Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৯ জানুয়ারি ২০২২ ই-পেপার

মগরাহাটে চালু হল সেফ হোম

প্রথম দিনই ৩ জন রোগী ভর্তি হয়েছে এই সেফ হোমে।

নিজস্ব সংবাদদাতা
মগরাহাট ২৯ জুলাই ২০২০ ০৬:১৮
প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

মগরাহাট ২ ব্লকে চালু হল সেফ হোম। সোমবার দুপুরে ওই ব্লকের মুলটি পঞ্চায়েতের জলধাপা গ্রামের একটি পড়ে থাকা কর্মতীর্থের দোতলা ভবনে ৫০ শয্যার সেফ হোমটির সূচনা হয়। উপস্থিত ছিলেন ডায়মন্ড হারবারের মহকুমাশাসক সুকান্ত সাহা, মহকুমা পুলিশ আধিকারিক শান্তনু সেন, ডায়মন্ড হারবার স্বাস্থ্য জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক দেবাশিস রায়, মগরাহাট ২ বিএমওএইচ মহম্মদ গওসুল আলম।

প্রশাসন সূত্রের খবর, মৃদু বা উপসর্গহীন রোগীদের এখানে রাখা হবে। প্রথম তলায় মহিলা ও দোতলায় পুরুষদের থাকার ব্যবস্থা হয়েছে। প্রথম দিনই ৩ জন রোগী ভর্তি হয়েছে এই সেফ হোমে।

মগরাহাট ২ ব্লকের করোনা সংক্রমণের হার ক্রমশ বাড়ছে। স্বাস্থ্য দফতর জানিয়েছে, ব্লকে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১৬০। এই পরিস্থিতিতে আক্রান্ত রোগীকে নিয়ে পরিবারের লোকজনকে ছুটতে হচ্ছিল ডায়মন্ড হারবার জেলা হাসপাতালে বা কলকাতায়। সেখানে গাড়ি ভাড়া ও সময় নষ্ট হচ্ছিল। অনেক সময়ে শয্যা পেতেও হয়রানি হচ্ছিল। তা ছাড়া, মৃদু বা উপসর্গহীন পজ়িটিভ রোগীদের অযথা হাসপাতালে ভর্তি করে রাখতে গিয়ে বিভিন্ন হাসপাতালগুলিতে শয্যার সঙ্কট তৈরি হতে শুরু করেছে। এমন রোগীদের বাড়িতে রাখা যায়। কিন্ত অনেক ক্ষেত্রেই আলাদা ঘরে একা থাকার মতো পরিবেশ বা পরিস্থিতি না থাকায় তা সম্ভব হচ্ছে না। আবার মৃদু উপসর্গযুক্ত রোগীকে বাড়ি পাঠালে অযথা ঘোরাঘুরি করে আরও সংক্রমণ ছড়াতে পারে। তাই এ ধরনের রোগীদের কথা ভেবেই এই সেফ হোম চালু করা হল।

Advertisement

আপাতত সারা দিনে ২ জন চিকিৎসক ও কয়েকজন স্বাস্থ্যকর্মী থাকবেন ওই সেফ হোমে। কোনও রোগীর অবস্থা অবনতি হলে তাঁকে হাসপাতালে পাঠানোর জন্য থাকছে ২টি অ্যাম্বুল্যান্স। মহকুমাশাসক বলেন, ‘‘মৃদু বা উপসর্গহীন পজ়িটিভ রোগীদের বাড়িতে থাকার জায়গা না থাকায় তাঁদেরও হাসপাতালে ভর্তি রাখতে হচ্ছিল। তাতে কার্যত শয্যা আটকে থাকায় জরুরি রোগী ভর্তি রাখতে সমস্যা হচ্ছিল। এখন থেকে এলাকার মৃদু বা উপসর্গহীন রোগীরা নিজের বাড়ির কাছাকাছি সেফ হোমে থাকার সুযোগ পাবেন।’’

(জরুরি ঘোষণা: কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীদের জন্য কয়েকটি বিশেষ হেল্পলাইন চালু করেছে পশ্চিমবঙ্গ সরকার। এই হেল্পলাইন নম্বরগুলিতে ফোন করলে অ্যাম্বুল্যান্স বা টেলিমেডিসিন সংক্রান্ত পরিষেবা নিয়ে সহায়তা মিলবে। পাশাপাশি থাকছে একটি সার্বিক হেল্পলাইন নম্বরও।

• সার্বিক হেল্পলাইন নম্বর: ১৮০০ ৩১৩ ৪৪৪ ২২২
• টেলিমেডিসিন সংক্রান্ত হেল্পলাইন নম্বর: ০৩৩-২৩৫৭৬০০১
• কোভিড-১৯ আক্রান্তদের অ্যাম্বুল্যান্স পরিষেবা সংক্রান্ত হেল্পলাইন নম্বর: ০৩৩-৪০৯০২৯২৯)

আরও পড়ুন

Advertisement