Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৬ জানুয়ারি ২০২২ ই-পেপার

বাস-অটো নেই, ট্রেকারে ভিড়, যানজট

ডানলপে মোদী, রাস্তায় দুর্ভোগ

সকালে পথে বেরিয়ে তিনি নাকাল হন। তাঁর কথায়, ‘‘আমতা কলেজ মোড়ে অপেক্ষা করেও বাস পেলাম না।

নিজস্ব সংবাদদাতা
চুঁচুড়া-উলুবেড়িয়া ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ০৬:১৬
 বাস না-থাকায় বাদুড়ঝোলা হয়ে যাত্রা আমতা-উদয়নারায়ণপুর রোডে।

বাস না-থাকায় বাদুড়ঝোলা হয়ে যাত্রা আমতা-উদয়নারায়ণপুর রোডে।
ছবি: তাপস ঘোষ ও সুব্রত জানা

সপ্তাহের প্রথম কাজের দিন সোমবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর জনসভা হয়ে গেল চুঁচুড়ার ডানলপে। তার জেরে পথে বেরিয়ে ভুগতে হল দুই জেলার সাধারণ মানুষকে। কারণ, বাস অমিল। ট্রেকারও কম। বাস-ট্রেকার ভাড়া করে বিজেপি কর্মী-সমর্থকেরা গিয়েছিলেন মোদীর সভায়। সে জন্য বিভিন্ন রাস্তায় যানজট তো হলই, গন্তব্যে পৌঁছতে সাধারণ মানুষকে বাড়তি গ্যাঁটের কড়িও গুনতে হল।
আমতার মহম্মদ ইয়াসিন হুগলির জনাইয়ের একটি অফিসে চাকরি করেন। সকালে পথে বেরিয়ে তিনি নাকাল হন। তাঁর কথায়, ‘‘আমতা কলেজ মোড়ে অপেক্ষা করেও বাস পেলাম না। শেষে ট্রেকারে করে ভেঙে ভেঙে অফিসে গেলাম।’’


আর এক ভুক্তভোগী পান্ডুয়ার মন্ডলাই গ্রামের ঝর্না টুডু। তিনি বলেন, ‘‘প্রতিদিন সকাল সাড়ে ন’টার ট্রেন ধরে হাওড়ায় কাজে যাই। মণ্ডলাই থেকে বাসে পান্ডুয়া স্টেশনে যেতে হয়। বাস না-থাকায় আজ বেশি খরচ করে অটোয় স্টেশনে যেতে হয়েছে।’’


ইংরেজি মাধ্যম স্কুলগুলিতে এখন প্রি-বোর্ডের পরীক্ষা। ফলে, নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রছাত্রী এবং শিক্ষক-শিক্ষিকাদের স্কুলে যেতে হয়েছে। কিন্তু সপ্তাহের প্রথম দিন সেই যাত্রা সহজ হয়নি। ভুগতে হয়েছে অফিসযাত্রীদেরও। অনেকে ভাড়াগাড়ির ব্যবস্থা করেন।

Advertisement


ডিজেলের দাম বাড়ায় দুই জেলার বহু রুটেই এখন কম বাস চলে। তার উপরে এ ভাবে রাজনৈতিক কর্মসূচিতে বেশিরভাগ বাস চলে যাওয়ায় বহু সাধারণ মানুষ ক্ষোভ প্রকাশ করেন। হুগলির চুঁচুড়া-মেমারি, পান্ডুয়া-কালনা রুটের সব বাসই সভায় চলে গিয়েছিল। তা ছাড়া লাক্সারি বাস, ট্রেকারও পান্ডুয়া থেকে তুলে নেওয়া হয়েছিল। পরিস্থিতি এমনই হয় যে, সভামুখী বাস, ট্রেকারে পান্ডুয়ার কালনা রোড, তেলিপাড়া মোড়, কলবাজার মোড়ে যানজট শুরু হয়ে যায় সকাল থেকেই। পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে পুলিশ হিমশিম খায়।


সভায় বাস চলে যাওয়ায় চুঁচুড়া বাসস্ট্যান্ড ফাঁকা ছিল। পরিবহণের সমস্যায় জেলাশাসকের দফতর এবং চুঁচুড়া আদালতেও কমসংখ্যক লোক চোখে পড়েছে। আরামবাগ শহরে আবার অন্য ছবি। দুর্ভোগের আশঙ্কায় অনেকে এ দিন বাইরে বের হননি। আবার যাঁদের কর্মস্থলে যাওয়া জরুরি ছিল, তাঁরা ভাড়াগাড়ি বা মোটরবাইকে চড়েন। হাওড়ার উদয়নারায়ণপুরে
বেশ কিছু ট্রেকারে দেখা যায় বাদুড়ঝোলা ভিড়।

আরও পড়ুন

Advertisement