×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

১৬ এপ্রিল ২০২১ ই-পেপার

আজই রাজ্যে পৌঁছে যেতে পারে ভ্যাকসিন, জেলায় জেলায় চলছে টিকা মহড়া

নিজস্ব প্রতিবেদন
কলকাতা ০৮ জানুয়ারি ২০২১ ১২:৩৩
—ফাইল চিত্র।

—ফাইল চিত্র।

গোটা দেশের সঙ্গে বাংলাতেও ফের করোনা টিকার মহড়া শুরু হল। প্রতিটি জেলার ৩টি করে স্বাস্থ্যকেন্দ্র এবং হাসপাতালে টিকামহড়া বা ড্রাই রান চলবে। ২৫ জন স্বাস্থ্যকর্মীকে এই ‘নকল টিকা’ দেওয়া হবে। ইতিমধ্যেই কলকাতার এনআরএস-সহ রাজ্যের গুরুত্বপূর্ণ স্বাস্থ্যকেন্দ্রগুলিতে এই মহড়া শুরু হয়েছে। ২৫ জন করে স্বাস্থ্যকর্মী এই মহড়ায় অংশ নিয়েছেন।

ব্রিটিশ-সুইডিশ সংস্থা অ্যাস্ট্রাজেনেকা এবং অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে হাত মিলিয়ে ভারতে ‘কোভিশিল্ড’ উৎপাদনের বরাত পেয়েছে সিরাম ইনস্টিটিউট। ভারত বায়োটেকের ‘কোভ্যাকসিন’-ও রয়েছে ভারতের কাছে। জরুরি পরিস্থিতিতে ব্যবহারের জন্য এই ২ প্রতিষেধককেই অনুমোদন দিয়েছে কেন্দ্র। শুক্রবারই ওই দু’টি প্রতিষেধকের বাংলায় পৌঁছনোর কথা।

তার আগে রাজ্য জুড়ে চলছে মহড়া। মোট ৩টি ধাপে মহড়ার কাজ সম্পূর্ণ হবে। প্রথমে নাম নথিভুক্ত করতে হবে সকলের। সেগুলি একটি সফ্‌টওয়্যারে লিপিবদ্ধ করে রাখতে হবে। তার পরই শরীরে প্রয়োগ করা হবে মারণ ভাইরাসের ‘নকল’ প্রতিষেধক। টিকাপ্রদানের পর কিছু ক্ষণের জন্য চিকিৎসকদের পর্যবেক্ষণেই থাকবেন অংশগ্রহণকারীরা।

Advertisement



টিকাকরণের মহড়া চলছে মালদহে। —নিজস্ব চিত্র।

আরও পড়ুন: বদায়ূঁকাণ্ডে শিষ্যের বাড়ি থেকে ধৃত মূল অভিযুক্ত সেই পুরোহিত​

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক জানিয়েছে, প্রথমবার যাঁরা কোভিডের টিকা নিচ্ছেন, টিকার দ্বিতীয় ডোজটিও নিতে হবে তাঁদের। তবে কবে, কখন, কোথায় দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া হবে, অংশগ্রহণকারীদের তা মেসেজ করে জানানো হবে।

কিন্তু টিকাকরণের আগে কেন এই মহড়া? স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে খবর, আর কিছু দিনের মধ্যেই দেশ জুড়ে টিকাকরণ কর্মসূচি শুরু হবে। তা নিয়ে যাতে জটিলতার সৃষ্টি না হয়, তারই প্রস্তুতি চলছে। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক, রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের আধিকারিক এবং বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (হু)-র কর্মীরাও বিষয়টিকে পর্যবেক্ষণে রাখছেন।

আরও পড়ুন: ব্রিটেন থেকে ২৪৬ যাত্রী নিয়ে দিল্লি ফিরছে বিমান, বাড়ছে আতঙ্ক

এর আগে পশ্চিমবঙ্গে ৩টি কেন্দ্রে টিকার মহড়া হয়েছে। এ বার প্রত্যন্ত গ্রামেও কর্মসূচি চলবে। প্রথমে চিকিৎসক, নার্স এবং স্বাস্থ্যকর্মীর মতো কোভিড যোদ্ধারা টিকা পাবেন। তার পর তা পৌঁছবে সাধারণ মানুষের কাছে।

Advertisement