কলকাতায় পা রাখলেন নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ অভিজিৎ বিনায়ক বন্দ্যোপাধ্যায়। একে বিশ্বজয়, তার ওপর আবার ঘরের ছেলের ঘরে ফেরা। স্বাভাবিক ভাবেই আবেগের জোয়ারে ভাসল বাঙালি। বিমানবন্দরে পা রাখতেই বহু মানুষ জড়ো হয়ে তাঁকে শুভেচ্ছা জানালেন ।

মঙ্গলবার সন্ধে ৭টা ২০মিনিট নাগাদ কলকাতা বিমানবন্দরে নামেন অভিজিৎ। মুখ্যমন্ত্রী এখন শিলিগুড়ি সফরে রয়েছেন। তাঁর অনুপস্থিতিতে এ দিন অভিজিৎকে উত্তরীয় ও ফুলের স্তবক দিয়ে বিমানবন্দরেই শুভেচ্ছা জানান মেয়র ববি হাকিম ও রাজ্যের মন্ত্রী ব্রাত্য বসু। তাঁকে শুভেচ্ছা জানাতে বিমানবন্দরের বাইরে জড়ো হয়েছিলেন দমদমের এলাকার বহু সাধারণ মানুষও।

বাড়িতে অপেক্ষারত মা নির্মলা বন্দ্যোপাধ্যায়।কাজেই বিমানবন্দর থেকেই অভিজিৎ সোজা বাড়ির পথে রওনা হন।  অভিজিৎকে স্বাগত জানাতে বালিগঞ্জ সার্কুলার রোডের বাড়ির চারপাশও সাজানো হয়েছে।

আরও পড়ুনঃঅভিজিতের কৃতিত্বে গর্বিত ভারত, নোবেলজয়ীর সঙ্গে সাক্ষাতের পর বললেন মোদী
আরও পড়ুনঃসংবাদমাধ্যমের প্ররোচনায় পা দিয়ে মন্তব্য করবেন না, অভিজিৎকে পরামর্শ মোদীর

মঙ্গলবার সকালেই অভিজিৎ দেখা করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে। নিজের টুইট হ্যান্ডেলে এই বৈঠককে ‘সুষ্ঠু ও সদর্থক’ বলেছেন  প্রধানমন্ত্রী। অর্থনীতিবিদ নিজেও এই বৈঠককে ‘অভিনব অভিজ্ঞতা’ বলে বর্ণনা করেন। বৈঠক শেষ হতেই শুরু হয় ঘরে ফেরার তোড়জোড়।

ঘরে ফেরার বিমানে অভিজিৎ 

দেশ জুড়ে উচ্ছ্বাসের মধ্যেই গত শনিবার দিল্লিতে পা রেখেছিলেন অভিজিৎ। ঘুরে দেখেছিলেন নিজের বিশ্ববিদ্যালয়ে। দেশে ফেরার আগে থেকেই অভিজিৎ দেশের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করতে থাকেন। নোবেল পুরস্কার প্রাপক হিসেবে তাঁর নাম ঘোষিত হতেই অগণিত মানুষ  শুভেচ্ছাবার্তা জানিয়েছে। আবার তৈরি হয়েছে বিতর্কও। অভিজিৎ খোলা মনে ভারতের বর্তমান আর্থিক পরিস্থিতি ব্যখ্যা করেছেন। আবার বিজেপির তরফেও নানা মন্তব্য করা হয়েছে তাঁকে নিয়ে। কেউ তাঁকে 'বামঘেঁষা' বলে দাগিয়ে দিয়েছেন, কেউ আবার প্রশ্ন তুলেছেন অভিজিতের ব্যক্তিগত সম্পর্ক নিয়েও।

এই বিতর্কের আবহেই ঘরে ফেরা নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদের। রাজনীতি দূরে সরিয়ে তাঁকে নিয়ে আপাতত আবেগে মশগুল বাঙালি।