Advertisement
২৬ নভেম্বর ২০২২
Nabanna Abhijan

‘অগ্নিপরীক্ষা’র প্রস্তুতি! হাওড়া স্টেশনে রাত কাটিয়ে সুকান্ত বললেন, পুলিশ টিকিও ছুঁতে পারেনি

মঙ্গলবার দুপুর ১টা পর্যন্ত হাওড়া স্টেশনের ভিআইপি লাউঞ্জেই ছিলেন সুকান্ত। তবে তিনি বালুরঘাট থেকে আসেননি। সোমবার রাতে কলকাতার নিউটাউনের বাড়ি থেকেই চলে আসেন হাওড়া স্টেশনে।

হাওড়া স্টেশনে রাত কাটিয়ে মিছিল সুকান্তর।

হাওড়া স্টেশনে রাত কাটিয়ে মিছিল সুকান্তর। নিজস্ব চিত্র।

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা শেষ আপডেট: ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২২ ১৩:৩৪
Share: Save:

নবান্ন অভিযানের জন্য সারা রাত হাওড়া স্টেশনেই ছিলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদার।

Advertisement

মঙ্গলবার বিজেপির নবান্ন অভিযানে হাওড়া ময়দান থেকে মিছিল করে নবান্নে যাওয়ার কথা ছিল সুকান্তর। রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকেরা বলছিলেন এই অভিযান রাজ্যে একের পর এক দুর্নীতির অভিযোগের আবহে সুকান্তের ‘অগ্নিপরীক্ষা’। দেখা গেল সেই অগ্নিপরীক্ষার প্রস্তুতি আগের রাত থেকেই শুরু করেছেন সুকান্ত।

বালুরঘাটে বাড়ি রাজ্য বিজেপির সভাপতির। তবে তিনি সেখান থেকে হাওড়ায় আসেননি। সোমবার রাতে কলকাতার নিউটাউনের বাড়ি থেকেই চলে আসেন হাওড়া স্টেশনে। তার পর থেকে মঙ্গলবার দুপুর ১টা পর্যন্ত হাওড়া স্টেশনের ভিআইপি লাউঞ্জেই ছিলেন সুকান্ত। কর্মীদের নিয়ে সেখান থেকেই শুরু হয় সুকান্তের মিছিল।

সম্ভবত তাঁকে তাঁর বাড়ির কাছে আটকে দেওয়া হতে পারে আন্দাজ করেই সুকান্ত চলে এসেছিলেন হাওড়া স্টেশনে। পরে ময়দানে পৌঁছে সভার মঞ্চে সে কথা জানিয়েও দেন সুকান্ত। বলেন, ‘‘কাল রাতে হাওড়া স্টেশনে চলে এসেছি। পুলিশ টিকিও ছুঁতে পারেনি সুকান্ত মজুমদারের।’’

Advertisement

বিজেপির এই নবান্ন অভিযানকে যে অত্যন্ত গুরুত্ব দিয়ে দেখছেন, তা আগের দিনই বুঝিয়ে দিয়েছিলেন সুকান্ত। এমনকি প্রশাসনকে হুঁশিয়ারি দিয়ে এ-ও বলেছিলেন যে, ‘‘নবান্ন অভিযানকে কেন্দ্র করে যদি কোনও আইন-শৃঙ্খলার অবনতি হয়, তবে তার দায় নিতে হবে পুলিশকে।’’ হাওড়া স্টেশনে সেই অভিযানের জন্য সারারাত থেকে সুকান্ত বুঝিয়ে দিলেন, তিনি যে কোনও প্রতিকূলতার মুখোমুখি হতে প্রস্তুত। সুকান্ত স্লোগান দেন, ‘‘প্রয়োজনে গুলি খেতেও তৈরি।’’

হাওড়া স্টেশন থেকে সুকান্তের মিছিলে তাঁর সঙ্গে রয়েছেন পুরুলিয়ার সাংসদ জ্যোতির্ময় সিংহ মাহাতো। উল্লেখ্য, সুকান্তের এই মিছিলে বড় ধরনের গোলমালের আশঙ্কা করছে প্রশাসন। নবান্ন অভিযানের ২৪ ঘণ্টা আগেই সোমবার তৃণমূলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষ বলেছিলেন, ‘‘বিজেপি বড় ধরনের গোলমাল তৈরির চেষ্টায় আছে আজ।’’ অন্য দিকে, সোমবারই বাংলায় বিজেপির রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদার প্রশাসনকে এক রকম হুমকি দিয়েই বলেছিলেন, ‘‘নবান্ন অভিযানকে কেন্দ্র করে যদি কোনও আইন-শৃঙ্খলার অবনতি হয়, তবে তার দায় নিতে হবে পুলিশকে।’’ পরে রাজ্য বিজেপির অন্যতম সাধারণ সম্পাদক দীপক বর্মণও বলেছিলেন, ‘‘পুলিশ যদি গুলি করে আমাদের কর্মীদের মেরে দেয়। তবে আমাদের কর্মীরা তো প্ররোচিত হবেই!’’

প্রসঙ্গত, হাওড়া ময়দান থেকে সুকান্তের নেতৃত্বাধীন মিছিল ফোরশোর রোড হয়ে নবান্নের দিকে যাবে বলে, আগে থেকেই পরিকল্পনা ছিল।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.