কয়েক দফা তলবের পরে নারদ নিউজের চিফ এগ্‌জিকিউটিভ অফিসার (সিইও) ম্যাথু স্যামুয়েলকে জেরা করার সুযোগ পেয়েছে কলকাতা পুলিশ। দু’দিনে ১৬ ঘণ্টার জিজ্ঞাসাবাদ থেকে বেরিয়ে পুলিশের বিরুদ্ধে হেনস্থার অভিযোগ করেছেন স্টিং অপারেশনের হোতা ম্যাথু।

শুক্রবার রাতে মুচিপাড়া থানা থেকে বেরিয়ে নারদ-প্রধান বলেন, ‘‘তোলাবাজির একটি মামলায় আমাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডেকে পাঠানো হলেও নারদ-কাণ্ড, আমার আগের চাকরি ছাড়া, নারদ নিউজ তৈরি করা নিয়েই বারবার প্রশ্ন করা হয়েছে।’’ তাঁর দাবি, কেন তৃণমূল কংগ্রেসের কিছু নেতা-মন্ত্রীর বিরুদ্ধে স্টিং অপারেশন চালানো হয়েছিল, কে তার টাকা জুগিয়েছিল— জেরায় এ-সবও জানতে চাওয়া হয়।

নারদ নিউজের স্টিং অপারেশনের ব্যাপারে জিজ্ঞাসাবাদ নিয়ে অবশ্য মুখ খুলতে চাননি তদন্তকারীরা। তবে পুলিশের দাবি, তোলাবাজির মামলায় মূল অভিযুক্তের সঙ্গে ফোনে কথা হয়েছিল ম্যাথুর। যে-দু’টি ফোন থেকে কথা হয়েছিল, তার ব্যাপারে ম্যাথুর জবাবে অসঙ্গতি ছিল। তা নিয়েই কথা হয়েছে। ম্যাথুর দাবি, দু’টি ফোনই নষ্ট হয়ে গিয়েছে। যদিও তদন্তকারীদের সন্দেহ, মামলা দায়ের হওয়ার পরে তথ্যপ্রমাণ লোপাট করতে ম্যাথুই ফোন দু’টি নষ্ট করে দিয়েছেন। ম্যাথুর ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে কিছু সন্দেহজনক লেনদেন নিয়েও এ দিন তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে বলে পুলিশি সূত্রের খবর।

ম্যাথুকে গ্রেফতার করার জল্পনা উড়িয়ে দেয়নি পুলিশ। বলেছে, এ ব্যাপারে আইনজ্ঞদের পরামর্শ নেওয়া হচ্ছে। আজ, শনিবার জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ম্যাথুকে ফের তলব করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার ম্যাথুকে জেরা করা হয় সাড়ে সাত ঘণ্টা ধরে। শুক্রবার বেলা ১২টা নাগাদ ফের থানায় হাজির হলে মুচিপাড়া থানার ওসি প্রদীপ দাস এবং তদন্তকারী অফিসার রাজীব চট্টোপাধ্যায়-সহ কলকাতা পুলিশের একটি দল তাঁকে প্রশ্ন করে। টানা সাড়ে আট ঘণ্টা চলে জিজ্ঞাসাবাদ।