Advertisement
০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩

আচরণবিধি উঠতেই অনুজ, জ্ঞানবন্তদের ফেরানো হল পুরনো পদে

রবিবার সন্ধ্যায় এক নির্দেশে কলকাতা এবং বিধানননগরের পুলিশ কমিশনারের পদে যথাক্রমে অনুজ শর্মা এবং জ্ঞানবন্ত সিংহকে ফিরিয়ে এনেছে নবান্ন।

অনুজ শর্মা।

অনুজ শর্মা।

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা শেষ আপডেট: ২৭ মে ২০১৯ ০৩:০৫
Share: Save:

দীর্ঘ সাত পর্বের লোকসভা ভোটের পরে রবিবারেই নির্বাচনী আচরণবিধি প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছে আর এ দিনই পুলিশে এক দফা রদবদল করেছে রাজ্য সরকার।

Advertisement

রবিবার সন্ধ্যায় এক নির্দেশে কলকাতা এবং বিধানননগরের পুলিশ কমিশনারের পদে যথাক্রমে অনুজ শর্মা এবং জ্ঞানবন্ত সিংহকে ফিরিয়ে এনেছে নবান্ন। পুলিশের খবর, রাতেই লালবাজারে রাজেশ কুমারের হাত থেকে পুলিশ কমিশনারের দায়িত্ব বুঝে নিয়েছেন অনুজ। নির্বাচন কমিশন অনুজকে সরিয়ে দিয়ে রাজেশকে এবং জ্ঞানবন্তকে সরিয়ে নটরাজন রমেশবাবুকে দায়িত্ব দিয়েছিল।

তাৎপর্যপূর্ণ ভাবে ব্যারাকপুরের পুলিশ কমিশনারের পদ থেকে সুনীল চৌধুরীকে সরিয়ে দেবেন্দ্রপ্রকাশ সিংহকে নিয়োগ করা হয়েছে। রবিবার রাতেই দায়িত্ব নিয়েছেন দেবেন্দ্র। কমিশন ডায়মন্ড হারবারের পুলিশ সুপার এস সেলবামুরুগানকে সরিয়ে শ্রীহরি পাণ্ডেকে নিয়োগ করেছিল। সেই পদে অবশ্য এখনও রদবদল করেনি নবান্ন। তবে বীরভূমের পুলিশ সুপারের পদে রদবদল হয়েছে।

আরও তাৎপর্যপূর্ণ বিষয় হল, কমিশনের নির্দেশে যাঁরা কলকাতা এবং বিধাননগরের পুলিশ কমিশনার হয়েছিলেন, তাঁদের আপাতত ‘ওয়েটিং ফর পোস্টিং অর্ডার’-এ রাখা হয়েছে। একই অবস্থা ব্যারাকপুরের পুলিশ কমিশনারের পদ থেকে অপসারিত হওয়া সুনীলেরও। ২০১৬ সালে বিধানসভা ভোটের সময় কলকাতার পুলিশ কমিশনার-সহ কয়েক জন পদস্থ আইপিএস অফিসারকে বদলি করেছিল কমিশন। সেই নির্বাচন মিটে যেতেই আবার তাঁদের পুরনো পদে বহাল করেছিল নবান্ন।

Advertisement

এ বারের ভোটে কমিশনের নির্দেশে বীরভূমের পুলিশ সুপার শ্যাম সিংহকে সরিয়ে ওই পদের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল ডিসি জ়োন-২ (এয়ারপোর্ট ডিভিশন) আভারু রবীন্দ্রনাথকে। এ দিন রাজ্য সরকারের নির্দেশিকায় দু’জনেই পুরনো পদে বহাল হলেন। কোচবিহারের পুলিশ সুপারের পদে অভিষেক গুপ্তের পরিবর্তে অমিতকুমার সিংহকে দায়িত্ব দিয়েছিল কমিশন। সেই অমিতকেও ‘ওয়েটিং ফর পোস্টিং অর্ডার’-এর তালিকায় রেখেছে রাজ্য সরকার। ডায়মন্ড হারবারের এসডিপিও বা মহকুমা পুলিশ অফিসার বদল করেছিল কমিশন। সেখানে এসডিপিও-র পদে মিঠুনকুমার দে-কে ফিরিয়ে আনা হয়েছে।

এই সব পরিবর্তনের কোনও কারণ রাজ্য সরকারের নির্দেশিকায় উল্লেখ করা হয়নি। ভোটের ফলাফলই এই রদবদলের পিছনে রয়েছে কি না, তা নিয়ে কাটাছেঁড়া করছেন প্রশাসনিক থেকে রাজনৈতিক মহলের একাংশ। তাঁদের মতে, কলকাতা ও বিধাননগর পুলিশ কমিশনারের পদে বদলির ব্যাপারটা ছিল সময়ের অপেক্ষা। তাই এর মধ্যে অন্য কিছু নেই। তবে অনেকেই বলছেন, ব্যারাকপুর লোকসভা কেন্দ্রে জিতেছে বিজেপি। সেখানকার পুলিশ কমিশনারকে বদলি করেছে রাজ্য সরকার। ডায়মন্ড হারবার লোকসভা আসনে তিন লক্ষের বেশি ব্যবধানে জিতেছেন তৃণমূলের অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। তাই কমিশনের আনা পুলিশ সুপারকে বদল করা হয়নি বলেই মনে করছেন পুলিশকর্তাদের একাংশ। বীরভূমের দু’টি আসনই তৃণমূলের দখলে গিয়েছে। তাই এসপি-পদে বদল হলেও নির্বাচন কমিশন যাঁকে পুলিশ সুপারের দায়িত্ব দিয়েছিল, তাঁকে তাঁর পুরনো পদে ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছে বলে মনে করছেন অনেকে।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.