শীত এ বার ডিসেম্বরে হাজির হয়ে বেশ অবাক করে দিয়েছিল। কিন্তু এমন উষ্ণ বসন্তপঞ্চমীও গত দু’বছরে দেখেনি কলকাতা। রবিবার মহানগরের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১৬.৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস, স্বাভাবিকের থেকে এক ডিগ্রি কম। 

গত বছর সরস্বতী পুজো ছিল ২২ জানুয়ারি। আবহাওয়া দফতরের তথ্য বলছে, সে-দিন কলকাতায় রাতের তাপমাত্রা ছিল ১৩ ডিগ্রি। ২০১৭ সালে সরস্বতী পুজো ছিল ১ ফেব্রুয়ারি। সে-দিনের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা (১৬.৬ ডিগ্রি)-কেও চুলচেরা বিচারে হারিয়েছে এই রবিবার। তবু শীত-শীত আমেজের মধ্যেই সরস্বতী পুজো তথা বাঙালির ভ্যালেন্টাইন ডে-র মজা চেটেপুটে উপভোগ করতে দেখা গেল নগরবাসীকে। কিন্তু এই শীত-শীত ভাবটা শীত ফেরার কোনও ইঙ্গিত নয় বলেই জানাচ্ছে হাওয়ামোরগ।

আবহবিদেরা জানাচ্ছেন, এমনিতেই শীতের বিদায় নেওয়ার সময় হয়েছে। তার উপরে মধ্য ভারতে তৈরি হওয়া একটি ঘূর্ণাবর্তের জেরে পরিস্থিতি আরও বিগড়ে ছিল। সেই ঘূর্ণাবর্ত কেটে যাওয়ায় তাপমাত্রা নেমেছে। কিন্তু শীত জাঁকিয়ে পড়ার জন্য যে-পরিস্থিতির প্রয়োজন, তা আর নেই। ঋতুচক্রে বদলের সময়ও আসন্ন। কয়েক দিন পর থেকেই পারদ মাথাচাড়া দিতে শুরু করবে বলে মনে করছেন হাওয়া অফিসের বিজ্ঞানীরা।

তবে শনিবার কলকাতার তাপমাত্রা ছিল ১৯.২ ডিগ্রি। এক দিনে প্রায় চার ডিগ্রি পতনের জেরে রবিবার শীতের আমেজটুকু মালুম হয়েছে। হাওয়া অফিস সূত্রের খবর, রাজ্যের সব প্রান্তেই তাপমাত্রা বেশ কিছুটা নেমেছে। পশ্চিমাঞ্চলের 

পুরুলিয়া, আসানসোলের মতো এলাকায় রাতের তাপমাত্রা ঘোরাফেরা করছে নয় থেকে ১২ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে। রাতের দিকে সেখানে এখনও শীতের দাপট কিছুটা রয়েছে। কয়েক দিন ধরে তাপমাত্রা নামছে উত্তরবঙ্গেও। দার্জিলিং, কালিম্পঙে রাতের তাপমাত্রা 

তিন থেকে পাঁচ ডিগ্রির মধ্যে ঘোরাফেরা করছে। তরাই-ডুয়ার্সে মালুম হচ্ছে শীত।