• নিজস্ব সংবাদদাতা 
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

সরকারি কর্মচারীদের নতুন বেতন কাঠামো নিয়ে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ রাজ্যে

Government employees
—ফাইল চিত্র।

রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের প্রতীক্ষিত রিভিশন অব পে অ্যান্ড অ্যালাওয়েন্স (রোপা) ২০১৯-এর বিজ্ঞপ্তি দিল অর্থ দফতর। ২০১৬ সালে ১ জানুয়ারি থেকে কর্মচারীদের বেতন বৃদ্ধি হচ্ছে বলে ধরা হবে। তবে রোপা-তে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, ২০১৬ সালের ১ জানুয়ারি থেকে ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯ পর্যন্ত বর্ধিত বেতনের যে বকেয়া হয়েছে, তা দেওয়া হবে না। কর্মচারীরা নতুন বেতন কাঠামো পাবেন ১ জানুয়ারি ২০২০ থেকে।

রোপা ২০১৯-এর আওতায় রাজ্য সরকারি কর্মচারী, সরকার অধীনস্থ সংস্থা, সরকারি এবং সরকার-পোষিত স্কুল-কলেজের শিক্ষক-শিক্ষিকা ও অশিক্ষক কর্মচারী, পুরসভা-পঞ্চায়েত কর্মী— সকলেই চলে আসছেন। 

আগের বেতন কমিশনের নির্দিষ্ট করা পে-ব্যান্ড এবং গ্রেড-পে প্রথা তুলে দিয়ে নতুন ‘পে-ম্যাট্রিক্স’ চালু হচ্ছে। ষষ্ঠ বেতন কমিশনের সুপারিশ মেনে রোপা-য় বলা হয়েছে ২০১৬ সালের ১ জানুয়ারি কোনও কর্মচারীর যে মূল (গ্রেড-পে+ব্যান্ড-পে) বেতন ছিল, তাকে ২.৫৭ দিয়ে গুণ করতে হবে। সেই অঙ্ক নতুন পে-ম্যাট্রিক্সের যে স্কেলে পড়বে, তা হবে তাঁর নতুন ‘লেভেল’। পুরনো বেতনক্রমে পাঁচটি পে-ব্যান্ড ছিল। এ বার ২৪টি লেভেল তৈরি করেছে সরকার। 

২০১৬ সালের ১ জানুয়ারিতে বেতন বৃদ্ধি ধরে নেওয়ার পর তিন বছরের ইনক্রিমেন্ট পাবেন কর্মীরা। বাড়িভাড়া ভাতা নতুন মূল বেতনের ১২ শতাংশ হারে (সর্বোচ্চ ১২ হাজার টাকা) দেওয়া হবে। সরকারি আবাসনে থাকলে অবশ্য বাড়িভাড়া ভাতা মিলবে না। তবে চতুর্থ শ্রেণির কর্মীরা কিছু ছাড় পাবেন। নতুন বেতনক্রমে প্রতি মাসে ৫০০ টাকা চিকিৎসা ভাতা, ঝুঁকিপূর্ণ এলাকায় কর্মরত থাকলে মাসে ৩০০ টাকা অতিরিক্ত ভাতা  দেওয়া হবে। পার্বত্য এলাকায় কাজের জন্য মাসে মূল বেতনের ১২ শতাংশ অথবা সর্বোচ্চ ২০০০ টাকা আলাদা ভাতা দেওয়া হবে। শীতকালীন ভাতা প্রতি মাসে ৩০০০ টাকা। 

‘এক্সট্রা ডিউটি অ্যালাওয়েন্স’ হবে মাসে ৩০০ টাকা এবং টিফিন অ্যালাওয়েন্স দিনে সর্বোচ্চ ১৮০ টাকা। বিশেষ ভাবে সক্ষম কর্মীরা প্রতি মাসে মূল বেতনের ৫ শতাংশ বা সর্বোচ্চ ৮০০ টাকা পাবেন। প্রোটোকল ডিউটি ভাতা মাসে ৭০০ টাকা।

চিকিৎসকদের ‘নন প্র্যাক্টিসিং অ্যালাওয়েন্স’ (এনপিএ) নতুন মূল বেতনের ২৪ শতাংশ ধরা হয়েছে। তবে তা মাসে ২৪ হাজার টাকার বেশি হতে পারবে না। মূল বেতন এবং এনপিএ মিলিয়ে বেতন সর্বোচ্চ ২ লক্ষ ১ হাজার টাকার বেশি হতে পারবে না।

অর্থ দফতরের এক কর্তা জানান, এ বার সংশ্লিষ্ট দফতর পে-ফিক্সেশনের কাজ শুরু করবে। জটিলতা হলে প্রয়োজনীয় নির্দেশিকা দেওয়া হবে। 

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন