Advertisement
২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২
Shantiniketan

শান্তিনিকেতনে খুন হওয়া শিবমের বাড়িতে শিশু সুরক্ষা কমিশনের চেয়ারপার্সন, শুনলেন অভিযোগের কথা

মৃত শিবমের বাবা-মা এবং গ্রামবাসীরা এ দিনও অভিযুক্তদের ফাঁসির দাবি জানান। গ্রামবাসীদের কেউ কেউ অভিযুক্তদের এলাকাছাড়া করার দাবি করেন।

মৃত শিবমের বাড়িতে শিশু সুরক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান সুদেষ্ণা রায়। (ভিডিয়ো থেকে প্রাপ্ত ছবি)।

মৃত শিবমের বাড়িতে শিশু সুরক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান সুদেষ্ণা রায়। (ভিডিয়ো থেকে প্রাপ্ত ছবি)।

নিজস্ব প্রতিবেদন
শান্তিনিকেতন শেষ আপডেট: ২২ সেপ্টেম্বর ২০২২ ১৫:২৬
Share: Save:

বৃহস্পতিবার শান্তিনিকেতনের মোলডাঙায় খুন হওয়া শিবম ঠাকুরের বাড়িতে গিয়ে মৃতের পরিজনেদের সঙ্গে দেখা করে এলেন রাজ্যের শিশু সুরক্ষা কমিশনের চেয়ারপার্সন সুদেষ্ণা রায়। তিনি কথা বলেন নিহত শিশুটির বাবা-মা এবং গ্রামবাসীদের সঙ্গে। পরে সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে তিনি বলেন," যা হয়েছে, তাতে নিন্দা জানানোর ভাষা নেই। আমি বুঝতে পারছি শিশুটির মা-বাবা কিংবা ঠাকুমার মনের অবস্থা কেমন রয়েছে।” একই সঙ্গে তিনি এ-ও জানান যে, অভিযুক্তরা শিশু সুরক্ষা আইন লঙ্ঘন করেছেন। তাই মৃত শিশুর পরিবারের মতো শিশু সুরক্ষা কমিশনও অভিযুক্তের কড়া শাস্তি চায়।

মৃত শিবমের বাবা-মা এবং গ্রামবাসীরা এ দিনও অভিযুক্তদের ফাঁসির দাবি জানান। গ্রামবাসীদের কেউ কেউ অভিযুক্তদের এলাকা ছাড়ারও দাবি করেন। ঘটনার দিন ঠিক কী হয়েছিল, তা জানতে চান শিশু সুরক্ষা কমিশনের চেয়ারপার্সন। পুলিশ-প্রশাসন সঠিক কাজ করেছে কি না, তা-ও জানতে চান তিনি। মৃত শিশুটির পরিবারের তরফে জানানো হয়, পুলিশের তরফে তাঁদের সাহায্য করা হয়েছে। পরে সংবাদমাধ্যমের সামনেও একই কথা জানান শিবমের মা। মৃতের পরিবার এবং গ্রামবাসীদের সূত্রে জানা যায়, পুরনো একটি ঘটনায় কিছু বিষয়ে সামান্য বিবাদ হয়েছিল শিবমের পরিবার এবং অভিযুক্তদের পরিবারের সঙ্গে। কিন্তু তার জন্য যে এত বড় প্রতিশোধ নেওয়া হবে, তা তাঁরা বুঝতে পারেননি বলে জানিয়েছেন শিবমের বাবা ও মা।

গত রবিবার সকালে বাড়ি থেকে বিস্কুট কিনতে বেরিয়ে নিজের পাড়া থেকেই নিখোঁজ হয়ে গিয়েছিল শান্তিনিকেতনের মোলডাঙার বাসিন্দা শম্ভু ঠাকুর এবং মমতা ঠাকুরের ছোট ছেলে শিবম। মঙ্গলবার জানা যায়, ওই শিশুর দেহ পড়ে রয়েছে শম্ভুদের এক প্রতিবেশীর বাড়ির ছাদে। খবর পেয়ে পুলিশ এসে ইটের দেওয়াল এবং অ্যাসবেস্টসের ছাউনি দিয়ে তৈরি ওই বাড়ির চালে উঠে উদ্ধার করে শিশুটির দেহ। দেখা যায়, অ্যাসবেস্টসের ছাদে বস্তাবন্দি অবস্থায় রয়েছে শিবমের দেহ। প্রতিবেশী ওই মহিলাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। আটক করা হয়েছে ওই মহিলার মাকেও।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.