Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৪ জানুয়ারি ২০২২ ই-পেপার

Mihir Goswami: দিনহাটায় পা রাখলেন মিহির, ‘পা ভেঙে দেব’ নিয়ে ফের উদয়নের সঙ্গে বিতণ্ডা শুরু

দিনহাটায় আসা নিয়ে মিহিরকে কোনও চ্যালেঞ্জ করেননি বলে পাল্টা দাবি উদয়নের। তাঁর আরও দাবি, একটি টেলিভিশন চ্যানেলে এ সব কথা বলার চেষ্টা করছে।

নিজস্ব সংবাদদাতা
দিনহাটা ২০ নভেম্বর ২০২১ ১৭:১৮
ফের তরজায় (বাঁ-দিকে) উদয়ন গুহ এবং মিহির গোস্বামী।

ফের তরজায় (বাঁ-দিকে) উদয়ন গুহ এবং মিহির গোস্বামী।
—ফাইল চিত্র।

সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ)-র বিরুদ্ধে দিনহাটার তৃণমূল বিধায়ক উদয়ন গুহের মন্তব্য দেশদ্রোহিতার সমতুল। উদয়নের ‘চ্যালেঞ্জ’ গ্রহণ করে শনিবার দিনহাটায় পা রেখে তাঁর বিরুদ্ধে পাল্টা তোপ দাগলেন নাটাবাড়ির বিজেপি বিধায়ক মিহির গোস্বামী। জানালেন, দিনহাটার সঙ্গে তাঁর আত্মিক যোগ রয়েছে। যদিও দিনহাটায় আসা নিয়ে মিহিরকে কোনও চ্যালেঞ্জ করেননি বলে পাল্টা দাবি উদয়নের। তাঁর আরও দাবি, একটি টেলিভিশন চ্যানেল এ সব কথা বলার চেষ্টা করছে।

শুক্রবার কলকাতা থেকে কোচবিহারে ফেরেন মিহির। শনিবার সকাল সকাল দিনহাটায় আসেন তিনি। তাঁর সঙ্গে ছিলেন জেলার বিজেপি-র সভানেত্রী মালতি রাভা রায়-সহ এক ঝাঁক বিধায়কও। তাঁদের সঙ্গে করেই সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন মিহির। ওই বৈঠকে উদয়নের বিরুদ্ধে কড়া মন্তব্য করেন তিনি। মিহির বলেন, ‘‘বিএসএফ-কে যে ভাষায় আক্রমণ করেছেন (উদয়ন), তা দেশদ্রোহিতার সমতুল।’’ সীমান্তে পাচারের রমরমা নিয়ে বিএসএফ-এর ঘাড়েই দায় চাপিয়েছিলেন উদয়ন। তা নিয়ে মিহিরের দাবি, ‘‘বিদেশি শক্তিকে উৎসাহিত করার জন্য যাঁরা ভারতের ক্ষতি চান, বিধানসভার পবিত্র সদনে দাঁড়িয়ে তাঁদের মতোই উক্তিই করেছেন তৃণমূলের বিধায়ক উদয়ন।’’

প্রসঙ্গত, ১৬ নভেম্বর বিধানসভার অভিবেশনে বিএসএফ-এর এক্তিয়ার বৃদ্ধি নিয়ে আলোচনা চলাকালীন কথা কাটাকাটিতে জড়িয়ে পড়েন উদয়ন এবং মিহির। দু’জনের মধ্যে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময়ও হয়। অভিযোগ, সে সময় মিহিরের উদ্দেশে উদয়ন বলেন, ‘‘বাংলায় আপনার দলের একটি পা ভাঙা গিয়েছে। আর একটি পা-ও ভেঙে দেব।’’ শনিবার মিহিরের অভিযোগ, সে দিন বিধানসভায় বিএসএফ-এর পাশাপাশি তাঁকেও আক্রমণ করেছিলেন উদয়ন। তাঁর কথায়, ‘‘বিধানসভায় দাঁড়িয়ে দিনহাটার নবনির্বাচিত বিধায়ক উদয়ন গুহ শুধু আমাকেই নয়, যে কুৎসিত ভাষায় বিএসএফ-কেও আক্রমণ করেছেন, তাঁর বিরুদ্ধে আমরা প্রতিবাদ জানিয়েছিলাম। আমি নিজে স্পিকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছিলাম। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনক ভাবে একপেশে হয়ে তাতে আমল দেননি স্পিকার মহোদয়। আমরা এ ধরনের অশালীন মন্তব্যের বিরোধিতা করেছিলাম। সে সময় উদয়ন চ্যালেঞ্জ ছুড়ে বলেন, ‘আমার এক পা নাকি ভাঙা। দিনহাটা এলে আর একটা পা-ও ভেঙে দেবেন।’ সে সময়ই সাংবাদিকদের বলেছিলাম, কোচবিহারে ফিরেই দিনহাটায় যাব। কারণ আমি দিনহাটার মানুষ। দিনহাটার মানুষের সঙ্গে আমার আত্মিক সম্পর্ক রয়েছে।’’

Advertisement

মিহিরের পা ভেঙে দেওয়ার মন্তব্য সরাসরি অস্বীকার করেছেন উদয়ন। শনিবার তিনি বলেন, ‘‘আমি কোনও চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিইনি। যদিও একটি টিভি চ্যানেল বার বার তা বলার চেষ্টা করছে। আমার নিজের হাত ভেঙে দিয়েছে বিজেপি। ডান হাত এখনও দুর্বল। আমি কী করে অন্যের পা ভাঙব? আমার এটুকু বুদ্ধি নেই? আমাকে দিয়ে বলানোর চেষ্টা হচ্ছে যে, আমি ওঁর পা ভেঙে দেব। ওঁর পা ভাঙার দরকার কী? বিজেপি-র অবস্থা এমনিতেই খারাপ। বিজেপি-র পা এমনিতেই ভেঙে গিয়েছে।’’

বিধানসভায় মিহিরের বিরুদ্ধে তাঁর মন্তব্য নিয়েও ‘সাফাই’ দিয়েছন উদয়ন। তাঁর কথায়, ‘‘পা ভাঙাটা আমার কথা নয়। আমি বলেছি, বিএসএফ-কে সমর্থন করে মন্তব্য করলে সীমান্ত এলাকায় গেলে তাঁর পা-ও ভেঙে যেতে পারে। আমি ওকে বন্ধু হিসাবে সাবধান করেছিলাম। গত পাঁচ বছরে তিনি বিধানসভায় একেবারে পিছনের বেঞ্চে মন্দোদরীর মতো বসে রয়েছেন। এ বার গিয়ে দেখলাম, প্রথম বেঞ্চে রাবণের মতো লাফালাফি করছেন। তাই আমি সাবধান করেছিলাম, ‘একটা পা ভাঙা, এত লাফালাফি করলে আর একটা পা-ও ভেঙে যেতে পারে'। ’’

আরও পড়ুন

Advertisement