানাচ্ছি, অবিলম্বে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে বসে সমস্যার নিষ্পত্তি করুন।’’ এনআরএস-কাণ্ডের জেরে রাজ্যের সব সরকারি হাসপাতালে যে অচলাবস্থা চলছে, তা কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রীকে জানানো হবে বলে বিজেপির রাজ্য সভাপতি জানান।

এবার শুধু খবর পড়া নয়, খবর দেখাও। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের YouTube Channel - এ।