কেটে গিয়েছে প্রায় ১৮ মাস। দুবাই থেকে প্রায় ছয় নটিক্যাল মাইল দূরে আরবসাগরে ভাসছেন ঘাটালের যাজ্ঞিক মুখোপাধ্যায়। অভিযোগ, খাবার, বেতন, জ্বালানি অনিয়মিত। নাবিক যাজ্ঞিককে ফেরাতে বিদেশ মন্ত্রকের দ্বারস্থ হয়েছেন তাঁর স্ত্রী, বিদ্যাসাগর বিশ্ববিদ্যলয়ের সহকারী অধ্যাপক ছন্দা মুখোপাধ্যায়।

বিদেশ মন্ত্রক জানিয়েছে, বিষয়টি সম্পর্কে তারা অবগত। সংশ্লিষ্ট দেশ এবং সংস্থার সঙ্গে যোগাযোগ রাখা হচ্ছে। সব রকম কূটনৈতিক ও আইনি সম্ভাবনা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। মেদিনীপুরের বাড়িতে রয়েছেন ৭০ বছরের শাশুড়ি। আট বছরের মেয়ে সুহানি, পাঁচ বছরের ছেলে সাত্ত্বিককে সামলে ছন্দা কখনও মেল করছেন প্রধানমন্ত্রীর দফতরে। কখনও বিদেশ মন্ত্রকে। চেষ্টার কোনও ত্রুটি রাখতে নারাজ ছন্দা। সোমবারই তিনি গিয়েছিলেন পশ্চিম মেদিনীপুরের জেলাশাসক পি মোহন গাঁধীর সঙ্গে দেখা করতে। সব রকম ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দেন জেলাশাসক।

ফোনে পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ রয়েছে যাজ্ঞিকের। ফোনেই তিনি জানালেন, আরবসাগরে ১৬টি জাহাজে ৪০ জন নাবিক আটকে রয়েছেন। তাঁদের মধ্যে ৩১ জন ভারতীয়। ৯ জন ভিন্‌ দেশের। যাজ্ঞিক জানালেন, ২০১৭ সালের অগস্টে দুবাইয়ের একটি সংস্থায় চাকরিতে যোগ দেন তিনি। সেখানে দু’মাস ধরে জাহাজ মেরামতি হয়। কথা ছিল, জাহাজ শারজায় নোঙর হবে। তার পর তেল নিয়ে পাড়ি দিতে হবে নির্দিষ্ট গন্তব্যে। কিন্তু যাজ্ঞিক জানান, শারজায় জাহাজ নোঙর করার পরে কোম্পানি জানায়নি ঠিক কোথায় তেল নিয়ে যেতে হবে। তিনি বলেন, ‘‘আর্থিক মন্দা-সহ নানা কারণে কোম্পানি আমাদের ফেরানোর ব্যাপারে টালবাহানা করছে। অনুমতি নেই। তাই দুবাইও ফিরতে পারছি না।”

মাঝ সমুদ্রে সহকর্মীদের সঙ্গে যাজ্ঞিক

গোড়ায় সমস্যা না থাকলেও শেষ ছ’মাসে পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে বলে অভিযোগ যাজ্ঞিকের। অভিযোগ, খাবার, বেতন, জ্বালানি অনিয়মিত। যাজ্ঞিক বললেন, ‘‘এত দিনে দূতাবাস থেকে একবার খাবার পাঠানো হয়েছে। আমি ব্যক্তিগত ভাবে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে টুইট করেছি। আমার আশা, মুখ্যমন্ত্রী দ্রুত পদক্ষেপ করবেন।” ছন্দার পাশে থাকার আশ্বাস দিয়েছেন, বিদ্যাসাগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য রঞ্জন চক্রবর্তী।

আরও পড়ুন: পোশাক নিয়ে মন্তব্যে বিতর্কে জড়ালেন বিজেপিতে যোগ দেওয়া অভিনেত্রী মৌসুমী

দীর্ঘ হচ্ছে প্রতীক্ষা। আশা, কোনও না কোনও পথ নিশ্চয়ই মিলবে।

আরও পড়ুন: ভিক্টোরিয়া স্মরণেও হিন্দু সেনার উৎসাহ

—নিজস্ব চিত্র।